বুধবার, ১৭ Jul ২০১৯, ০১:০০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে ১৯ মাদক মামলার আসামী আকবর কারাগারে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অফিসে পিস্তল টেকিয়ে মোটর সাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনায় মামলা আদালতেও নিরাপত্তা জোরদার নবীগঞ্জে বন্যাাশ্রয়কেন্দ্রসহ ১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্লাবিত বন্ধ ঘোষণা, ত্রাণ বিতরণ বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শনে নবীগঞ্জে আসছেন দুই মন্ত্রী ক্যান্সার আক্রান্তদের মাঝে চিকিৎসা সহায়তার চেক বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির পৌর কর্মকর্তাদের অবস্থানের কারণে নাগরিক সেবা বন্ধ নবীগঞ্জে ছাত্রদল নেতা রায়েছ চৌধুরীরমুক্তির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল নবীগঞ্জে খালিক মঞ্জিলের স্বত্ত্বাধিকারীবেলাল চৌধুরীকে বিদায় সংবর্ধনা বানিয়াচং থেকে চোরাই মোটরসাইকেল সহ যুবক আটক
হবিগঞ্জ-বানিয়াচং সড়কে মৃত্যুর মিছিল ॥ আর কত প্রাণ গেলে লাগাম টানবে প্রশাসন?

হবিগঞ্জ-বানিয়াচং সড়কে মৃত্যুর মিছিল ॥ আর কত প্রাণ গেলে লাগাম টানবে প্রশাসন?

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ হবিগঞ্জ-বানিয়াচং সড়কে অহরহ ঘটছে দূর্ঘটনা। দিন দিন বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল। এছাড়া আহত হয়ে সারা জীবনের জন্য পঙ্গুত্ব বরণ করতে হচ্ছে অনেককে। এত দুর্ঘটনা আর প্রাণহানীর পরও আজ অবধি চোখে পড়ার মতো কার্যকর পদক্ষেপ নেই সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের। গত ৩ মাসে বানিয়াচং-হবিগঞ্জ সড়কে দুর্ঘটনায় ৩ জন নিহত ও অর্ধশতাধিক যাত্রী আহত হয়েছে। নিহতের সংখ্যা নেহায়েতই কম হলেও আহতদের মধ্যে অনেকই মৃত্যুযন্ত্রনা নিয়ে দিনাতিপাত করছেন। এসব  দুর্ঘটনার জন্য সিএনজি অটোরিক্সা, চান্দের গাড়ীসহ কয়েকটি পরিবহনের অদক্ষ চালকদের দায়ী করেছেন যাত্রীরা। গত কয়েকদিন যাবত বানিয়াচঙ্গের সচেতন সমাজসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন অদক্ষ চালকদের মাধ্যমে অবৈধ ও ফিটনেস বিহীন চান্দের গাড়ি, সিএনজি অটোরিক্সা, ম্যাক্সি বয়কট করার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রতিবাদ জানিয়ে প্রচারণাও চালিয়ে যাচ্ছেন।
সূত্র জানায়, গত ২০ জুন হবিগঞ্জ-বানিয়াচঙ্গ সড়কের ভাটিপাড়া এলাকায় বেপরোয়া চান্দের গাড়ী সামনের চাকা খুলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পার্শ¦বর্তী খালে পড়ে যায়। এতে আজমিরীগঞ্জ উপজেলার জলসুখা ইউনিয়নের মেম্বার হাফিজ উদ্দিন (৬০) ও বানিয়াচং সদরের মাতাপুর তকবাজখানী গ্রামের মোঃ আমির হোসেন (৭০) মারা যান। এ ঘটনায় শিশু মহিলাসহ আরো প্রায় ২০ জন যাত্রী আহত হয়। আহত যাত্রীদের অনেকেই এখনও হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এছাড়া ওই সড়কে ১৮ এপ্রিল সিএনজি-ম্যাক্সির মুখোমুখি সংঘর্ষে গুরুতর আহত বানিয়াচং শরীফখানী গ্রামের মোঃ সামসুদ্দিন আহমেদ জুয়েল দীর্ঘ ৭৬ দিন ঢাকার বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থেকে অবশেষে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করতে হয়েছে। তার পরিবার বিপূল অংকের টাকা খরচ করেও তাকে বাঁচাতে পারেননি। গত ৫ জুলাই বুধবার সড়কের দুটি সিএনজির দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ৭ জন আহত হয়। বানিয়াচঙ্গ থেকে বেপরোয়াভাবে সিএনজি অটোরিক্সা চালিয়ে আতুকুড়া এলাকায় আসলে সিএনজিটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সাথে ধাক্কা লাগে। এতে অ্যাডঃ জুনায়েদ আহমেদসহ বেশ কয়েকজন যাত্রী গুরুতর আহত হয়। এর মধ্যে জুনায়েদ আহমেদ বর্তমানে সিলেট এমএজি ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। একই দিন দুপুরে কালারডোবা এলাকায় বেপরোয়া সিএনজির সাথে মোটর সাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে বানিয়াচং আইডিয়েল কলেজের প্রভাষক আমিরুল ইসলামসহ বেশ ক’জন যাত্রী আহত হন। গত ৬ জুলাই বৃহস্পতিবার সিএনজি অটোরিক্সা উল্টে বানিয়াচং সদরের শরীফখানী গ্রামের মহিউদ্দিন কুটিসহ বেশ কয়েকজন যাত্রী গুরুতর আহত হন। বিগত ২০১৫ সালের শেষের দিকে হবিগঞ্জ-বানিয়াচং রাস্তার কালার ডোবা নামক স্থানে এক ভয়াবহ সিএনজি দুর্ঘটনায় তিনজন যাত্রীর মধ্যে ১জন ঘটনাস্থলেই মারা যান। আহত হন আরো ২জন যাত্রী। একজন যাত্রী ছিলেন ঢাকায় বসবাসকারী বানিয়াচংয়ের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব মোঃ শাহজাহানের ছোট ভাই। প্রায় দুই মাস দীর্ঘ এবং ব্যয় বহুল চিকিৎসার পর তিনি সুস্থ হলেও আজও সেই ভয়াবহ দুর্ঘটনার স্মৃতি ভুলতে পারেন নি। ২০১৬ সালে রতœা ব্রীজের অদূরে বেপরোয়াভাবে সিএনজি চালাতে গিয়ে অপর একটি গাড়ীর সাথে ধাক্কা লাগে সিএনজি উল্টে ঘটস্থলেই মারা যান ১জন মুক্তিযোদ্ধা ও বিএসডি মহিলা মাদ্রাসার ১ জন শিক্ষিকা। এত দুর্ঘটনা এত মৃত্যুর পরও থামানো যাচ্ছে না বেপরোয়া গতিতে গাড়ী চালানো। আর কত প্রাণ গেলে এর লাগাম টেনে ধরবে প্রশাসন। এমন প্রশ্ন এখন সর্বমহলে।
এসব দুর্ঘটনা রোধে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি’র (বিআরটিএ) কি করণীয় আছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে সহকারী পরিচালক মোঃ আবু নাঈম  বলেন, সিএনজি অটোরিক্সার সামনে ড্রাইভার ব্যতীত অন্য কোন যাত্রী পরিবহন করা মোটরযান আইনে সম্পূর্ন দণ্ডনীয় অপরাধ। প্রত্যেকটি রাস্তায় যান চলাচলের জন্য বিভিন্ন ধরণের নির্দেশনা দেয়া থাকে, অদক্ষ ড্রাইভার এসবের তোয়াক্কা না করে বেপরোয়া গতিতে নিজের মতো করে গাড়ী চালাতে গিয়ে প্রায়শই অনেক গাড়ী দুর্ঘটনায় পতিত হয়। তিনি আরো বলেন, এসব রোধ করতে হলে ড্রাইভিং লাইসেন্সসহ গাড়ীর বৈধ কাগগপত্র নিয়ে রাস্তায় গাড়ী চালাতে হবে। কোন অবস্থাতেই ফিটনেসবিহীন ও অবৈধ গাড়ী নিয়ে রাস্তায় চলাচল না করার জন্য তিনি মালিক শ্রমিকদের প্রতি অনুরোধ জানান।
বানিয়াচং-হবিগঞ্জ রোডে ফিটনেসবিহীন গাড়ীসহ অবৈধ চলাচলকারী গাড়ীর বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ বিআরটিএর পক্ষ থেকে ঘন ঘন অভিযান চালানো হবে বলেও তিনি জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com