বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শহরে হাইব্রিড হীরা-২ নকল ধান বীজ তৈরির কারখানা আবিস্কার ॥ বিপুল পরিমাণ ক্যামিকেল, নকল বীজ ও প্যাকেট জব্ধ ॥ গুদাম সীলগালা হবিগঞ্জে সেমিনারে সিটিটিসি কর্মকর্তা ॥ জঙ্গীদের পরিবারের দুর্দশার চিত্র তুলে ধরলেও সচেতনতা আসতে পারে নবীগঞ্জে যুবতি অপহরণের অভিযোগে ১৪ বছর জেল লবন নৈরাজ্য ॥ হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে ২০ ব্যবসায়ীকে জরিমানা সমাপনী পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না নবীগঞ্জে ইয়াসমিনের নবীগঞ্জে ফরিদ গাজীর নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল বাহুবলে ইজিবাইক উল্টে ১ জনের মৃত্যু নবীগঞ্জে গণফোরামের প্রথম সভায় বক্তারা ॥ ড. রেজা কিবরিয়া সিলেট বিভাগের গর্ব তারেক রহমানের জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সদর উপজেলা বিএনপির মিলাদ মাহফিল সাংবাদিক সলিল এর পিতার পরলোকগমন ॥ শোক প্রকাশ
মাধবপুরের নজরপুরে জমি নিয়ে বিরোধ ॥ ১০ লাখ টাকা চাঁদাদাবী

মাধবপুরের নজরপুরে জমি নিয়ে বিরোধ ॥ ১০ লাখ টাকা চাঁদাদাবী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মাধবপুরের নজরপুর মৌজায় জমি ক্রয় করে বিপাকে পড়েছেন এক ব্যক্তি। ইতিমধ্যে জমি ক্রেতার কাছে ১০ লাখ টাকার চাঁদাদাবী করা হয়েছে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় ক্রয়কৃত জমির একাধিক ভূয়া কাগজপত্র তৈরী করেছে প্রভাবশালীরা। এদিকে জমি বিক্রি করেও চাপের মুখে রয়েছেন বিক্রেতা। এসব ভূয়া কাগজপত্র দেখে অবাক হচ্ছেন তিনি।
জানা যায়, লুৎফুন নেছা বেগম ২০১৫ সালের ১৭ ফেব্র“য়ারী ৯৩৬ নং রেজিষ্ট্রি দলিল মূলে মাধবপুর উপজেলার নজরপুর মৌজার জেএল নং ১০২, এস এ খতিয়ান নং ৫, এসএ দাগ নং ৫৫০ এ অবস্থিত ২৬ শতক এবং ২০১৪ সালের ২৮ ডিসেম্বর সম্পাদিত ৯২৭৩নং রেজিষ্ট্রি দলিল মূলে ১১৮নং খতিয়ানের ৫২১ নং দাগে অবস্থিত ৩৬শতক জমির মালিক হন। লুৎফুন নেছার স্বামীর বাড়ি ঢাকার দক্ষিনখান এলাকার ফায়দাবাদে। লুৎফুন নেছার নামে বর্তমান মাঠ পর্চাসহ নামজারী রয়েছে। তিনি জমির খাজনাও পরিশোধ করেছেন। সম্প্রতি ওই জমি বিক্রি করতে প্রচার করলে মাধবপুরের পানিহাতা গ্রামের ফজলুল হক জমি ক্রয় করতে চুক্তিবদ্ধ হন। ইতিমধ্যে ফজলুল হকের কাছে রেজিষ্ট্রি দলিল মূলে লুৎফুন নেছা ৬২শতক জায়গা বিক্রি করেছেন। গত ৪ জুলাই তারিখে ৩১৭৩নং রেজিষ্ট্রি দলিলের মাধ্যমে লুৎফুন নেছা বেগম জমি ক্রেতা ফজলুল হকের কাছে জমি বিক্রি করে তা সমজিয়ে দেন। একই তারিখে আরও ২৫শতক জায়গা লুৎফুন নেছা রেজিষ্ট্রি বায়না মূলে বিক্রিতে আবদ্ধ হন ফজলুল হকের সাথে। জমি ক্রয় বিক্রয়ের বিষয়টি জানাজানি হলে একটি চক্র এতে বাধসাধে। অভিযেগে বলা হয়, আউলিয়াবাদ গ্রামের ওমর ফারুক রতনকে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করে একাধিক কাগজপত্র তৈরী করা হয়েছে। লুৎফুন নেছা বেগম যে জমি রেজিষ্ট্রি দলিল মূলে বিক্রি করেছেন সেই জমি ওমর ফারুক রতন দলিল মূলে মালিক হিসাবে দাবী করেছেন। ২৬/৮/২০০৯ ইং ২১৬ নং রেজিষ্ট্রি হেবা ঘোষণা দলিলে মালিক ওমর ফারুক রতন মালিক দাবীদার। মাধবপুরের চারাভাঙ্গা সাব রেজিষ্ট্রার অফিস তল্লাশী করে ২৬/৮/২০০৯ ইং তারিখে ২১৬ নং রেজিষ্ট্রি দলিল মূলে জমির মালিক ওমর ফারুক রতন এমন কোনো অস্বিত্ব পাওয়া যায়নি। ওমর ফারুক রতন হেবা মূলে জমির ক্রেতা হিসাবে সেটি আবার নজরপুর গ্রামের হারুনুর রশিদের কাছে সাধারণ আমমোক্তার নামা বলে হস্তান্তর করেন। যদিও সাধারণ আমমোক্তারনামা বলে ভূমি রেজিষ্ট্রি আইনে কোনো কিছু নেই বলে জানা গেছে। লুৎফুন নেছা বেগম ও ওমর ফারুক রতন আপন ভাই বোন। ওমর ফারুক রতন জানান- আমার বাবা এখনও জীবিত। আমার বোন লুৎফুন নেছা আমার বাবার জন্য এমন কিছু করেনি যে, আমার বাবা তাকে হেবা ঘোষনার মাধ্যমে লাখ লাখ টাকার সম্পত্তি দিয়ে দেবেন। জমিটি এখনও আমাদের দখলে। আমাদের নামজারী রয়েছে। ২১৬ নং হেবা দলিল সম্পর্কে তিনি জানান- এটিও ভূয়া। কে বা কারা এর সাথে সম্পৃক্ত আমি জানিনা। এই জমি আমি কারও কাছে বিক্রি করিনি। এব্যাপারে জমির দখল দাবীদার হারুনুর রশিদ জানান- ২১৬নং দলিল মূলে মালিক হিসাবে ওমর ফারুক রতন ৯ বছর আগে জমিটি আমার নামে সাধারণ আমমোক্তার নামা করেছে। নামজারী না থাকায় সেটি রেজিষ্ট্রি দলিল সম্পাদন হয়নি। হঠাৎ করে সে জমি লুৎফুন নেছা বেগম ফজলুল হকের কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন। আমি যে ৯ বছর যাবত জমিটিতে দখলে আছি ক্রেতা বিক্রেতা কেউই আমাকে জানায়নি। চাদা দাবীর বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেছেন। জমির বিক্রেতা লুৎফুন নেছা বেগম জানান- আমি জমিটি আমার পিতার কাছ থেকে রেজিষ্ট্রি দলিল মূলে মালিক। সেই জমি আমি বিক্রি করেছি। আমার ভাই ওমর ফারুক রতন পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন। তার কাছে কেউ নিরাপদ নয়। সে এখন আমার কাছে ও জমি ক্রেতার কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদাদাবী করছে। চাঁদা দিলে সে আমার জায়গা বিক্রিতে বাধা হয়ে দাড়াবে বলে জানিয়েছে। লুৎফুন নেছা অভিযোগ করেন- ইতিমধ্যে ওমর ফারুক রতন বেশ কয়েকটি জাল দলিল সৃষ্টি করেছে। এসব যে ভূয়া তা ধরাও পড়েছে। তাছাড়া আব্দুর রশিদ নামের একজনকে দিয়ে সে আমাকে ও আমার জমি ক্রেতাকে অনবরত হুমকি দিচ্ছে, চাঁদা দাবী করছে। তাদের এসব অন্যায় কাজ বন্ধ না হলে আইনের আশ্রয় নিতে বাধ্য হবেন বলেও জানান লুৎফুন নেছা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com