বুধবার, ২৪ Jul ২০১৯, ০১:৪৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে ॥ ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে মামলা ॥ প্রতিবাদে হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হবিগঞ্জ সিভিল সার্জনের মৃত্যু মির্জাপুর থেকে প্রেমিক জুটি আটক ॥ কারাগারে প্রেরণ ১০ ইউপি চেয়ারম্যান উপস্থিত না হওয়ায় নবীগঞ্জ উপজেলা সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়নি বার্মিংহামে হবিগঞ্জ নাগরিক সমাজের সাথে মতবিনিময়কালে এমপি আবু জাহির ॥ দেশবিরোধী চক্রান্তকারীদের ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহবান মাধবপুরে রাষ্ট্রদূতের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় গ্রেফতার ১ নবীগঞ্জ ও বাহুবলে অসুস্থ রোগীদেরকে চিকিৎসা সহায়তা দিলেন এমপি মিলাদ গাজী চুনারুঘাটে নিখোঁজ প্রেমিক যুগল প্রেমিকের মা-সহ ৩ জন আটক নবীগঞ্জের দেবপাড়ায় নিহা ফ্যাশন উদ্বোধন করলেন এমপি মিলাদ গাজী বানিয়াচঙ্গে ২৮ মাস বেতন না পেয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন প্রধান শিক্ষক
চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন বিজিবি সদস্য সুমন

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন বিজিবি সদস্য সুমন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম সীমান্তে তিস্তা নদীতে চোরাকারবারিকে প্রতিরোধ করতে গিয়ে নিখোঁজ বিজিবির ল্যান্স নায়েক সুমন মিয়ার লাশ নিজ গ্রামে দাফন করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকাল ৮টায় নিজবাড়ী হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার আটঘরিয়া গ্রামে জানাজার নামাজ শেষে চিরনিদ্রায় শায়িত হন তিনি। জানাজায় বিজিবি সদস্য ছাড়াও হবিগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ আহমদুল হক, পইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈয়দ মইনুল হক আরিফ, গোপায়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আক্তার হোসেনসহ এলাকার শত শত মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে বৃহস্পতিবার রাত ১২ টার দিকে বিজির একটি দল লাশ নিয়ে তার গ্রামের বাড়ীতে পৌছলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। স্ত্রী, সৎ মা ও স্বজনসহ এলাকাবাসীর আর্তনাদে আকাশ বাতাস ভারী হয়ে উঠে।
বুধবার সকালে ভারতের অভ্যন্তরে তিস্তা নদীর কোচবিহার-১৩ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের তরুণা ক্যাম্পের সদস্যরা নিখোঁজ সুমন মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করেন। দুপুর ৩টার দিকে ভারতের সীমান্তরক্ষা বাহিনী বিএসএফের তিনবিঘা কোম্পানি কমান্ডার এসি বিনোদ রাজা লালমনিরহাট-১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের পাটগ্রাম কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার শেখ সুজাউল ইসলামের কাছে সুমন মিয়ার মরদেহ ভারতীয় দরুণা ক্যাম্পে হস্তান্তর করেন।
পরে স্পিড বোডে করে সুমন মিয়ার মরদেহ তি¯-া ব্যারাজে নিয়ে আসা হয়। পরে মরদেহের ময়না তদন্তের জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেই রাতে হিমঘরে রাখা হয় সুমন মিয়ার মরদেহ। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রাতে তার মরদেহ গ্রামের বাড়ীতে এসে পৌছে।
উল্লেখ্য, গত ২৬ জুন রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দহগ্রাম বিজিবি ক্যাম্পের হাবিলদার আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে একটি টহল দল দহগ্রাম সীমান্তের ৬ নম্বর মেইন পিলারের ৩ নম্বর সাব পিলার এলাকায় তিস্তা নদীতে আবুলের চর যান। ল্যান্স নায়েক টুটুল মিয়া, ল্যান্স নায়েক সুমন মিয়া ও সিপাহী উ”চ প্র” মারমা ওই টহল টিমে ছিলেন। আবুলের চর এলাকায় তিস্তা নদীর কিনারে গরু চোরাকারবারিদের সঙ্গে গরু টানাটানির এক পর্যায়ে টুটুল মিয়াকে নদীতে নামানো হয়। এক পর্যায়ে চোরাকারবারিরা গরুর রশি ছেড়ে দিলে দুটি গরুসহ কোনো রকমে চরে ফিরে আসেন টুটুল মিয়া। এদিকে টুটুল মিয়া তলিয়ে যাচ্ছে ভেবে তাকে উদ্ধারের জন্য রাইফেল ও গোলাবারুদ উচ্চ  প্র“ মারমার হাতে জমা দিয়ে সুমন তিস্তা নদীতে নামেন। পরে তিনি সেখানেই নিখোঁজ হন।
নিহত সুমন ২০০৫ সালের ডিসেম্বর মাসে বিজিবিতে যোগদান করে এবং ২০০৮ সালে চুনারুঘাট উপজেলার গাতাবলা গ্রামের প্রবাসী আবুল ফজল মিয়ার মেয়ে জেসমিন আক্তারকে বিয়ে করেন। এরপর থেকে তার দাম্পত্য জীবন সুখেই ছিল।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com