বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ১০:৫০ অপরাহ্ন

রোযা-তারাবির নামায

রোযা-তারাবির নামায

মাহে রামাদ্বানে মহান আল্লাহ তায়ালা বান্দার প্রতি দুটি বিধান সৌজন্যস্বরূপ প্রদান করেছেন। একটি হচ্ছে রোযা এবং অপরটি হচ্ছে তারাবির নামায। রামাদ্বান মাসের ইশার নামাযের ফরয ও সুন্নাতের পর বেতর নামাজের পূর্বে ২০ রাকাত নামায পড়তে হয়। এটাই সালাতুত তারাবি বা তারাবির নামায। রোযা রাখা ফরয আর তারাবির নামাজ সুন্নাতে মুয়াক্কাদা। স্তর ভেদে উভয় ইবাদতই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও অপরিহার্য পালনীয়। হাদিস শরীফে এসেছে, রাসূল পাক সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ ফরমান, আল্লাহ তায়ালা তোমাদের উপর রোযা ফরয করেছেন, আর আমি তারাবির নামায পড়াকে সুন্নাত করেছি। (বায়হাকী) অন্য হাদিসে এসেছে, যে ব্যক্তি আল্লাহর উপর পূর্ণ বিশ্বাস রেখে শুধুমাত্র সাওয়াবের আশায় তারাবির নামায আদায় করে, তার পূর্বের সকল ছগীরা গুনাহ মাফ হয়ে যাবে। (বায়হাকী)
হযরত আবুযর রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, “আমরা রাসূলুল্লাহ সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে রামাদ্বানের রোযা পালন করলাম। তিনি মাসের কোন অংশে আমাদের নিয়ে সালাত আদায় করেননি, যখন সাত দিন বাকি, তিনি আমাদের নিয়ে দাঁড়ালেন, রাতের এক তৃতীয়াংশ চলে গেল। যখন ষষ্ঠ দিন বাকি, তিনি আমাদের সাথে দাঁড়ালেন না। যখন পাঁচ দিন বাকি, তিনি আমাদের নিয়ে দাঁড়ালেন রাতের অর্ধেক চলে গেল। আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসূল সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, যদি রাতের বাকি অংশ আমাদের নিয়ে সালাত আদায় করতেন! তিনি বললেন, “ব্যক্তি যখন ইমামের প্রস্তান পর্যন্ত তার সাথে সালাত আদায় করে, তার জন্য পূর্ণ রাতের সওয়াব লেখা হয়”। তিনি বললেন, যখন চতুর্থ রাত বাকি, তিনি দাঁড়ালেন না। যখন তৃতীয় রাত বাকি, তিনি নিজ পরিবার, নারী ও লোকদের জমা করে আমাদের সাথে দাঁড়ালেন, অবশেষে আমরা আশঙ্কা করলাম, আমাদের থেকে ফালাহ না ছুটে যায়। তিনি বলেন, আমি জিজ্ঞাসা করলাম ফালাহ কি? তিনি বললেন, সেহরি। অতঃপর মাসের অবশিষ্ট দিনে তিনি আমাদের সাথে দাঁড়াননি”। (আবু দাউদ)
আমিরুল মুমিনীন হযরত উমর ইবনুল খাত্তাব রাদিয়াল্লাহু আনহুর খেলাফত কালের প্রথম বছর পর্যন্ত সাহাবায়ে কেরাম বিক্ষিপ্তভাবে বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে তারাবির নামায আদায় করতেন। তিনি বিভিন্ন জামাতে বিভক্ত হওয়ায় সৃষ্ট বিশৃংখলা দূর করে নয়নাভরাম একটি সুশৃংখল বৃহৎ জামাতে সবাইকে সমবেত করেন। তিনিই একজনমাত্র ইমামের পেছনে সকলকে একত্রিত করে ২০ রাকাত নামাযে পবিত্র কুরআনুল কারিম খতমের সুন্নাত প্রবর্তন করেন। হযরত উমর রাদিয়াল্লাহু আনহুর এ আমালকে স্বাগত জানিয়ে সকল সাহাবায়ে কেরাম রাদিয়াল্লাহু আনহুম আন্দচিত্তে তার উপর আমল শুরু করেন। তারবির নামায ২০ রাকাতের উপর সাহাবায়ে কেরামের ঐক্যমত প্রতিষ্ঠিত হয়। তেমনিভাবে ঐক্যমত প্রতিষ্ঠিত হয় তারাবির নামাযে কুরআন খতম করার বিষয়টিও। এখন যারা তারাবির নামাযের রাকাত সংখ্যার কম-বেশী করতে চায় তারা নিজেদেরকে সাহাবায়ে কেরামের চাইতে বেশী বুঝদার মনে করার দুঃসাহস দেখাচ্ছে নিঃসন্দেহে বলা যায়। আল্লাহ আমাদেরকে এদের ফেতনা থেকে হেফাযত করুন।
এ সকল আলোচনার উপর ভিত্তি করে বলা যায় যে, সালাতে তারাবির ২০ রাকাত আদায় করা সুন্নত। নবী সালল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সূচনায় ফরয হওয়ার শঙ্কায় তা মাঝে মধ্যে ত্যাগ করতেন। যে ব্যক্তি ইমামের সাথে তারাবির নামায আদায় করে। ইমামের প্রস্তানের পূর্ব পর্যন্ত, তার জন্য পূর্ণ রাতের কিয়াম তথা নামায আদায়ের সাওয়াব লেখা হবে। সুতরাং মুসলিমদের উচিত এ কল্যাণে অলসতা না করে রামাদ্বানের প্রত্যেক রাতে জামাতের সাথে তারাবির নামায আদায় করা। ইমাম আহমদ রাহমাতল্লাহি আলাইহিকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল “মাহে রামাদ্বানে কোন ব্যক্তির জমাতের সাথে নামায আপনার পছন্দ, না একাকী নামায। তিনি বললেন, “জামাতের সাথে সালাত আদায় করবে ও সুন্নত জীবিত করবে।” আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে পুরো রামাদ্বান জামাতের সাথে তারাবির নামায আদায়ের তৌফিক দান করুন। আমীন!
আজকের দোয়া- “আল্লাহুম্মা লা তুআখিযনী ফিহি বিল আসারাতি ওয়া আকিলনী ফিহি মিনাল খাতাইয়া ওয়া হাফাওয়াতি ওয়া লা-তাজআলনী গারাদান লিল বালায়ি ওয়াল আফাতি বি ইয্যাতিকা ইয়া ইয্যাল মুসলিমীন।”
-হে আল্লাহ! আজকের এ দিনে আমার অপরাধের জন্য পাকড়াও করো না। আমার ভুল ত্র“টি কমিয়ে দাও। তোমার মর্যাদা ও পরাক্রমশীলতার দোহাই দিয়ে বলছি, এ দিনে আমাকে বালা মুছিবত ও বিপদাপদের তীরের লক্ষ্য বস্তুতে পরিণত করো না। হে মুসলমানদের ইয্যত দানকারী।”
লেখকঃ
প্রভাষক, ইটাখোলা সিনিয়র আলিম মাদরাসা, হবিগঞ্জ।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com