সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বাগুনীপাড়ায় স্কুল ছাত্রীকে সুটকেসে ভরে দিনে দুপুরে টাকা স্বর্ণালংকার লুট চুনারুঘাটের বিভিন্ন গ্রামে সুপ্রীম সীড এর বাঁধা কপির বাম্পার ফলন চুনারুঘাটে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ পুলিশসহ আহত ২০ ॥ আটক ২ আমার রাজনীতি সাধারণ মানুষের জন্য-আতাউর রহমান সেলিম কামাল হোসেন ও আক্রাম হোসেনের সৌজন্যে নবীগঞ্জের গুজাখাইরে ৩শ শীতার্থ মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে নবীগঞ্জে বিএনপির মাহফিল চুনারুঘাটে পুলিশের ন্যাক্কারজনক হামলা লাঠিচার্জ ও গ্রেফতারের ঘটনায় মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নিন্দা জামিআ আরাবিয়া দিনারপুর মাদ্রাসার ৬৭তম ইসলামী সম্মেলন অনুষ্ঠিত পইল গ্রামের ক্যান্সার আক্রান্ত বিলালকে তাসনুভা শামীম ফাউন্ডেশনের চিকিৎসা সহায়তা প্রদান বাহুবলে সরকারি খাল ভরাট করে মাটি পাচারের দায়ের ব্রিক ফিল্ড মালিককে অর্থদন্ড
যে কারণে বানিয়াচঙ্গের হলদারপুর হত্যাকান্ড

যে কারণে বানিয়াচঙ্গের হলদারপুর হত্যাকান্ড

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঈদ ছুটিতে বানিয়াচং উপজেলার হলদারপুুর গ্রামে চেয়ারম্যানের উপর হামলা ও পরবর্তীতে সংঘর্ষে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। নির্বাচনী বিরোধ ও পূর্ব শক্রতার জের ধরে চেয়ারম্যানের উপর হামলা ও খুনের ঘটনা ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানান। যে কারণে চেয়ারম্যানের উপর হামলা ও পরবর্তীতে খুন ঃ ঘটনা সূত্রপাত হয় গত ৩১ আগস্ট বৃহস্পতিবার। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিবগঞ্জ বাজারের প্রত্যক্ষদর্শী একজন ব্যবসায়ী জানান, ওই দিন বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বড়ইউড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হলদারপুর গ্রামের হাবিবুর রহমানের মালিকাধীন হবিগঞ্জ-নবীগঞ্জ সড়কের শিবগঞ্জ বাজারে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ঢুকে হলদারপুর গ্রামের সিরাজ মিয়া মদ পান কক্ষে মাতলামি করছিল। এ সময় চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমানের বড় ভাই হাফিজুর রহমান তাকে ঘর থেকে বেরিয়ে যেতে বলেন। এ নিয়ে সিরাজ মিয়া ও হাফিজুর রহমানের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। এক পর্যায়ে হাফিজুর রহমান উত্তেজিত হয়ে সিরাজ মিয়াকে থাপ্পর মারেন। পরে স্থানীয় লোকজন বিষয়টি মিমাংষা করে দেন। পরদিন শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান শিবগঞ্জ বাজারে তার ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে বসা ছিলেন। এ সময় সিরাজ মিয়া, সোহাগ ও কামালসহ আরো কয়েকজন এসে চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমানের উপর হামলা চালায়। প্রাণ রক্ষার্থে চেয়ারম্যান হাবিব দৌড়ে পার্শ্ববর্তী আব্দুস সালামের মালিকাধীন আল-ইকোয়ান ক্লথ স্টোরে আশ্রয় নেন। হামলাকারীরা এই ক্লথ স্টোরে ঢুকে চেয়ারম্যানকে ছুরিকাঘাত করে। এতে চেয়ারম্যান রক্তাক্ত জখম হন। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
এদিকে এখবর পেয়ে চেয়ারম্যানের আত্মীয়-স্বজনরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে এগিয়ে আসলে উভয় পক্ষে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে ইসলাম উদ্দিন নামে এক যুবক নিহত হয়।
এলাকাবাসীর সাথে আলাপ করে জানা গেছে, কয়েক বছর আগে সিরাজ মিয়ার ভাই শেকরের বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলা হয়েছিল। ওই মামলায় চেয়ারম্যানের ভাই হাফিজুর রহমান স্বাক্ষী ছিলেন। এছাড়া গত ইউপি নির্বাচনে কামাল মিয়া হাবিবর রহমানের বিরুদ্ধে কাজ করেছেন। এইসব বিরোধের কারণেই চেয়ারম্যানের উপর হামলা এবং পরবর্তীতে সংঘর্ষে খুনের ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com