বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০, ১১:৫৬ অপরাহ্ন

বাহুবলের সুন্দ্রাটিকির ৪ শিশু হত্যার একবছর খুনিদের ফাঁসির দাবী সন্তানহারা ৪ মায়ের

বাহুবলের সুন্দ্রাটিকির ৪ শিশু হত্যার একবছর খুনিদের ফাঁসির দাবী সন্তানহারা ৪ মায়ের

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গতকাল ১৭ ফেব্র“য়ারী বাহুবলে সুন্দ্রাটিকি ট্রাজেডির এক বছর পুর্ণ হয়েছে। এই এক বছরে বিচার না পাওয়ার হতাশায় রয়েছেন চার শিশুর পরিবার। বাহুবল উপজেলার সুন্দ্রাটিকি গ্রামের আমেনা খাতুন, ছুলেমা খাতুন, পারুল বেগম ও মিনারা খাতুনের চোখের জল এক বছরেও শুকায়নি। হতভাগা এ চার সন্তানহারা নারীরা খুনিদের ফাঁসি ছাড়া আর কিছুই চান না। গত বছর এইদিনে (১৭ ফেব্র“য়ারি) তাদের প্রাণপ্রিয় শিশুপুত্র যথাক্রমে তাজেল, মনির, শুভ ও ইসমাঈলের অর্ধগলিত লাশ মাটির নিচ থেকে এক এক করে তোলা হয়েছিল। এ করুন দৃশ্য যেমন তাদের মা-বাবা আজও ভুলতে পারেননি, তেমনি ভুলেননি স্বজন-পরিজন ও গ্রামবাসী। এ করুন কাহিনী বর্ণনা করতে গিয়ে আজও তারা চোখের জল ফেলেন। গত বছরের ১২ ফেব্র“য়ারি বিকেলে খেলার মাঠ থেকে ফেরার পথে অপহরণ হওয়া ওই শিশুদের লাশ ১৭ ফেব্র“য়ারি গ্রামের পার্শ্ববর্তী ইছাবিলের বালু গর্ত 16-Sundratiki (3)

16-Sundratiki

16-Sundratiki (1)থেকে মাটিচাপা লাশ উদ্ধার করা হয়। বিষয়টি দেশ-বিদেশে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে।
উপজেলার সুন্দ্রাটিকি গ্রামের মোঃ ওয়াহিদ মিয়া তালুকদারের পুত্র স্থানীয় সুন্দ্রাটিকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণীর ছাত্র জাকারিয়া আহমেদ শুভ (৮), তার চাচাত ভাই আব্দুল আজিজ এর পুত্র একই বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্র তাজেল মিয়া (১০) ও আবদাল মিয়া পুত্র একই বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেণীর ছাত্র মনির মিয়া (৭) এবং তাদের প্রতিবেশী আব্দুল কাদির এর পুত্র সুন্দ্রাটিকি মাদরাসার ছাত্র ইসমাঈল হোসেন (১০) পার্শ্ববর্তী গ্রামের খেলার মাঠ থেকেই ফেরার পথে নিখোঁজ হয়। পরদিন নিখোঁজ জাকারিয়ার পিতা ওয়াহিদ মিয়া বাদী হয়ে বাহুবল থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন। পরে নিখোঁজ শিশু মনির মিয়ার পিতা আবদাল মিয়া বাদী হয়ে বাহুবল মডেল থানায় অজ্ঞাত আসামীদের বিরুদ্ধে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন।
সুন্দ্রাটিকি গ্রামের নিখোঁজ শিশুদের বাড়ি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরবর্তী ইচাাবিলে একটি পাহাড়ি ছড়ার পার্শ্বেবর্তী পতিত ভূমির বালুর গর্তে মাটিচাপা অবস্থায় একশিশুর হাতের দেখা মেলে। খবর পেয়ে বাহুবল মডেল থানা পুলিশ ওই স্থান থেকে শিশুদের অর্ধগলিত মৃত দেহ উদ্ধার হয়।
৪ শিশু অপহরণ ও হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ সুন্দ্রাটিকি গ্রামের বিতর্কীত মুরুব্বী আব্দুল আলী বাগাল (৫৫), তার পুত্র জুয়েল মিয়া (২৫), রুবেল মিয়া (২০) ও একই গ্রামের ছায়েদ মিয়া ও হাবিবুর রহমান আরজুকে আটক করে। শিশুদের অপহরণের দায়ে অভিযুক্ত সিএনজি অটোরিকশা চালক বাচ্চু মিয়া ভারতে পালিয়ে যাবার সময় ২৫ ফেব্র“য়ারি ভোরে চুনারুঘাট উপজেলার দেওরগাছ নামক স্থানে র‌্যাবের সাথে বন্ধুক যুদ্ধে নিহত হয়। দীর্ঘ তদন্ত শেষে হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশের তৎকালীন ওসি মুক্তাদির হোসেন গ্রেফতারকৃতরা সহ আব্দুল আলী বাগালের জৈষ্ঠ্যপুত্র বিল্লাল, বন্ধুক যুদ্ধে নিহত বাচ্চুর ভাই উস্তার ও বাবুলকে আসামী করে আদালতে চার্জসীট দাখিল করেন।
এ মামলায় সরকার নিযুক্ত বিশেষ পিপি অ্যাডভোকেট ত্রিলোক কান্তি চৌধুরী বিজন জানান, মামলাটি বর্তমানে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে আছে। এ পর্যন্ত এ মামলায় ৫৭ জনের মাঝে ৩০ জনের সাক্স্যগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। আগামী ২২ ও ২৩ ফেব্র“য়ারি মামলায় সাক্স্যগ্রহণের পরবর্তী তারিখ নির্ধারিত আছে।
বৃহস্পতিবার ১৬ ফেব্র“য়ারি বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় নিহত শিশুদের মায়েরা যার যার ঘরের মাঠিতে জায়নামাজ বিছিয়ে কেউ তজবি, কেউ নফল নামাজ আবার কেউ হাত উচিঁয়ে চোখের জল ফেলছেন আর আল্লাহর দরবারে আহাজারী করছেন। আলাপকালে তারা একবছর আগের নানান দুঃসহস্মৃতি তোলে ধরে আর্তনাদ করেন। তারা বলেন, আমাদের সন্তানদের বিনা অপরাধে নির্মম ভাবে খুন করা হয়েছে। আমরা এর সর্বোচ্চ বিচার চাই। আর যেন এভাবে কোন মায়ের কুল খালি না হয়। এক প্রশ্নের জবাবে সন্তানহারা ৪ নারী এক স্বরে-এক দাবি করে বলেন, আমরা বাড়ি, গাড়ি কিছুই চাই না শুধু চাই খুনিদের ফাঁসি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com