বুধবার, ১৭ Jul ২০১৯, ১২:২৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে ১৯ মাদক মামলার আসামী আকবর কারাগারে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অফিসে পিস্তল টেকিয়ে মোটর সাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনায় মামলা আদালতেও নিরাপত্তা জোরদার নবীগঞ্জে বন্যাাশ্রয়কেন্দ্রসহ ১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্লাবিত বন্ধ ঘোষণা, ত্রাণ বিতরণ বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শনে নবীগঞ্জে আসছেন দুই মন্ত্রী ক্যান্সার আক্রান্তদের মাঝে চিকিৎসা সহায়তার চেক বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির পৌর কর্মকর্তাদের অবস্থানের কারণে নাগরিক সেবা বন্ধ নবীগঞ্জে ছাত্রদল নেতা রায়েছ চৌধুরীরমুক্তির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল নবীগঞ্জে খালিক মঞ্জিলের স্বত্ত্বাধিকারীবেলাল চৌধুরীকে বিদায় সংবর্ধনা বানিয়াচং থেকে চোরাই মোটরসাইকেল সহ যুবক আটক
নবীগঞ্জের দীঘলবাগে ১০ টাকা কেজির চাল কালোবাজারে ইউএনও বরাবরে অভিযোগ

নবীগঞ্জের দীঘলবাগে ১০ টাকা কেজির চাল কালোবাজারে ইউএনও বরাবরে অভিযোগ

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাগ ইউনিয়নে ১০ টাকা কেজি চাল বিতরণে ব্যাপক অনিয়ম-দূর্নীতি এবং তালিকাভুক্তদের চাল না দিয়ে কালো বাজারে বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এ ব্যাপারে গত সোমবার সুবিধা বঞ্চিত লোকজন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবরে ডিলার সায়েক মিয়ার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
অভিযোগে প্রকাশ সরকার কর্তৃক ১০ টাকা ধরে মাথাপিছু ৩০ কেজি করে দারিদ্রদের মাঝে চাল বিক্রির সিদ্ধান্ত নিলে সারা দেশের ন্যায় নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে ডিলার নিয়োগের মাধ্যমে চাল বিতরণ শুরু করেন। সেই অনুযায়ী উপজেলার দীঘলবাগ ইউনিয়নের সুবিধাভোগী দারিদ্রদের তালিকা করে তাদের নামে কার্ড তৈরী করা হয়। কিন্তু অদৃশ্য কারনে অনেক কার্ডধারী দারিদ্রদের মাঝে কার্ড না দিয়ে ৫ মাস ধরে তাদেরকে চাল না দিয়ে তাদের চাল কালো বাজারে বিক্রি করে দিয়েছেন ডিলার সায়েক মিয়া। এ ঘটনায় এলাকায় বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। সুবিধা বঞ্চিত দারিদ্র লোকজন মাস পর অতি সম্প্রতি জানতে পারেন তাদের নামে ১০ টাকা ধরে ৩০ কেজি করে চাল এর তালিকা ও কার্ড হয়েছে। তবে কাগজ কলমে তাদের নাম থাকলেও বাস্তবে ৫ মাস যাবৎ ১০ টাকা ধরে ৩০ কেজি করে চাল তাদের ভাগ্যে জোটেনি। এতে হতাশা দেখা দিয়েছে দারিদ্র মানুষদের মাঝে।
এ ব্যাপারে সুবিধা বঞ্চিত রাধাপুর গ্রামের আনহার মিয়া, পরাশ মিয়া, তাহিদ মিয়া ও মুজিব মিয়াসহ অনেকেই জানিয়েছেন, তালিকায় তাদের নাম থাকলেও ৫ মাস ধরে তাদেরকে চাল দেয়া হয়নি। তাদের অভিযোগ তালিকায় নাম ও কার্ড থাকা সত্ত্বেও মেম্বার ও ডিলার আতাত করে তাদের নামের বরাদ্ধকৃত চাল কালো বাজারে বিক্রি করে মোটা অংকের টাকা খামিয়েছে। এছাড়াও ৩০ কেজি চালের বদলে অনেক’ কার্ডকারীদের ২০/২৫ কেজি করে চাল দেয়া হয় বলেও অভিযোগ রয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com