বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:২৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ পবিত্র লাইলাতুল কদর

আজ পবিত্র লাইলাতুল কদর

এবিএম আল-আমীন চৌধুরী ॥ আজ দিবাগত রাতে পবিত্র লাইলাতুল কদর। হযরত যির ইব্ন হুবাইশ রাহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেন, আমি হযরত উবাই ইব্ন কাব রাদিয়ালল্লাহু আনহুকে জিজ্ঞাসা করে বলি, তোমার ভাই আব্দুল্লাহ ইব্ন মাসউদ বলেছেন, যে ব্যক্তি সারা বছর রাতে কিয়াম করবে সে লাইলাতুল কদর লাভ করবে। তিনি বললেন, আল্লাহ তার ওপর রহম করুন, তার উদ্দেশ্য মানুষ যেন অলস না হয়। অন্যথায় তিনি ভাল করে জানেন যে, লাইলাতুল কদর রামাদ্বানে। বিশেষ করে শেষ দশকে। বরং সাতাশে। অতঃপর তিনি শপথ করে বলেন, এতে সন্দেহ নেই লাইলাতুল কদর সাতাশে। আমি বললাম, আপনি তা কিভাবে বলেন, হে আবু আব্দুর রহমান? তিনি বললেন, নিদর্শন দেখে অথবা রাসূলের বাতলানো আলামত দেখে। সেদিন সূর্য উদিত হবে যে, তার কিরণ থাকবে না।” (মুসলিম)
হযরত আব্দুল্লাহ ইব্ন আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু? বলেন, এক ব্যক্তি নবী করীম সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট এসে জিজ্ঞাসা করে, হে আল্লাহর নবী! আমি খুব বৃদ্ধ ও অসুস্থ লোক, আমার দ্বারা দাঁড়িয়ে থাকা খুব কঠিন। অতএব আমাকে এমন এক রাতের কথা বলুন, যেন সে রাতে আল্লাহ আমাকে লাইলাতুল কদর দান করেন। তিনি বললেন, তোমার উচিত সাতাশ আঁকড়ে ধরা।” (আহমদ)।
হযরত উবাই ইবেনে কাব রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেছেন, “আল্লাহর শপথ! হযরত আব্দুল্লাহ ইব্ন মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু নিশ্চিত জানে যে, লাইলাতুল কদর মাহে রামাদ্বানে এবং তা সাতাশে। কিন্তু তিনি তোমাদেরকে সংবাদ দিতে চাননি, যেন তোমরা অলস বসে না থাক।” (তিরমিযি)।
হযরত মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু? থেকে বর্ণিত, নবী করীম সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “লাইলাতুল কদর হচ্ছে সাতাশের রাত।” (আবু দাউদ)।
হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি জিজ্ঞাসা করলাম, “হে আল্লাহর রাসূল, আপনি কি লক্ষ্য করেছেন, আমি যদি লাইলাতুল কদর জানতে পারি, আমি তাতে কি বলব? তিনি বললেন, তুমি বলবে, “আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুউন কারীমুন, তুহিব্বুল আফওয়া, ফা’ফু আন্নী।” অর্থাৎ- হে আল্লাহ! তুমি মহা সম্মানিত অতিশয় মাশীল, ক্ষমা করা পছন্দ কর, অতএব আমাকে ক্ষমা করে দাও।” (তিরমিযি, ইবনে মাজাহ)।
আমাদের মাযহাবের ইমাম আবু হানিফা নুমান বিন সাবিত রাহমাতুল্লাহি আলাইহির মতে, হাদিস শরীফের ভাষ্য অনুযায়ী লাইলাতুল কদর রামাদ্বানুল মোবারকে এতে সন্দেহ নেই। আর কুরআনুল কারীমে লাইলাতুল কদর নামটি মাত্র তিন বার এসেছে। এতে নয়টি করে হরফ রয়েছে। এ হিসাবে তিন বারে সর্বমোট সাতাশটি হরফ হয়। অতএব লাইলাতুল কদর সাতাশে রামাদ্বান হওয়াটাই অধিক যুক্তিযুক্ত।
এ সকল আলোচনা থেকে একথাই প্রতীয়মাণ হয় যে, আমাদের পূর্বসূরিগণ কল্যাণের প্রতি অধিক আগ্রহী ছিলেন। তারা ইবাদতে মগ্ন থাকার জন্য ফযিলতপূর্ণ সময় ও মুহুর্ত অনুসন্ধান করতেন। মুসলিমদের উচিত ফযিলতপূর্ণ মৌসুমের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করা। যেমন লাইলাতুল কদর অন্বেষণে রামাদ্বানের শেষ দশক। যেন অল্প আমলে তার অধিক কল্যাণ অর্জন হয়।
উম্মুল মুমেনিন আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহার লাইলাতুল কদর অন্বেষণ, তাতে কিয়াম ও দোআ করার গভীর আগ্রহ মাধ্যমে লাইলাতুল কদরের ফযিলত প্রমাণিত হয়। লাইলাতুল কদরের রাতে বিনীতপূর্ন দোআ-দরুদ অত্যন্ত ফযিলতপূর্ণ এবং তা কবুলের সম্ভাবনা রাখে। এ রাতে ব্যাপক অর্থপূর্ণ শব্দের মাধ্যমে দোআ করা মোস্তাহাব।
রাসূলুল্লাহ সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাতলানো এ দোআ ব্যাপক অর্থপূর্ণ ও সবচেয়ে উপকারী। এ দোআতে দুনিয়া ও আখিরাতের কল্যাণ নিহিত রয়েছে। কারণ আল্লাহ যখন দুনিয়াতে কোন বান্দাকে ক্ষমা করবেন, তিনি তাঁর থেকে শাস্তি দূরীভূত করবেন। তার ওপর নিয়ামতরাজি বর্ষণ করবেন। আর যখন তিনি কোন বান্দাকে আখিরাতে ক্ষমা করবেন, তিনি তাকে আগুন থেকে মুক্তি দেবেন ও জান্নাতে প্রবেশ করাবেন।
এ হাদিসে মহান আল্লাহর ভালোবাসার গুণটি প্রমাণিত হয়। যেভাবে তার জন্য ভালোবাসা গুণটি উপযোগী। তিনি ক্ষমা করা ভালোবাসেন। আর আশা করা যায় তিনি আমাদেরকে এ রাতের ইবাদতের মাধ্যমে ক্ষমা করবেন। আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে লাইলাতুল কদর নসিব করুন। এর উসিলায় আমাদের সকল গুনাহ ক্ষমা করুন। আমীন।
লেখকঃ
প্রভাষক, ইটাখোলা সিনিয়র আলিম মাদরাসা, মাধবপুর, হবিগঞ্জ।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com