মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৫৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে বহু কাঙ্খিত পুরোনো খোয়াই নদীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু শারদীয় দুর্গাপুজাকালে মন্ডপগুলোতে ডিজে বন্ধ থাকবে-এসপি মোহাম্মদ উল্লাহ কয়েন বিভ্রাটে জেলাবাসী বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিধি থাকলেও প্রয়োগ নেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জাতীসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছেন হবিগঞ্জ চেম্বার প্রেসিডেন্ট মোতাচ্ছিরুল হবিগঞ্জ পৌর যুবলীগের আহবায়ক কমিটি গঠন নবীগঞ্জে ঢাকাইয়া নারীসহ আটক ৪ বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে নবীগঞ্জে পোষ্টার লাগলেন মেয়র ছাবির চৌধুরী বাহুবলে সিএনজিকে জরিমানা করায় শ্রমিকদের মহাসড়ক অবরোধ বিকেজিসি স্কুলে রচনা প্রতিযোগিতায় পুলিশ সুপার ॥ মোবাইলের অপব্যবহারে সামাজিক বন্ধন নষ্ট হচ্ছে নবীগঞ্জে সর্বদলীয় উলামা পরিষদের জরুরী সভা
উমেদনগরে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে সুন্দরী প্রেমিকাকে ধর্ষণ ॥ লম্পট প্রেমিক আটক

উমেদনগরে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে সুন্দরী প্রেমিকাকে ধর্ষণ ॥ লম্পট প্রেমিক আটক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের উমেদনগরে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে প্রেমিকাকে ধর্ষণ করেছে লম্পট প্রেমিক। পরে বিয়ে না করায় প্রেমিকার মামলায় ওবায়দুল মিয়া (২৫) কে আটক করেছে পুলিশ।
গত শনিবার গভীর রাতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মির্জা মাহমুদুল করিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে বালিখাল নদীর একটি নৌকার ভেতর থেকে তাকে গ্রেফতার করে।
মামলার বিবরণে জানা যায়, উমেদনগর গ্রামের মৃত আব্দুল মালেকের কন্যা আশরাফুল আক্তার (১৮) এর সাথে মোবাইল ফোনে পরিচয় হয় বানিয়াচং উপজেলার বালিখাল শ্যামপুর গ্রামের আলম মিয়ার পুত্র ওবায়দুলের। এক পর্যায়ে তাদের মাঝে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। প্রায়ই তারা আনন্দ ভ্রমনে যেতো।
আশরাফুলের বাড়ির লোকজন ঘুমিয়ে থাকার সুবাদে গত ১২ জানুয়ারি রাতে ওবায়দুল দেখা করতে যায়। ওইদিন রাতে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে তাকে ধর্ষণ করে ওবায়দুল। এ ছাড়াও গত ১৬ ও ২৬ জানুয়ারি একইভাবে তাকে ধর্ষণ করে লম্পট ওবায়দুল। এরপর থেকে ওবায়দুল তার ফোন বন্ধ করে দেয়।
অনেক খোঁজাখুজি করেও আশরাফুল আক্তার ওবায়দুলের দেখা পায়নি। এদিকে ওবায়দুলের পিতা-মাতা ২৭ জানুয়ারি শিকারপুর গ্রামের সুরত আলীর কন্যা তাহমিনার সাথে ওবায়দুলের সাথে বিয়ে ঠিক করে। বিষয়টি শুনে বিয়ের দিন আশরাফুল আক্তার ছুটে যায় ওবায়দুলের বাড়িতে। সেখানে বিয়ের দাবিতে অনশন করে। এক পর্যায়ে সে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়।
খবর পেয়ে তার স্বজনরা উদ্ধার করে তাকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
এ ঘটনার পর তাহমিনার সাথে ওবায়দুলের বিয়ে ভেঙ্গে যায়। এরপর ওবায়দুল কৌশলে আশরাফুল আক্তারকে হাসপাতাল থেকে নিয়ে যায়। এরপর সে আবারো আত্মগোপনে চলে যায়।
অবশেষে ওবায়দুলের সন্ধান না পেয়ে আশরাফুল আক্তার গত শনিবার সদর থানায় মামলা দায়ের করে। এ মামলা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে রবিবার আদালতে প্রেরণ করে। আশরাফুল আক্তারের জবানবন্দি শেষে তাকে তাঁর মায়ের জিম্মায় দেয়া হয়।
এসআই মাহমুদুল করিম জানান, প্রাথমিকভাবে সে ঘটনা শিকার না করলেও তাকে রিমান্ডে আনা হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com