মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:১৫ পূর্বাহ্ন

নবীগঞ্জের ডেবনা নদী দখল করে বাড়ি নির্মাণ ॥ ওসি ও ইউএন’র নিকট ব্যাখ্যা চাইলেন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট

নবীগঞ্জের ডেবনা নদী দখল করে বাড়ি নির্মাণ ॥ ওসি ও ইউএন’র নিকট ব্যাখ্যা চাইলেন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জের ডেবনা নদী দখল করে বাড়ি নির্মাণের বিষয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ওসির নিকট ব্যাখা চেয়েছেন আদালত। গতকাল বুধবার হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোঃ কাওছার আলম এ আদেশ দেন। আদেশের অনুলিপি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে।
সম্প্রতি স্থানীয় পত্রিকায় গত ২১ মার্চ ‘নবীগঞ্জের ডেবনা নদী দখল করে বাড়ি নির্মাণ’ শিরোণামে সংবাদ প্রকাশ হয়। সংবাদটি আদালতের ষ্টেনো টাইপিষ্ট মোঃ আল আমিন আদালতের নজরে আনলে বিজ্ঞ আদালত এ আদেশ প্রদান করেন।
উল্লেখ্য, উপজেলার তাহিরপুর মাদ্রাসা বাজার ব্রীজের বাম দিকে (দক্ষিণ সাইডের) ডেবনা নদীতে এলাকার প্রভাবশালীরা বিল্ডিং নির্মাণ করে সরকারি সম্পত্তি দখলের মহোৎসব শুরু করেছে।
এ বিষয়ে অবৈধভাবে নদী তথা সরকারী সম্পত্তি দখলকারদের বিরুদ্ধে শুধু আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে গত ১৬ মার্চ লিখিত আবেদন করা হয়। আবেদনে উল্লেখ করা হয়, ডেবনা নদীতে পাকা গৃহ নির্মাণের ফলে নদী সংকোচিত হওয়ার পাশাপাশি বর্ষা মৌসুমে নদী দিয়ে পানি নিষ্কাশনে মারাত্মক প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়ে পার্শ্ববর্তী কবরস্থানে ভাঙ্গনসহ সংশ্লিষ্ট এলাকায় বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে। এছাড়া এ নদী ও নদীর পাড় দখল নিয়ে প্রায়ই ওই অঞ্চলে জোট ঝামেলা লেগে থাকে।
প্রকাশ, উপজেলার তাহিরপুর গ্রামের বিভিন্ন নাশকতা মামলার আসামী মৃত বাদশা মিয়ার পুত্র মোঃ ফারুক আহমদ তারই নিকটাত্মীয় রাইয়াপুর গ্রামের মৃত রইছ উল্যার পুত্র মোঃ দুলা মিয়া, সাদুল্লাপুর গ্রামের আলী আসকরের পুত্র মোঃ সেজলু মিয়া ও সাদুল্লাপুর গ্রামের তার নিকটাত্মীয় মৃত ফৈরাজ উল্যার পুত্র আব্দুল খালিক স্থানীয় প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নদীতে ও নদীর পাড়ে ফাউন্ডেশন দিয়ে পাকা বিল্ডিং নির্মাণ কাজ অব্যাহত রেখেছেন। অবৈধভাবে এলাকার এ সকল প্রভাবশালীদের দ্বারা নদীর পাড় ও নদী এবং সরকারি ভুমি দখল ও তাতে পাকা বিল্ডিং নির্মাণে কোন প্রশাসনিক ব্যবস্থা না নেয়ায় জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে এদের খুঁটির জোর কোথায়?
ওই পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের প্রেক্ষিতে আদালত আদেশে উল্লেখ করেন, নদী, জলাশয়, মাঠ বা উন্মুক্ত স্থান দখল (দখল ও পুনরূদ্ধার) অধ্যাদেশ, ১৯৭০ এর ৭ (১) অনুযায়ী অপরাধ। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর যে অভিযোগটি দেয়া হয়েছে এর দ্বারা ফৌজদারী অপরাধ সংঘটিত হলে উক্ত অপরাধ আমলে নেয়ার এখতিয়ার সংশ্লিষ্ট আমলী আদালতের। এমতাবস্থায় উক্ত অভিযোগের বিষয়ে কি পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে সেই বিষয়ে আগামী ২৭/০৩/২০১৭ তারিখের মধ্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট ব্যাখা চাওয়া হয়েছে। একই সাথে উল্লেখিত ঘটনায় কোন নিয়মিত মামলা কিংবা সাধারণ ডায়েরী হয়েছে কি না সেই মর্মে একই তারিখের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য নবীগঞ্জ থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com