সংবাদ শিরোনাম : 

 **  বাহুবলে পল্লী বিদ্যুতের নির্মাণাধীন সাব-স্টেশনে দুর্বৃত্তের হানা ॥ ৫ শ্রমিককে মারধর করে সর্বস্ব লুট **  প্রি-পেমেন্ট মিটার কার্যক্রমের উদ্বোধনকালে এমপি আবু জাহির ॥ সরকারের ডিজিটাল কার্যক্রমের সুবিধা ভোগ করছে সকল শ্রেণির মানুষ **  আজ মহান বিজয় দিবস ॥ জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ **  জালালাবাদ এসোসিয়েশন ঢাকা ও নবীগঞ্জ কল্যাণ সমিতি সিলেটের যৌথ উদ্যোগে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প সম্পন্ন **  হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে অশোক মাধব রায় ॥ শায়েস্তাগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ পূর্তি উৎসবের প্রস্তুতি চলছে **  বেতন স্কেল নির্ধারণের দাবিতে প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন ॥ ২২ ডিসেম্বরের মধ্যে দাবী না মানলে ২৩ ডিসেম্বরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আমরণ অনশন কর্মসূচির ঘোষণা **  নবীগঞ্জে নিঃসন্তান দম্পতিকে বসতবাড়ি থেকে বিতাড়ন ॥ প্রাণনাশের হুমকি **  বাহুবলে বিদ্যুতের খুঁটির নিচে চাপা পড়ে শিশু নিহত ॥ ৫ শ্রমিককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ **  আতাউর রহমান সেলিমের মায়ের আত্মার মাগফিরাত কামনায় মিলাদ **  জেলা যুবলীগের সভাপতির মায়ের মৃত্যুতে বানিয়াচং যুবলীগের দোয়া মাহফিল **  পিপি সিরাজুল হক চৌধুরীর মায়ের ইন্তেকাল ॥ এমপি আবু জাহিরের শোক **  মাদ্রাজে চিকিৎসা শেষে বাড়িতে ফিরেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা রবীন্দ্র চন্দ্র দাশ **  মাধবপুরে ভারত থেকে চোরাই পথে আনা প্যান্ট পিস উদ্ধার

বাঁধ ভাঙার গুজবে শহরবাসীর আতঙ্ক ॥ পানি বৃদ্ধি অব্যাহত ॥ বাঁধ ভেঙ্গে দেওয়ার আশংকায় লাটিসোটা হাতে পাহারা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পানি আইছে, ভাইস্যা গেছে, খোয়াই নদীর বাঁধ ভেঙে গেছে, শহর তলিয়ে যাবে। এমন গুজবে শহরবাসীকে আতঙ্কে কাটাতে হয়েছে কয়েক ঘণ্টা। কেউ বলছেন গরুর বাজার, কেউ বলছেন কামড়াপুর আবার কেউ-বা বলছেন তেতৈয়া এলাকা দিয়ে খোয়াই নদীর বাঁধ ভেঙ্গে গেছে।
এদিকে গতকাল রাত ১২ টা পর্যন্ত খোয়াই নদীর পানি বিপদসিমার ২৪০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। যে কোন সময় বাঁধ ভেঙ্গে যেতে পারে এ আশংকায় শহরের চার পাশে অবস্থিত খোয়াই নদীর বাঁধে শত শত মানুষ নির্ঘুম রাত কাটায়। বাঁধ ভেঙ্গে দিতে পারে এ আশংকায় লাটিসোটা নিয়ে মানুষকে বাঁধের উপর অবস্থান নিতে দেখা যায়। রাত ২ টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।
গতকাল সোমবার রাত প্রায় সাড়ে ৮টার দিকে হঠাৎ শহরে গুজব রটে যে, শহরের কামড়াপুর এলাকায় খোয়াই নদীর বাঁধ ভেঙ্গে গেছে। পানি আসছে ধেয়ে। মূহুর্তেই গোটা শহরে এ গুজব ছড়িয়ে পড়ে। শুরু হয় দৌড়াদৌড়ি। বাসাবাড়ি থেকে নারী-পুরুষ ও শিশুরা বাইরে বেরিয়ে আসে। অনেকেই বাসাবাড়ি থেকে তল্পিতল্পা গুটাতে শুরু করেন। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেন। সমূহ বিপদ থেকে রক্ষা পেতে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন পুরো শহরবাসী। শহরের বিভিন্ন মসজিদে নামাজরত কিছু মুসল্লি নামাজ ভেঙ্গে বেরিয়ে আসেন। পরে অবশ্য নামাজ আদায় করা হয়। এখবর ছড়িয়ে পড়ে দেশের বিভিন্ন স্থানসহ বিদেশেও। অনেকেই টেলিফোনে আত্মীয়-স্বজনদের সাথে যোগাযোগ করে খোঁজখবর নেন।
শেষ পর্যন্ত সরজমিনে কামড়াপুর মোকামবাড়ি এলাকায় গিয়ে শহর রক্ষা বাঁধের একটি স্থানে ফাটল দেখা যায়। ওই স্থান দিয়ে পানি ছুই ছুই করে আসছে। স্থানীয় লোকজনসহ প্রশাসন তাৎক্ষণিকভাবে মাটি ও বালির বস্তা দিয়ে ফাটল স্থানে ভরাট শুরু করেন। সেখানে শত শত মানুষকে অবস্থান নিতে দেখা যায়।  এদিকে টানা ৩ দিনের ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে খোয়াই নদীর পানি সর্বোচ্চ বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। গতকাল সোমবার রাত ১২ টায় নদীর পানি বিপদ সীমার ২৪০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। এতে করে খোয়াই নদীর বাঁধের মশাজান, তেঘরিয়া, শহরের পুরান বাজার, কামড়াপুর, গরুর বাজারসহ শায়েস্তাগঞ্জ থেকে হবিগঞ্জ গরুর বাজার পর্যন্ত প্রায় ২০ স্থান ঝুঁকিপূর্ণ রয়েছে। কিবরিয়া ব্রিজসহ ৩টি ব্রিজে পানি ছুঁই ছুঁই করছে। বিকেল থেকে জেলা প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে শহরবাসীকে সতর্ক থাকার জন্য মাইকিং করা হয়। রাত ১২ টায় এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত পানি বৃদ্ধি অব্যাহত ছিল। তবে কোন এলাকায় ভাঙ্গনের খবর পাওয়া যায়নি।

Share This: