সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৫৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের নদী খোকোদের তালিকা প্রকাশ ॥ শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান মাধবপুরে ছোট ভাইয়ের পিটুনীতে বড় ভাই খুন এমপি আবু জাহিরের প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জ সদর ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ ॥ আজ এক যোগে উদ্বোধন নবীগঞ্জে সন্ত্রাসী মুছা ১০ দিনেও অধরা কর আদায়ের উপর নির্ভর করে পৌরসভার উন্নয়ন-মেয়র ছাবির চৌধুরী নবীগঞ্জে নারী প্রতারক গ্রেপ্তার মানুষ বাঁচে তার কর্মে, বয়সের মধ্যে নয়-মিলাদ গাজী এমপি নবীগঞ্জে সাবেক ইউপি সদস্যের দাফন সম্পন্ন ॥ শোক প্রকাশ ‘হবিগঞ্জের মানুষ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী-মেয়র মিজান দুর্নীতি আর লুটপাটের মহাসাগরে নিমজ্জিত আওয়ামীলীগের পতন হবেই- জিকে গউছ
নবীগঞ্জে চাঞ্চল্যকর গোলাপ হত্যা ॥ সিরাজুল ঢাকায় গ্রেপ্তার আদালতে স্বীকারোক্তি

নবীগঞ্জে চাঞ্চল্যকর গোলাপ হত্যা ॥ সিরাজুল ঢাকায় গ্রেপ্তার আদালতে স্বীকারোক্তি

এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ পৌর এলাকার চরগাঁও গ্রামে চাঞ্চল্যকর গোলাপ আলী হত্যাকান্ডের মামলার প্রধান আসামী সিরাজুল মিয়াকে ঢাকার নারায়নগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করেছে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ। ধৃত সিরাজ চরগাওঁ গ্রামের ছাবির আলীর ছেলে। একই সাথে গোলাপ হত্যাকান্ডের পুর্বে দায়েরী মামলার আসামী ফাতেমা বেগমকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। এদিকে ঘাতক সিরাজুল গতকাল রবিবার হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমল আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবান বন্দি প্রদান করেছে।
পুলিশ সুত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ পৌর এলাকার চরগাওঁ গ্রামের গোলাপ আলী হত্যাকান্ডের পর থেকেই আসামীদের গ্রেফতারে নানা স্থানে অভিযান চালায় পুলিশ। ইতিমধ্যে হত্যা মামলায় সিরাজুল ছাড়া আরো দু’জন যথাক্রমে সাকিরা বেগম ও তালেব আলীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সর্ব শেষ গত শনিবার বিকালে নবীগঞ্জ থানার অফিসার পরিদর্শক (তদন্ত) ইকবাল হোসেন ও মামলার তদন্তু কর্মকর্তা এসআই খবির উদ্দিনের নেতৃত্বে পুলিশ ঢাকার নারায়নগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানার যাত্রা মোড়া এলাকাস্থ জোবেদা টেক্সটাইল মিল প্রাঃ লিঃ থেকে হত্যা মামলার আসামী সিরাজুল মিয়া (৩০) এবং মৃত্যুর পুর্বে গোলাপ আলীর দায়েরী মামলার আসামী তাঁর বোন ফাতেমা বেগম (১৮) কে পুলিশ গ্রেফতার করে নবীগঞ্জ থানায় নিয়ে আসেন। তথ্য প্রযুক্তির সাহায্যে পুলিশ নিশ্চিত হয় যে, সিরাজুল মিয়া উক্ত গার্মেন্টসে চাকুরীরত রয়েছে। কিন্তু শত শত গার্মেন্টস কর্মীর মাঝে তাকে খোজেঁ বের করা অসম্ভব হয়ে পরে। এক পর্যায়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ছন্দ বেশে উক্ত গার্মেন্সে চাকুরী নেয়। ৪ দিন ডিউটি করার পর অবশেষে সিরাজুল মিয়া এবং তাঁর বোন ফাতেমাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হন। ধৃত আসামীদের জিঞ্জাসাবাদে গোলাপ আলী হত্যাকান্ডের লোমহর্ষক বর্ণনা দেয় ঘাতক সিরাজুল। পরে তাকে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমল আদালত-৫ এর বিচারক সম্পা জাহানের নিকট ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রেরন করেছে। সিরাজুল তাঁর দেয়া জবানবন্দিতে বলে বিগত ১৪ আগষ্ট বিকালে তাঁর মা ও বোনদের সাথে গোলাপ আলীর পরিবারের ঝগড়া হয়। তখন সে বাড়িতে ছিল না। বাড়ি গিয়ে ঘটনা শুনে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। এ ঘটনায় গোলাপ আলীর ছেলে সুমন মিয়াকে মারপিটের অভিযোগে ১৪ আগষ্ট রাতে থানায় মামলা দায়ের করেন। এদিকে ক্ষুব্ধ সিরাজুল মিয়া, মিঠন মিয়া, সোহেল মিয়া, তালেব আলী, ছাবির আলী, সাকিরা বেগমসহ পরিবারের লোকজন ওই দিন রাতেই একত্রে বসে পরিকল্পনা ও পরামর্শ করে গোলাপ বা তাঁর ছেলে সুমনকে পাইলে হত্যা করিবে। সেই পরিকল্পনা মতে সিরাজুল, মিঠন ও সোহেল রাস্তায় পাশে জঙ্গলে ওৎ পেতে থাকে। রাত সাড়ে ১০টা থেকে ১১টা লাগাত গোলাপ আলী বাড়ি যাবার পথে তাকে ওই তিন জন মিলে ঝাপটে ধরে প্রথম কিল ঘুষি দিয়ে জোরপুর্বক টেনে হেচড়ে জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে সিরাজুল মিয়া গোলাপ আলীর গলায়, সোহেল মিয়া নাকে ও মিঠন মিয়া মুখে চেপেঁ ধরে শ^াসরোদ্ধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায়।
উল্লেখ্য, চরগাঁও গ্রামের নিহত গোলাপ আলীর সাথে তারই চাচাতো ভাই তালেব আলী গংদের দীর্ঘদিন ধরে জমিজমাসহ বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। ২০১৬ সালের ১৫ এপ্রিল ভোর রাত সোয়া ৪টা দিকে নিহত গোলাপ আলীর ছেলেকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে প্রতিপক্ষ তালেব আলী ও তাঁর লোকজন। ছেলেটি মৃত্যু নিশ্চিত জেনে রাস্তার পাশের ফেলে দিয়ে তারা চলে যায়। স্থানীয় লোকজন মুমুর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করে।
এ ব্যাপারে গোলাপ মিয়া একই গ্রামের সিরাজুল ইসলাম, মিটন মিয়া, সোহেল, রহিম, তোফায়েল, জসিম, তালেব আলী, ছাদ্দেক আলী, ছাবির আলী এবং ওসমানী নগর থানার সঞ্জব আলী ও দিরাই থানার জহিরুল হকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধ বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালত এফআইআর গণ্যে রুজু করার জন্য ওসি নবীগঞ্জকে নির্দেশ দেন। পরে মামলা নং ২১ তাং-২৯/০৪/২০১৬ইং রুজু হয়। পরবর্তীতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা প্রায় ৫ মাস তদন্ত শেষে আসামীদের বিরুদ্ধে বিগত ৪/৯/১৬ তারিখে চার্জসীট নং-২০৩(১) দাখিল করেন। এ ঘটনার পর থেকে তাদের বিরুধ আরো চাঙ্গা হয়। উভয় পক্ষের মধ্যে একাধিক মামলা মোকদ্দমাও রয়েছে থানায়।
এদিকে গত ১৪ আগষ্ট সোমবার রাতে গোলাপ আলীর ঘরের চালের উপর দিয়ে ডিসের লাইন টানানো নিয়ে তালেব আলীর সাথে বাকবিতন্ডতার এক পর্যায়ে তালেব আলীর লোকজন গোলাপ আলীর ছেলে ৯ম শ্রেণীর ছাত্র সুমন মিয়াকে মারপিট করে। এই ঘটনায় গোলাপ মিয়া বাদী হয়ে সোমবার রাতে নবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলাটি এফআইআর হিসেবে রুজু করে পুলিশ। এরপর থানা থেকে বেরিয়ে গোলাপ মিয়া আহত ছেলেকে দেখতে হাসপাতাল যান। সেখান থেকে বাড়ি ফেরার পথে গোলাপ মিয়া নিখোঁজ হয়। বাড়িল লোকজন সারারাত খোঁজাখুজি করে তাকে না পেয়ে আতংকের মাঝে সময় কাটান। এক পর্যায়ে মঙ্গলবার সকালে চরগাঁও গ্রামের নয়াবাড়ি কবরস্থানের পাশে একটি নির্জনস্থানে গোলাপ আলীর মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয় লোকজন। পরে খবর পেয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম আতাউর রহমান এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে। পরে মৃতের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে মৃতদেহটি হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করে। গোলাপ আলীর মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। এ ঘটনায় পুলিশ এ পর্যন্ত ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com