শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ০২:৩৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতীয় নাগরিকের পিটুনীতে বাংলাদেশী খুন ॥ লাশের অপেক্ষায় স্বজনরা বানিয়াচংয়ের বিভিন্ন বাজারে সেনাবাহিনীর জনসচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শ্রীমঙ্গলে ৬৭ টি মামলায় ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা নবীগঞ্জে সরকারের অর্থ সহায়তার তালিকায় নারী কাউন্সিলরের পরিবারের ৬ সদস্যের নাম শচীন্দ্র লাল সরকারের সমাধীতে জেলা সিপিবি, উদীচী, কিবরিয়া ফাউন্ডেশন, সচেতন নাগরিক কমিটি ও মাতৃছায়া কেজি এন্ড হাইস্কুলের পুষ্পস্তবক অর্পন দৈনিক খোয়াই পত্রিকার সার্কুলেশন ম্যানেজার সাইফুলের পিতার ইন্তেকাল নবীগঞ্জে ভাতিজার হাতে চাচা খুন শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর আব্দুল আহাদের মৃত্যু বানিয়াচঙ্গের হাওর থেকে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার হবিগঞ্জে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১
দ্রুত ইফতার করার ফযিলত

দ্রুত ইফতার করার ফযিলত

এবিএম আল-আমীন চৌধুরী
মহান আল্লাহ তাআলা পবিত্র কুরআনুল কারীমে এরশাদ করেন, “অতঃপর রাত পর্যন্ত রোযা পূর্ণ কর”। (সূরা বাকারা, আয়াত-১৮৭) “বল, যদি তোমরা আল্লাহকে ভালবাস, তাহলে আমার অনুসরণ কর, আল্লাহ তোমাদেরকে ভালবাসবেন এবং তোমাদের পাপসমূহ ক্ষমা করে দেবেন। আর আল্লাহ অত্যন্ত ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।” (সূরা বাকারা, আয়াত-৩১) হযরত সাহাল ইব্ন সাদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেছেন, “লোকেরা কল্যাণ থেকে মাহরুম হবে না, যতণ তারা দ্রুত ইফতার করবে”। (বুখারী ও মুসলিম) ইব্ন মাজার এক বর্ণনায় আছে: রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “লোকেরা কল্যাণে অবস্থান করবে, যাবত তারা দ্রুত ইফতার করবে। তোমরা দ্রুত ইফতার কর, কারণ ইহুদিরা বিলম্ব করে”। ইব্ন হিব্বান ও ইব্ন খুযাইমার বর্ণনায় আছে, “এ দ্বীন বিজয়ী থাকবে, যতদিন মানুষেরা দ্রুত ইফতার করবে, নিশ্চয় ইহুদি ও নাসারারা বিলম্ব করে”।  অপর এক বর্ণনায় আছে, “আমার উম্মতেরা সুন্নতের ওপর প্রতিষ্ঠিত থাকবে, যতক্ষণ তারা ইফতারের জন্য নত্রের অপেক্ষা না করবে”। (মুতাদরাকে হাকেম)
হযরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু? থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন: “ইফতার না করে কখনো নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে মাগরিবের সালাত আদায় করতে দেখিনি, তা একঢোক পানি দ্বারাই হোক”। (বায়হাকী, আবু ইয়ালা) হযরত আমর ইব্ন মায়মুন আওদি রহ. বলেছেন: “নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সাহাবিগণ সবচেয়ে দ্রুত ইফতার করতেন ও সবচেয়ে বিলম্বে সেহরি খেতেন”। (বায়হাকী) হযরত আবুল আতিয়াহ হামদানি রহ. বলেন আমি ও মাসরুক আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহার নিকট গিয়ে জিজ্ঞাসা করি, হে উম্মুল মুমেনিন! রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের দুজন সাহাবি, একজন দ্রুত ইফতার ও দ্রুত সালাত আদায় করেন, অপরজন দেরিতে ইফতার ও দেরিতে সালাত আদায় করেন। তিনি বললেন, কে দ্রুত ইফতার করে ও দ্রুত সালাত আদায় কে  তিনি বলেন, আমরা বললাম, আব্দল্লাহ অর্থাৎ আব্দুল্লাহ ইব্ন মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু। তিনি বললেন: নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরূপ করতেন।” (মুসলিম)
নিজ চোখে দেখে, অথবা নির্ভরযোগ্য সংবাদ শুনে অথবা প্রবল ধারণা হয় যে, সূর্য ডুবেছে, তাহলে দ্রুত ইফতার করা মোস্তাহাব। হাদিস তাই প্রমাণ করে, সাহাবিদের আদর্শ এরূপ ছিল। দ্রুত ইফতার যেহেতু বরকতময়, তাই বিলম্বে ইফতার বরকতহীন। রামাদ্বনুল মোবারকে সকল কাজে আন্তরিকতার সাথে বেশী বেশী করে মহান আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামীনের ইবাদত করবো। সাথে সাথে রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নির্দেশিত পথের অনুসরণ করবো। দ্রুততার সাথে ইফতার করার অর্থ সূর্য ডোবার পূর্বেই ইফতার করা নয়। দ্রুত ইফতার করার অর্থ হচ্ছে সূর্য ডোবার পর দেরী না করা। কারণ অন্যান্য আহলে কিতাবিরা নত্র বিকশিত হওয়ার অপো করে। আর এ উম্মতের একটি কল্যাণ হচ্ছে তারা কিতাবি তথা ইহুদি ও নাসারাদের বিপরীতে দ্রুত ইফতার করে। কিতাবিদের বিরোধিতা? আমাদের দ্বীনের এক গুরুত্বপূর্ণ মূলনীতি। এটা এ উম্মতের বড় বৈশিষ্ট্য ও সকল উম্মতের ওপর তার শ্রেষ্ঠত্বের প্রমাণ। সূর্যাস্তের পর ইফতার বিলম্ব করা সুন্নতে নববী ও সাহাবায়ে কেরামের আমলের বিপরীত বিদআত সৃষ্টির আলামত।
যে কোন ইবাদতের ক্ষেত্রেই নির্দিষ্ট সময়ের পাবন্দ হলে, গোঁড়ামি, দ্বীন থেকে বিচ্যুতি ও শয়তানি প্রবঞ্চনা থেকে মুক্ত থাকা যায়। নিশ্চিত সূর্যাস্তের পর দ্রুত ইফতার না করা গোঁড়ামি এবং শয়তানি প্রবঞ্চনা ছাড়া কিছুই নয়। এ সকল হাদিসই প্রমাণ করে লাগাতার রোযা রাখা মাকরুহ। মাগরিবের নামাযের পূর্বেই ইফতার করা জরুরী। এছাড়া সুন্নতের অনুসরণ করা ও তার বিরোধিতা থেকে বিরত থাকা সকল মুসলমানদের জন্যই জরুরী। সুন্নত ত্যাগ করাতে কোন কল্যাণ নেই। বরং কর্মে ফ্যাসাদ ও বিঘœতার সৃষ্টি হয়। আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে দ্বীনের সঠিক বুঝ দান করুন।
আজকের সেহরীতে আমরা এ মাসনূন দোয়া পড়ি- “আল্লাহুম্মাজ্আলনী ফিহি নাসিবাম মিন রাহমাতিকাল্ ওয়াসিয়াতি, ওয়াহদিনী ফিহি লিবারাহীনিকাস্ সাতিআতি ওয়া খুয্ বিনাসিয়াতী ইলা মারদা-তিকাল্ জামিয়াতি, বি রাহমাতিকা ইয়া আমালাল মুশ্তাকীন।”
-হে আল্লাহ! আজকের দিনে তোমার অপরিসীম রহমত থেকে আমকেও দান করো। তোমার জাজ্বল্যমান প্রমাণসমূহের দিকে পরিচালিত করো। হে আগ্রহীদের লক্ষ্যস্থল; তোমার মহব্বত ও ভালবাসার দোহাই দিয়ে বলছি, আমাকে তোমার সর্বোচ্চ রেজামন্দির দিকে টেনে নিয়ে যাও।-আমিন

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com