বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:১৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শহরে হাইব্রিড হীরা-২ নকল ধান বীজ তৈরির কারখানা আবিস্কার ॥ বিপুল পরিমাণ ক্যামিকেল, নকল বীজ ও প্যাকেট জব্ধ ॥ গুদাম সীলগালা হবিগঞ্জে সেমিনারে সিটিটিসি কর্মকর্তা ॥ জঙ্গীদের পরিবারের দুর্দশার চিত্র তুলে ধরলেও সচেতনতা আসতে পারে নবীগঞ্জে যুবতি অপহরণের অভিযোগে ১৪ বছর জেল লবন নৈরাজ্য ॥ হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে ২০ ব্যবসায়ীকে জরিমানা সমাপনী পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না নবীগঞ্জে ইয়াসমিনের নবীগঞ্জে ফরিদ গাজীর নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল বাহুবলে ইজিবাইক উল্টে ১ জনের মৃত্যু নবীগঞ্জে গণফোরামের প্রথম সভায় বক্তারা ॥ ড. রেজা কিবরিয়া সিলেট বিভাগের গর্ব তারেক রহমানের জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সদর উপজেলা বিএনপির মিলাদ মাহফিল সাংবাদিক সলিল এর পিতার পরলোকগমন ॥ শোক প্রকাশ
হবিগঞ্জে শিল্পায়নে বিপ্লব

হবিগঞ্জে শিল্পায়নে বিপ্লব

পাবেল খান চৌধুরী ॥ শিল্পায়নে বিপ্লব গঠছে হবিগঞ্জে। আর শিল্প বিপ্লবের ফলে দুর হচ্ছে কয়েক লক্ষাধিক বেকার যুবক যুবতীর বেকারত্ব। তবে শিল্প বিপ্লবে বাধঁ সেজেছে মধ্যসত্বভোগী দালাল। দালালদের কারনে অনেক শিল্প প্রতিষ্টান জমিক্রয় করতে গিয়ে পড়ছেন নানাবিধ ভোগান্তিতে। এমনকি তাদের ভোগান্তিতে অতিষ্ট হয়ে অনেকই এই এলাকা ছেড়ে প্রতিষ্টান গড়তে চলে যাচ্ছেন অন্য জেলায়। আর দালালরা অনেক জমির মালিকের সাথে প্রতারনা করে নিজেরা বনে যাচ্ছে আংগুল ফুলে কলা গাছ। এক সময় যারা অন্যের বাড়িতে দিন মজুর বা কর্মচারির কাজ করেছে এখন তাদের কেউ কেউ আবার হয়ে উঠেছেন শিল্পপতি। এত কিছুর পরেও উদ্যোগক্তারা তাদের শিল্প প্রতিষ্টান গড়ে তুলছেন। উদ্যোগক্তারা বলছেন এ সব শিল্পপ্রতিষ্টান গড়া উঠার ফিছনে সরকারে পাশাপাশি স্থানীয়ভাবে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন জনপ্রতিনিধিরা।
তবে শিল্পকারখানা স্থাপনে একদিকে যেমন বেকারত্ব দুর হচ্ছে আবার অন্যদিকে এলাকার পরিবেশে মারাত্মক বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। শিল্প প্রতিষ্টান গড়ে তোলার সাথে পরিবেশের ভারসাম্য যেন নষ্ট না হয় সেদিকেও নজর রাখার জোর তাগিদ দিয়েছেন পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা।
বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সরকার একদিকে যেমন রাষ্ট্রের উন্নয়নে কার্যকর ভূমিকা পালন করছেন। তেমনি ব্যক্তি উদ্যোগে ছোট-বড় শিল্পপ্রতিষ্টান গড়ে উঠতে দিয়ে যাচ্ছে সকল প্রকার সুযোগ-সুবিধা। সম্পূর্ণ অগ্রাধিকার ভিত্ত্বিতে শিল্প প্রতিষ্টান গড়ে তুলতে উদ্যোগক্তাদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন বর্তমান সরকার। আর বর্তমান সরকারের এ পদক্ষেপের ফলে বদলে যাচ্ছে হবিগঞ্জ জেলা। জেলায় প্রায় ৮৫ কিলোমিটার মহাসড়কের স্থানে স্থানে বেসরকারি উদ্যোগে গড়ে উঠছে বিশাল শিল্পকারখানা। বেসরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি সরকারি উদ্যোগেও ৫১১ একর জমিতে চুনারুঘাট উপজেলায় অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে আওয়ামীলীগ সরকার। তবে সেখানেও বাধ সেজেছে একটি কু-চক্রী মহল। ওই মহলগুলোর ইন্দনে স্থানীয় বাগান শ্রমিককে দিয়ে বাধা সৃষ্টি করা হচ্ছে। যার ফলে অনেকটাই থমকে গেছে অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের কাজ। গ্যাস, বিদ্যুৎ ও যোগাযোগ এই তিন খাত শিল্পকারখানা গড়ার উপযোগীসহ শিল্পবান্ধব পরিবেশের কারণে এই জেলাকে বেছে নিয়েছে বহুজাতিক রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানগুলো। আর এই তিনের পাশাপাশি জেলায় রয়েছে বিপুল পরিমান কাছামাল। একেও উদ্যোগক্তারা তাদের বড় একটি সমর্থন বলে মনে করেন।
ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের শেরপুর থেকে মাধবপুর উপজেলা পর্যন্ত ৮৫ কিলোমিটার সড়কের দু’পাশের ধানের জমিগুলোতে গড়ে উঠছে এসব শিল্পকারখানা। খুব দ্রুত সময়ের মধ্যেই হবিগঞ্জে শিল্প বিপ্লব ঘটেছে। যা এক বিস্ময় কর বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নূরপুর, মাধবপুর উপজেলার বাঘাসুরা, নয়াপাড়া, জগদীশপুর, আন্দিউড়া, ছাতিয়াইন, বাহুবল উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন ও নবীগঞ্জ উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নসহ মহাসড়ক সংলগ্ন ইউনিয়নগুলোতে গ্যাস সুবিধাকে কাজে লাগিয়ে প্রতিযোগিতামূলক ভাবে গড়ে উঠছে দেশি-বিদেশি মালিকানাধিন নানান কারখানা। আর এর সঙ্গে সুযোগ তৈরী হচ্ছে লাখ লাখ বেকার লোকের কর্মসংস্থানের। এরই মধ্যে স্কয়ার গ্র“প, প্রাণ, প্রাণ-আরএফএল, বাদশা, আরএকে সিরামিক্স, স্টার সিরামিক্স, আরএকে মসফ্লাই, চারু সিরামিক্স, এজি সিরামিক্স, বেঙ্গল গ্র“প, সায়হাম গ্র“পসহ দেশি-বিদেশি বিভিন্ন কোম্পানি শিল্প-প্রতিষ্ঠান স্থাপন করে উৎপাদন শুরু করেছে। গ্যাস, বিদ্যুৎ যোগাযোগ সুবিধা থাকায় মূলত এসব সুবিধাকে কাজে লাগিয়ে দিন দিন নতুন নতুন শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠছে।
মাধবপুর উপজেলার কররা গ্রামে ২৬ বিঘা জমির উপর প্রায় সাড়ে ৪০০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ হয়েছে শতভাগ রপ্তানিমুখি ও স্বয়ংক্রিয় এস এম স্পিনিং মিল। এ মিলে প্রতিদিন উৎপাদন হবে ৩২ থেকে ৩৫ মেট্রিকটন সুতা। এর মধ্যে ৩০ হাজার স্পিন্ডেল কটন ও ২৪ হাজার স্পিন্ডেল সিনথেটিক সুতা। বছরে শুধু এ মিল থেকে ৪৫ মিলিয়ন ডলারের সুতা বিক্রয় করা সম্ভব হবে জানান কর্তৃপক্ষ। আর মিলে কর্মসংস্থান হবে প্রায় ২ হাজারেরও অধিক লোকের।
আশির দশকের শেষের দিকে মাধবপুর উপজেলার নোয়াপাড়ায় সায়হাম টেক্সটাইলের মাধ্যমে শিল্পায়নের যাত্রা শুরু হয় হবিগঞ্জে। মহাসড়ক, রেল সড়কসহ উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা, গ্যাস ও বিদ্যুতের প্রাচুর্য, সহজলভ্য শ্রমিক, কাঁচামালের সহজপ্রাপ্যতা এবং রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর ব্যাপকভাবে এ এলাকায় শিল্পায়ন শুরু হয়েছে।
বাঘাসুরা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মোঃ আমির আলী যাদু জানান, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নূরপুর ও মাধবপুর উপজেলার বাঘাসুরা, নোয়াপাড়ায় স্কয়ার, প্রাণ, বাদশা, আরএকে ও বেঙ্গল গ্র“পসহ দেশি-বিদেশি বড় বড় কোম্পানি শিল্প স্থাপন করছে। আর এর সঙ্গে কর্মসংস্থান হচ্ছে হাজার হাজার বেকার লোকের।
অর্থনীবিদরাও বলছেন, এখানে শিল্প হলে হবিগঞ্জ জেলা যেমন সমৃদ্ধ হবে। ঠিক সেইভাবে আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগও সৃষ্টি হবে ব্যাপক হারে। যেভাবে শিল্প স্থাপন হচ্ছে, এক সময় এই জেলা সাভারকে ছাড়িয়ে যাবে।
সরেজমিন পরিদর্শনকালে দেখা যায়, হবিগঞ্জ সদর উপজেলা, মাধবপুর, নবীগঞ্জ ও বাহুবল উপজেলায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের দু’পাশের বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে বেসরকারি উদ্যোগে গড়ে উঠছে শিল্পকারখানা। ২০০৩ সালে সিলেট-ঢাকা সড়ককে সংস্কার করে মহা-সড়কে পরিণত করার পর থেকেই সড়কের দুই পাশের জমি কেনার প্রতিযোগিতা লেগে যায় শিল্প উদ্যোগক্তাদের মাঝে। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার অলিপুর এলাকায় ৬শ’ বিঘা জমির উপর গড়ে উঠেছে হবিগঞ্জ ইন্ডাষ্ট্রিয়াল পার্ক। প্রাণ-আরএফএল গ্র“প এই পার্ক থেকে উৎপাদিত পণ্য দেশের চাহিদা পূরণ করে পার্শ্ববর্তি দেশ ভারতে রপ্তানি করে আসছে।
প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে হবিগঞ্জের শিল্পবিপ্লবে সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে বলে জানান জেলা প্রশাসন। এখানে আগে প্রতি বিঘা জমি মিলতো যে দামে, এখন প্রতি শতকের দাম তার চেয়েও বেশি। ফলে বদলে যাচ্ছে এলাকার মানুষের জীবনযাত্রার মানও। দূর হচ্ছে বেকার সমস্যা। ৫-৭ বছর আগেও সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের দীর্ঘপথ অতিক্রম করার সময় সড়কের দু’পাশে জমিতে দেখা যেত ফসল ফলানো। আর এখন দু’পাশে গড়ে উঠছে বিশাল বিশাল শিল্পকারখানা। এসব জমিতে দ্রুত শিল্পায়নের ফলে জমির দাম কল্পনাকেও ছাড়িয়ে গেছে।
মাধবপুর বাঘাসুরা ইউপি চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন আহমেদ বলেন, শিল্পায়ন হওয়ার আগে প্রতি বিঘা জমি বিক্রি হতো ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকায়। বর্তমানে প্রতি শতক বিক্রি হচ্ছে ২ লাখ থেকে ৩ লাখ টাকায় বা তার চেয়েও বেশি। দেশের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান এসব শিল্প গড়ে তুলছেন। এতে শুধু বেকার অসহায় নারী-পুরুষ নয়, প্রতিবন্ধী মানুষের ভাগ্যের চাকাও বদলে যাচ্ছে। এর ফলে শুধু সিলেট অঞ্চল নয়, অন্যান্য এলাকার মানুষের কর্মসংস্থান হচ্ছে। অদূর ভবিষ্যতে চট্টগ্রাম বিভাগের কিয়দংশ এবং ঢাকা বিভাগের কিয়দংশের চেয়েও হবিগঞ্জ অধিক আলোকিত হবে আমাদের হবিগঞ্জ। তিনি বলেন আমরাও শিল্প প্রতিষ্টান গড়ে তুলার ক্ষেত্রে সর্বাত্মক সহযোগিতা করে যাচ্ছি।
হবিগঞ্জ গ্যাস ফিল্ড, বিবিয়ানা আর রশিদপুর গ্যাসক্ষেত্র থেকে জাতীয় সঞ্চালন লাইনে ৫৫ শতাংশ গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। একইভাবে হবিগঞ্জের ৪টি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র থেকে প্রায় ২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে।
শিল্প উদ্যোগক্তারা বলছেন, শিল্পবান্ধব পরিবেশ বলতে যা বোঝায় তার পরিপূর্ণতা এখানে খুঁজে পাওয়ায় সবার দৃষ্টি এখন হবিগঞ্জে। এছাড়া জেলার আইনশৃঙ্খলা অনেক ভালো এবং বর্তমান সরকার শিল্পায়নের দিকে নজর দিচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় প্রায় ৮৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ইতোমধ্যে অর্ধশতাধিক ভারী ও মাঝারি শিল্প, বিদ্যুৎ কেন্দ্র, গ্যাস ক্ষেত্র গড়ে উঠেছে। কর্মসংস্থান হয়েছে প্রায় ২ লক্ষাধিক মানুষের। জেলার বুক চিরে বয়ে গেছে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক। রেল ও সড়ক পথের উন্নত যোগাযোগব্যবস্থা এবং গ্যাস ও বিদ্যুতের উৎসস্থল হওয়ায় শিল্প কারখানাগুলোতে গ্যাস ও বিদ্যুতের সংযোগ সুবিধা থাকায় মহাসড়কের উভয় পাশেই গড়ে উঠছে এই শিল্পকারখানাগুলো। শেরপুর থেকে মাধবপুর পর্যন্ত ৮৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে পুরোপুরি উৎপাদনশীল কারখানা স্থাপিত হলে প্রায় ৪ থেকে ৫ লক্ষাধিক লোকের কর্মসংস্থান তৈরি হবে বলে মনে করছেন উদ্যোক্তরা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com