মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ০২:১৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
৩ বছর পূর্তিতে “জনগণের মুখোমুখি হবিগঞ্জ পৌরকর্তৃপক্ষ” নাগরিকদের প্রশ্নের মধ্য দিয়ে উঠে আসে পৌরসভার বিভিন্ন কার্যক্রমের মূল্যায়ন

৩ বছর পূর্তিতে “জনগণের মুখোমুখি হবিগঞ্জ পৌরকর্তৃপক্ষ” নাগরিকদের প্রশ্নের মধ্য দিয়ে উঠে আসে পৌরসভার বিভিন্ন কার্যক্রমের মূল্যায়ন

বরুন সিকদার ॥ হবিগঞ্জ পৌরসভার বর্তমান পৌর পরিষদের ৩ বছর পূর্তিতে জনগণের মুখোমুখি হয়েছে পৌর কর্তৃপক্ষ। বিগত ৩ বছরের কর্মকান্ডের মূল্যায়ন ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরনের লক্ষ্যে কিবরিয়া পৌর মিলনায়তনে আয়োজন করা হয় “জনগণের মুখোমুখি পৌরকর্তৃপক্ষ” নামের এই অনুষ্ঠান।
শুরুতেই অমর একুশে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে সামনে রেখে দেশের অগণিত মহান ভাষা সৈনিকদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন সহ জেলার কৃতি সন্তান সাবেক এমপি মরহুম আবু লেইছ মোঃ মুবিন চৌধুরী, শিক্ষক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আহমেদ, বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব তরফদার মুহাম্মদ ইসমাইল সহ সকলের আত্মার শান্তি কামনা ও নিরবতা পালন করা হয়।
পৌর মেয়র বর্তমান পরিষদের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা সাফল্য ৩ বছরের নানা কর্মকান্ড সম্পর্কে মূল্যায়ন ও সূচনা বক্তব্য পাঠ করেন। প্রশ্নœ উত্তর পর্ব শেষে জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী মামুনসহ ঢাকা থেকে আগত ৩০ জন শিল্পীর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দর্শকদের ব্যাপক প্রশংসা কুড়ায়। অনুষ্ঠানটি হবিগঞ্জ স্যাটেলাইট টিভি নেটওয়ার্ক এয়ারলিংক এর মাধ্যমে সরাসরী সম্প্রচার করা হয়।
সকল প্রশ্নের তাৎক্ষনিক তথ্যভিত্তিক উত্তর দেন মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ। অনুষ্ঠানের প্রশ্ন উত্তর পর্বে আরো উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ পৌরসভার কাউন্সিলর পিয়ারা বেগম, সালমা আক্তার চৌধুুরী, সৈয়দা লাভলী সুলতানা, মোঃ জাহির উদ্দিন, দিলীপ দাস, মোহাম্মদ জুনায়েদ মিয়া, গৌতম কুমার রায়, শেখ নুর হোসেন, আব্দুল আউয়াল মজনু, মেঃ আলমগীর, মোঃ মাহবুবুল হক হেলাল ও পৌরসভার সচিব নুর আজম শরীফ, নির্বাহী প্রকৌশলী মধুসুদন দাস। অতিথি হিসেবে মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মোহাম্মদ নাহিজ, সাবেক সভাপতি মোঃ ফজলুর রহমান, স্থানীয় সরকার সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি মোঃ হারুনুর রশীদ চৌধুরী ও দৈনিক আজকের হবিগঞ্জের বার্তা বিভাগ ইনচার্জ আশরাফুল ইসলাম কোহিনুর।
পৌর মেয়র তার দেয়া বক্তব্যে বলেন, জনসেবা একটি মহৎ কাজ। আর জনসেবার মহান ব্রত নিয়েই আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। দেখতে দেখতে আজ বর্তমান পৌর পরিষদের ৩ বছর পূর্ণ হলো। পৌরকর প্রদানে সম্মানিত করদাতাগণকে উৎসাহিত করতে এবং কর প্রদান প্রক্রিয়া সহজীকরণের লক্ষ্যে আমরা বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আয়োজন করি ‘পৌরকর মেলা’ যা বর্তমানে একটি মডেল বলে বিবেচিত হচ্ছে। এছাড়া বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারবর্গকে সংবর্ধনা, মেধাবী শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবক ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে বৃত্তি প্রদান, হজ্ব প্রশিক্ষন, বৈশাখী মেলা, বইমেলা, বৃক্ষ রোপন, দরিদ্র বালকদের সুন্নাতে খৎনা, সমাজের বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গের সম্মানে আলাদাভাবে ইফতারের আয়োজন ইত্যাদি কাজগুলো চালিয়ে যাচ্ছি।
তিনি বলেন-গত বছর প্রথম বারের মতো আমরা আয়োজন করি গণবিবাহের। হবিগঞ্জ পৌর এলাকার ৮টি দরিদ্র পরিবারের মেয়েকে আমরা পৌরসভার মাধ্যমে বিয়ে দেই। এ বিয়েতে সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নেতৃস্থানীয় ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ সরকারি-বেসকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাগণ অংশ নেন। এ আয়োজনে আমরা যে সাড়া ও প্রশংসা পেয়েছি তাতে আমরা অত্যন্ত উদ্বুদ্ধ হয়েছি। আগামীতে আমরা আরও বড় পরিসরে এ ধরণের গণবিবাহ আয়োজন করবো ইনশাআল্লাহ।
পৌর নাগরিকদের পরামর্শক্রমে সিনিয়র সিটিজেন সেন্টার, পৌরসভা ভলান্টিয়ার সেন্টার, পৌর মেয়র পদক কার্যক্রম বিষয়গুলো নতুনভাবে অন্তর্ভূক্ত করেছি।
দীর্ঘদিন ধরে হবিগঞ্জ শহরের কিবরিয়া পৌর মিলনায়তনের পশ্চিমে পৌরসভার ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে। এছাড়া জালাল স্টেডিয়ামের উত্তর দিকসহ শহরের বিভিন্ন রাস্তার পাশে রাতের আধারে কেউ কেউ ময়লা আবর্জনা ফেলতেন। এ জন্য অনেকেই দুর্গন্ধের শিকার হয়ে আমার কাছে অভিযোগ করেছেন। শহরবাসীকে ময়লা-আবর্জনার দুর্গন্ধ থেকে মুক্তি দিতে এবং পরিচ্ছন্ন শহর উপহার দিতে শহরের বাইরে ময়লা-আবর্জনা ফেলার উদ্যোগ নেই। এরই অংশ হিসেবে পৌর পরিষদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক বানিয়াচঙ্গ উপজেলার আতুকুড়া মৌজার ১নং খাস খতিয়ানের ২.২০ একর অকৃষি পতিত জমি ভূমি মন্ত্রণালয়ের অনুমতিক্রমে সেলামীর মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে ক্রয় করি। ১৭ লাখ ৪৭ হাজার ৯৪৪ টাকার বিনিময়ে ক্রয় করা উক্ত জায়গাটিতে ডাম্পিং স্পট হিসেবে ময়লা-আবর্জনা ফেলা হবে। জায়গা ক্রয়ে রেজিস্ট্রিসহ আমাদের মোট খরচ হয়েছে ১৮ লাখ ৮৮ হাজার ৩৮৩ টাকা। পুরো টাকাই পৌরসভার নিজস্ব তহবিল থেকে ব্যয় করা হয়েছে। এ জায়গাটিতে সীমানা প্রাচীর নির্মাণের জন্য ৪৫ লাখ টাকার দরপত্র আহবান করে ঠিকাদার নিযুক্ত করা হয়েছে।
বক্তব্যে তিনি বলেন, প্রায় ৯১ লক্ষ টাকা ব্যয় করে ৩টি নলকূপ স্থাপন করে শহরে পানি সমস্যার সমাধান করা হয়েছে।
এছাড়া প্রায় ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে শ্মশানঘাট এলাকায় তৃতীয় লৌহ দূরীকরণ প্রকল্প চালু করার উদ্যোগ নিয়েছি। আগামী অর্থ বছরে এ প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে। এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে শহরে সম্মানিত গ্রাহকগণ আরো বেশি পরিমাণে পানি সরবরাহ পাবেন।
বিশুদ্ধ পানির চাহিদা পূরণের জন্য আমরা পৌর এলাকার বিভিন্ন মসজিদ, মন্দির, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সরকারি-বেসরকারি অফিসে, হাটবাজার ও স্টেডিয়ামসহ সর্বসাধারণের ব্যবহারের স্থানে ১০০টি গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com