বুধবার, ২৪ Jul ২০১৯, ০২:০২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে ॥ ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে মামলা ॥ প্রতিবাদে হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হবিগঞ্জ সিভিল সার্জনের মৃত্যু মির্জাপুর থেকে প্রেমিক জুটি আটক ॥ কারাগারে প্রেরণ ১০ ইউপি চেয়ারম্যান উপস্থিত না হওয়ায় নবীগঞ্জ উপজেলা সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়নি বার্মিংহামে হবিগঞ্জ নাগরিক সমাজের সাথে মতবিনিময়কালে এমপি আবু জাহির ॥ দেশবিরোধী চক্রান্তকারীদের ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহবান মাধবপুরে রাষ্ট্রদূতের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় গ্রেফতার ১ নবীগঞ্জ ও বাহুবলে অসুস্থ রোগীদেরকে চিকিৎসা সহায়তা দিলেন এমপি মিলাদ গাজী চুনারুঘাটে নিখোঁজ প্রেমিক যুগল প্রেমিকের মা-সহ ৩ জন আটক নবীগঞ্জের দেবপাড়ায় নিহা ফ্যাশন উদ্বোধন করলেন এমপি মিলাদ গাজী বানিয়াচঙ্গে ২৮ মাস বেতন না পেয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন প্রধান শিক্ষক
বানিয়াচং থানায় ফাইল বন্দি মামলা ৪৮ দিনেও গ্রেফতার হয়নি আসামী

বানিয়াচং থানায় ফাইল বন্দি মামলা ৪৮ দিনেও গ্রেফতার হয়নি আসামী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচং উপজেলার সাখাইতি গ্রামে মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনার দেড় মাস অতিবাহিত হলেও রহস্যজনক কারণে আসামীদের গ্রেফতার করছে না পুলিশ।
এ ঘটনায় মরহুম মুক্তিযোদ্ধা আজমান চৌধুরী লুদু মিয়ার ভাতিজা মুবিন চৌধুরী একই গ্রামের মৃত মঞ্জিল মিয়ার পুত্র সাইদুর রহমান (৩২), অলি মিয়া (৩৮) ও রাহি মিয়া পাঘাসহ ৭ জনকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেন। গত ৩১ জানুয়ারি বানিয়াচং থানার তৎকালীন অফিসার ইনচার্জ অমূল্য কুমার চৌধুরী অভিযোগটি তদন্তের জন্য দায়িত্ব দেন মার্কুলি পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ আমিরুল ইসলামকে। তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে প্রতিবেদন দিলে মামলা রুজু করেন তৎকালীন ওসি। বর্তমানে মামলাটি তদন্ত করছেন বানিয়াচং থানার এসআই মোস্তাক আহমেদকে। বাদী পক্ষের অভিযোগ ফাড়ি থেকে মামলাটি নিয়ে আসার পর থেকে এর কোন অগ্রগতি নেই। ইতোমধ্যে বাদির পক্ষ থেকে একাধিকবার তার সাথে যোগাযোগ করেও কোন কাজ হচ্ছে না। মামলাটি ফাইল চাপা দিয়ে রাখা হয়েছে। ফলে আসামীরা দাপটের সাথে প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করছে।
বাদির অভিযোগ, আসামী ধরার জন্য তাগিদ দিলে তদন্তকারী কর্মকর্তা মোস্তাক বলছেন, ‘আসামীদের না ধরতে উপর মহলের নির্দেশ রয়েছে’। বাদি অভিযোগ করেন, তদন্তকারী কর্মকর্তা মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে আসামীদের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলায় তাদের গ্রেফতার করছেন না। তাদের অভিযোগ তদন্তকারী কর্মকর্তা মোস্তাকের সাথে আসামী সাইদুর রহমানের আত্মীয়তার সম্পর্ক রয়েছে। যে কারণে তিনি তাদেরকে গ্রেফতার করা থেকে বিরত রয়েছেন।
উল্লেখ্য, গত ২৭ জানুয়ারি গভীর রাতে মুবিন চৌধুরী ও তার পরিবার ঘুমিয়ে পড়লে একই গ্রামের সাইদুর রহমান ও তার ভাই অলি মিয়া ও রাহি মিয়াসহ একদল লোক তার বসতঘরে আগুন দিলে ঘরটি ভস্মীভূত হয়ে যায়। এ ঘটনায় মুবিন চৌধুরী বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর থেকেই আসামীরা বাদি ও সাক্ষীদের বিভিন্নভাবে হুমকি প্রদর্শন করছে। এ নিয়ে উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন সময় অপ্রীতিঘর ঘটনার আশংকা করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com