বুধবার, ১৭ Jul ২০১৯, ১২:২৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে ১৯ মাদক মামলার আসামী আকবর কারাগারে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অফিসে পিস্তল টেকিয়ে মোটর সাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনায় মামলা আদালতেও নিরাপত্তা জোরদার নবীগঞ্জে বন্যাাশ্রয়কেন্দ্রসহ ১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্লাবিত বন্ধ ঘোষণা, ত্রাণ বিতরণ বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শনে নবীগঞ্জে আসছেন দুই মন্ত্রী ক্যান্সার আক্রান্তদের মাঝে চিকিৎসা সহায়তার চেক বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির পৌর কর্মকর্তাদের অবস্থানের কারণে নাগরিক সেবা বন্ধ নবীগঞ্জে ছাত্রদল নেতা রায়েছ চৌধুরীরমুক্তির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল নবীগঞ্জে খালিক মঞ্জিলের স্বত্ত্বাধিকারীবেলাল চৌধুরীকে বিদায় সংবর্ধনা বানিয়াচং থেকে চোরাই মোটরসাইকেল সহ যুবক আটক
লাখাইয়ে’র ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী গিয়াস হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেফতারের দাবি

লাখাইয়ে’র ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী গিয়াস হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেফতারের দাবি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ লাখাইর সিংহগ্রামে ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন হত্যা মামলার নেই কোন অগ্রগতি। হত্যার ২ মাস অতিবাহিত হলেও কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এ নিয়ে চরম হতাশায় ভুগছেন নিহতের পরিবার।
নিহতের স্বজনরা আশংকা করছেন আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ায় পুলিশকে ম্যানেজ করে হত্যা মামলাটি ভিন্ন খাতে নেয়ার চেষ্ঠা চালাচ্ছে। স্বজনরা আসামীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে ন্যায় বিচার নিশ্চিতের জন্য পুলিশের উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
তবে পুলিশ জানিয়েছেন মামলাটি অগ্রগতি হচ্ছে। মেডিকেল রিপোর্ট হাতে এলে চার্জশীট দিয়ে দেয়া হবে।
নিহতের স্বজন ও মামলা সূত্র জানা যায়, গত ২০ মার্চ লাখাই উপজেলার সিংহগ্রামের মারাজ মিয়ার পুত্র নিহত গিয়াস উদ্দিনের সাথে সম্পত্তি ভাগ ভাগবাটোয়ারা নিয়ে তার চাচা এনামুলক হক (লগুজ মোহরী), চাচাত ভাই বুরহান উদ্দিন ও শরীফ উদ্দিন গংদের সাথে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। এ বিরোধের জের ধরে গত ২০ মার্চ বিকেলে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী তার চাচা ও চাচাত ভাইয়েরা গিয়াস উদ্দিনের উপর দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় এবং তার উপর উপর্যুপরি আঘাত করে।
এতে ঘটনাস্থলে গিয়াস উদ্দিনের মৃত্যু হয়। পরে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে তার লাশ নিয়ে আসলে কর্মরত চিকিৎসক মৃত্যু নিশ্চিত করেন। হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের মর্গে নিহত গিয়াস উদ্দিনের লাশের ময়না তদন্ত শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। ঘটনার পর নিহতের পিতা মারাজ মিয়া বাদী হয়ে এনামুল হক (লগুজ মোহরী), তার ছেলে বুরহান উদ্দিন, শরীফ উদ্দিন ও তার স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগমকে আসামী করে লাখাই থানায় একটি হত্যা মামলার দায়ের করেন।
নিহতের স্ত্রী ইয়াছমিন আক্তার জানান, তার স্বামী হত্যার ২ মাস অতিবাহিত হলেও মামলার কোন অগ্রগতি নেই।
পুলিশ ঘটনার দিন এনামুল হকের স্ত্রী নুরুন্নাহারকে গ্রেফতার করলেও সে আদালতে ভুয়া অসুস্থতার সনদ দেখিয়ে জামিন লাভ করে। কিন্তু অদ্যবদি মূল ঘাতক এনামুল হক, তার ছেলে বুরহান উদ্দিন ও শরীফ উদ্দিনকে গ্রেফতার করতে পারছেনা পুলিশ। তিনি বলেন লোক মুখে জানতে পেরেছি, তারা লাখাইয়ে অবস্থান করছে। তিনি আশংকা করছেন আসামী প্রভাবশালী হওয়ায় তারা মামলা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য সমাজের উচ্চ পর্যায়ে যোগাযোগ করে মামলাটি ভিন্ন খাতে নেয়ার জন্য চেষ্ঠা চালাচ্ছে।
তিনি বলেন, আমার স্বামী মৃত্যুর পর থেকে মা, বাবা ও ভাইয়ের সহযোগীতায় ২ সন্তান নিয়ে কোন রকম ভাবে বেঁচে আছি। আমি আমার স্বামীর হত্যা বিচার চাই এবং আসামীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও মামলার চার্জশীট প্রদানের জন্য পুলিশ সুপারের কাছে দাবি জানাচ্ছি।
এ ব্যাপারে লাখাই থানার ওসি জানান, মামলাটি তদন্ত কাজ শেষ হয়েছে। মেডিকেল রিপোর্ট হাতে ফেলে পূর্ণাঙ্গ চার্জশীট দিয়ে দেবো। আসামীদের গ্রেফতারের জন্য আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com