বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
২০ হাজার মানুষের গ্রামে একটি রাস্তাও পাকা নেই ॥ চরম দুর্ভোগ সাবেক মেয়র জিকে গউছের নামে ভূয়া ইউটিউব চ্যানেল ॥ থানায় জিডি নবীগঞ্জে সাংবাদিক আজাদের মায়ের ইন্তেকাল ॥ বিভিন্ন মহলের শোক নবীগঞ্জে বিদ্যুতপৃষ্টে বৃদ্ধের করুন মৃত্যু ইদুর নিধন অভিযান উপলক্ষে নবীগঞ্জে আলোচনা সভা বানিয়াচঙ্গে সাংবাদিকদের সাথে নবাগত ওসি’র মতবিনিময় কারিতাস সিলেট অঞ্চলের উদ্যোগে বিশ্ব সাদাছড়ি নিরাপত্তা দিবস পালন শায়েস্তাগঞ্জে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত কুদরত নিহত ॥ ৬ পুলিশ আহত বাহুবলের সাবেক চেয়ারম্যান মুদ্দত আলীর বিরুদ্ধে মেয়াদোত্তীর্ণ কাগজ দিয়ে মাটি, বালু উত্তোলনের অভিযোগ আজমিরীগঞ্জে ইমামের পিছনে বসা নিয়ে সংঘর্ষ ॥ মহিলাসহ আহত ১০
মাঝপথে থেমে গেছে জেলার বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার কাজ

মাঝপথে থেমে গেছে জেলার বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার কাজ

নুরুল আমিন ॥ হবিগঞ্জের চা শ্রমিকসহ অর্ধ লাখ শিক্ষিত বেকার যুবক যুবতীর কর্মসংস্থানের লক্ষ্য নিয়ে চুনারুঘাটে প্রস্তাবিত “হবিগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল” প্রতিষ্ঠার কাজ মাঝপথে থেমে গেছে। সরকার বিরোধী বাম রাজনৈতিক দলের ইন্ধনে সংশ্লিষ্ঠ চা বাগানের কতিপয় শ্রমিকের আন্দোলন এবং স্থানীয় উদ্যোগের ভাটা পড়ে যাওরায় স্থগিত হয়ে আছে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার কাজ। ২০১৬ সালের শুরুতেই সরকারি খাস খতিয়ানের জমি কতিপয় চা শ্রমিকরা নিজেদের দাবী করে আন্দোলন এবং বাগান কর্তৃপক্ষের অসহযোগিতার কারণে জোনের কাজ ত্বরান্বিত হচ্ছেনা। সরকার বিরোধীরা এবং চা বাগান কর্তৃপক্ষ ঐ মহলটিকে অর্থের যোগান দিচেছ বলেও অভিযোগ উঠেছে। বাংলাদেশ ইকনোমিক জোন অথরিটি’র (বেজা) নামে রেজিস্ট্রি করে দেওয়া ৫১১ একর জমির অধিকাংশ জমিতে এখন বহিরাগতরা শাকসবজিসহ নানা ফসল আবাদ করছেন। গ্যাস ও বিদ্যুতের সহজলভ্যতা, যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং চা শ্রমিকদের জীবণমান উন্নয়নে চুনারুঘাট উপজেলার চান্দপুর টিজি মৌজায় সরকারি ৫’শ ১১ একর খাস জমিতে ২০১৪ সালে হবিগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার কাজ শুরু হয়। ঐ বছর অক্টোবর মাসে হবিগঞ্জের তৎকালীন জেলা প্রশাসক মো. জয়নাল আবেদীন সরকারি ঐ ভূমিতে স্পেশাল ইকনোমিক জোন প্রতিষ্ঠার প্রস্তাবনা প্রেরণের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের তৎকালীন নির্বাহী চেয়ারম্যান এবং সচিব ফখরুল ইসলাম ২০১৫ সালের জানুয়ারী মাসে স্থানটি পরিদর্শন করে সেখানে জোন প্রতিষ্ঠার আগ্রহ প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের যুগ্ম সচির ও বেজা চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী ঐ বছরের মার্চ মাসে চুনারুঘাটের চা বাগানসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশানর মানুষের সাথে মতবিনিময় করে দ্রুত এ স্থানে বিশেষ ইকোনমিক জোন স্থাপনের কাজ শুরু করেন। প্রধানমন্ত্রী জোনের বিষয়ে স্দ্ধিান্ত গ্রহন ও চুড়ান্ত অনুমোদন দিলে দ্রুত কাজ শুরু করে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক জোন অথরিটি বা বেজা। ২০১৫ সালের অক্টোবর মাসে জেলা প্রশাসক সাবিনা আলম বেজা চেয়ারম্যানের নামে উক্ত ৫’শ ১১ একর জমি কবুলিয়াত নামা রেজিষ্ট্রি করে দেন। এরই মধ্যে বেশ কয়েক বার জেলা প্রশাসক ও বেজা চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী চা শ্রমিকসহ স্থানীয় সুধীজনের সাথে মতবিনিময় করেন। ২০১৬ সালের প্রথম দিকে যখন জোনের আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু হবে তখন পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ভোটের রাজনীতি শুরু করে একটি অশুভ মহল। জেলার উন্নয়নের সোপান এ কাজে শ্রমিকরা বাধাঁ হয়ে দাড়ায়। বিঘিœত হয় জেলা এ বৃহৎ উন্নয়ন কর্মকান্ডের। এক পর্যায়ে ইকনোমিক জোনের পক্ষে চুনারুঘাটবাসী আন্দোলন শুরু করে। চান্দপুর ও বেগম খান চা বাগানে আড়াইশ পরিবার এ জমি তাদের দাবী করে আন্দোলনে নামে। তারা মার্চ মাস থেকে আন্দোলনে গেলে চান্দপুর ও বেড়মখান চা বাগানের কয়েক শ চা শ্রমিক এবং বাগানের বাইরের সাধারণ মানুষের মধ্যে এ নিয়ে উত্তেজনা দেখা দেয়। বস্তির লোকজন সভা সমাবেশ, মানবন্ধনসহ নানা আন্দোলন করার এক পর্যায়ে আইনশৃংখলা অবনতির আশংকা প্রশাসনের অনুরোধে স্থানীয়রা এ আন্দোলন থেকে সরে আছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি, সুবিধা করে নেয় জোনের বিপক্ষে থাকা আন্দোলনকারী কতিপয় বাম রাজনৈতিক দল ও চা বাগানের কয়েক’শ চা শ্রমিক। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের জানান, বিশেষ ইকনোমিক জোনে কোরিয়া, জাপান ও চায়না কোম্পানীরা বিনিয়োগ করবে। এতে চা বাগানসহ জেলার অর্ধলাখ বেকার যুবক যুবতীর কর্মসংস্থানের পাশাপাশি চুনারুঘাট শহর তথা হবিগঞ্জ জেলার চেহারা পাল্টে যাবে। ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক পরিবর্তন হওয়ার পর সেখানে যে স্থবিরতা সৃষ্টি হয় তা দুর হবে বলে মনে করছেন চুনারুঘাটের বিজ্ঞ জনেরা। পাশাপাশি প্রচুর চা বাগান, সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান ও রেমা-কালেঙ্গার মত অভয়ারন্য থাকায় সেখানে পর্যটন শিল্পেরও বিকাশ ঘটবে। এছাড়া জেলার একমাত্র স্থলবন্দরের উন্নয়ন হবে এবং ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে আমদানী রপ্তানীও বাড়বে। এতে দেশের রাজস্বও বাড়বে। তিনি চুনারুঘাটে জোন প্রতিষ্ঠার বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং অর্থমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করেন। চুনারুঘাটবাসী মনে করছেন, চুনারুঘাট উপজেলা নানা সম্পদে ভরপুর। ইতিমধ্যে পর্যটন শিল্পে চুনারুঘাট একটি বড় অবদান রাখছে। সেখানে স্পেশাল ইকনোমিক জোন হলে চুনারুঘাট আরও সমৃদ্ধ হবে। এখানে চা বাগানে চা বাগানের হাজার হাজার শিক্ষিত বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান করা হবে। স্পেশাল ইকনোমিক জোন হলে চুনারুঘাট কথা চা শ্রমিকসহ জেলার হাজার হাজার বেকার মানুষের কর্মসংস্থান হবে এবং দেশের অর্থনীতির জন্য ইতিবাচক হবে। একই সাথে বাল্লা স্থল বন্দরের আধুনিকায়ন হলে ভারতের ৭টি রাজ্যের সাথে আমাদের বাণিজ্যিক সম্পর্ক বৃদ্ধি পাবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com