বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:৪৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
২০ হাজার মানুষের গ্রামে একটি রাস্তাও পাকা নেই ॥ চরম দুর্ভোগ সাবেক মেয়র জিকে গউছের নামে ভূয়া ইউটিউব চ্যানেল ॥ থানায় জিডি নবীগঞ্জে সাংবাদিক আজাদের মায়ের ইন্তেকাল ॥ বিভিন্ন মহলের শোক নবীগঞ্জে বিদ্যুতপৃষ্টে বৃদ্ধের করুন মৃত্যু ইদুর নিধন অভিযান উপলক্ষে নবীগঞ্জে আলোচনা সভা বানিয়াচঙ্গে সাংবাদিকদের সাথে নবাগত ওসি’র মতবিনিময় কারিতাস সিলেট অঞ্চলের উদ্যোগে বিশ্ব সাদাছড়ি নিরাপত্তা দিবস পালন শায়েস্তাগঞ্জে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত কুদরত নিহত ॥ ৬ পুলিশ আহত বাহুবলের সাবেক চেয়ারম্যান মুদ্দত আলীর বিরুদ্ধে মেয়াদোত্তীর্ণ কাগজ দিয়ে মাটি, বালু উত্তোলনের অভিযোগ আজমিরীগঞ্জে ইমামের পিছনে বসা নিয়ে সংঘর্ষ ॥ মহিলাসহ আহত ১০
চুনারুঘাটের সাতছড়ি ঃ অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি

চুনারুঘাটের সাতছড়ি ঃ অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি

????????????????????????????????????

পাবেল খান চৌধুরী ॥ সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান বাংলাদেশের সবচেয়ে পরিচ্ছন্ন, বৈচিত্রময়, বর্ণিল ও নয়নাভিরাম সৌন্দর্যের আধাঁর পর্যটন কেন্দ্র। এটি দেশের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র হতে বৈচিত্র ও বৈশিষ্ট্যে আলাদা। এখানে রয়েছে ১৯৭ প্রজাতির জীব। যার মধ্যে ১৪৯ প্রজাতির পাখি, ২৪ প্রজাতির স্থণ্যপায়ী, ১৮ প্রজাতির সরীসৃপ এবং ৬ প্রজাতির উভচর প্রাণী। জাতীয় উদ্যানটি বহু সংখ্যক পাখির অভয়ারণ্য হওয়ায় এটি পাখি প্রেমিকদের কাছে স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে। সাতছড়ি অর্থ ‘সাতটি ছড়া’ যা বনভূমির ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে জাতীয় উদ্যানের গুরুত্বপূর্ণ ভীত তৈরি করেছে। সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানটি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলায় অবস্থিত। এটি ক্রান্তীয় মিশ্র-চিরহরিৎ বনভূমি। যার নিচু স্তরের গাছগুলির মধ্যে অধিকাংশই চিরহরিৎ প্রজাতির। কিন্তু বৃহৎগুলোর বেশিরভাগই পত্রঝরা উদ্ভিদ। প্রকৃতিগত ভাবেই এই মিশ্র চিরহরিৎ পাহাড়ী বনভূমি ভারতীয় উপমহাদেশ ও ইন্দো-চীনের মধ্যে সংযোগস্থল। ১৯৭৪ সালের বন্যপ্রানী সংরক্ষণ (সংশোধন) আইন অনুযায়ী ২০০৫ সালে ২৪৩ হেক্টর পার্বত্য এলাকা নিয়ে প্রতিষ্ঠা করা হয় সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান। চুনারুঘাট শহর ছাড়িয়ে উত্তরে প্রায় ৭কি.মি দূরে অবস্থিত সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানটি। খুবই পরিচ্ছন্ন এ উদ্যানে পর্যটকদের আনাগোনা সব সময়ই বেশী থাকে। জাতীয় উদ্যানটি কয়েকটি চা বাগান, গ্রাম ও পাহাড় দ্বারা বেষ্টিত হওয়ায় এটি পর্যটকদের কাছে আরোও আকর্ষনীয় হয়ে উঠে। উদ্যানটির আশেপাশে ৯টি চা বাগান অবস্থিত হওয়ার কারনে পর্যটকরা আকৃষ্ট হচ্ছেন এই উদ্যানের প্রতি। যারা একঢিলে দুই পাখি শিকার করতে চান তারা ঘুরে আসতে পারেন সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে। কারন আপনি যে দিকেই জাতীয় উদ্যানটিতে আসুন না কেন রাস্তার পাশের চা বাগানগুলো আপনার নজর কাড়তে বাধ্য হবেই। এছাড়া এখানে রয়েছে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠির বসবাস। যারা আদিবাসীদের উপর নৃতাত্ত্বিক গবেষনা করতে চান তারাও এখানে আসতে পারেন। কারণ সাতছড়িতে বাস করে প্রায় ত্রিশটি আদিবাসী ত্রিপুরা পরিবার। সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে এলে আপনি হারিয়ে যাবেন প্রকৃতির স্বর্গরাজ্যে। গহীন অরন্যে হারিয়ে যাওয়ার জন্য ৩টি ট্রেইল বা হাইকিং করা হয়েছে। ৩টির মধ্যে ১টি ৩ ঘন্টার, ১টি এক ঘন্টার ও ১টি আধা ঘন্টার পায়ে হাটার পথ রয়েছে। পায়ে হাটা পথেই আপনি দেখবেন বিভিন্ন প্রজাতির বক্ষ তথা গাছপালা। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো আকাশমনি, আগর, আশার, আউয়াল, বট, ভর, বন-লিচু, চালতা, চাপালিশ, ছাতিম, ইউক্যালিপটাস, কদম, কাকরা, কানাইডিঙ্গা, কাঞ্চন, মান্দার, কড়ই, পিতরাজ সহ নাম না জানা বহু প্রজাতির উদ্ভিদ। পায়ে হাটা পথ বা ছড়ার উপর দিয়ে হেটে যাওয়ার সময় পাহাড়ী ময়না, ঘুঘু, বুলবুলি সহ নানা প্রজাতির পাখির কিচিরমিচিরে আপনি মুগ্ধ হয়ে যাবেন। ট্রেইলের মধ্য দিয়ে হাটতে হাটতেই আপনি দেখতে পাবেন আদিবাসীদের গড়ে তোলা চমৎকার সব লেবু বাগান। এখানে আরো রয়েছে সৃজন করা আগর বাগান, পাম বাগান ও সেগুন বাগান। আপনার ভাগ্য ভালো হলে আপনি দেখতে পাবেন উল্লুক, মায়া হরিন ইত্যাদি প্রভৃতির বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীর। এদিকে গত বছর নতুন সংযোগযুক্ত হয়েছে ওয়াচ টাওয়ার। যার উপর থেকে আগত দর্শনার্থীরা উদ্যানের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারেন। বর্তমানে ২টি টিকেট কাউন্টার রয়েছে। টিকেটের প্রবেশ মূল্য ২০টাকা করে নেয়া হয়। পর্যটকদের সুবিধার্তে এখানে পর্যটন পুলিশ ও ইকো গাইড নিয়োগ করা হয়েছে। তাছাড়াও আপনি পাহাড়ি ছড়া দিয়ে হাটতে হাটতে সীমান্ত এলাকায় পৌছে গিয়ে ভারত বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকা দেখতে পাবেন। সীমান্তবর্তী এলাকায় বসবাস করে আরো বেশ কিছু আদিবাসী সম্প্রদায়ের লোকজন। এখানে এসে আপনি প্রকৃতির সান্যিধ্যে সময় কাটানোর পাশাপাশি দেখতে পারেন প্রকৃতির প্রথম আদিম মানব সন্তানদের। পাশাপাশি তাদের জীবনধারা ও সংস্কৃতি সর্ম্পকে সম্যক ধারনা ও জ্ঞান লাভ করতে পারেন। সম্প্রতি পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য চালু করা হয়েছে ১টি পুলিশ বক্স। তাছাড়াও বর্তমানে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে পর্যটকদের টিকেট কেটে প্রবেশ প্রথা চালু করা হয়েছে। তবে এখানে এখনো থাকার জন্য কোন রিসোর্ট বা হোটেল চালু করা হয়নি। নির্মানাধীন একটি রিসোর্ট উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে। যদি রিসোর্ট উদ্বোধন করা হয় তাহলে পর্যটকদের থাকার অসুবিধা দূর হওয়ার কারনে আরো বেশি সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে ভ্রমন করতে আসবেন বলে নিসর্গ রিসোর্টের কর্মকর্তারা মনে করেন। ১৯৭৪ সালে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সংশোধন আইনের বলে ২৪৩ হেক্টর এলাকা নিয়ে ২০০৫ সালে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান প্রতিষ্ঠা করা হয়। সাতছড়ি আগের নাম ছিলো ‘রঘুনন্দন হিল রিজার্ভ ফরেস্ট’। সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলার রঘুনন্দন পাহাড়ে অবস্থিত। বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা থেকে সড়ক পথে এর দূরত্ব ১৩০ কিলোমিটার। উদ্যানের কাছাকাছি ৯টি চা বাগান আছে। উদ্যানের পশ্চিম দিকে সাতছড়ি চা-বাগান এবং পূর্ব দিকে চাকলাপুঞ্জি চা বাগান অবস্থিত। উদ্যানের অভ্যন্তরভাগে ত্রিপুরা পাড়ায় একটি পাহাড়ী উপজাতির ২৪টি পরিবার বসবাস করে। এই ক্রান্ত্রীয় ও মিশ্র চিরহরিৎ পাহাড়ী বনভূমি ভারতীয় উপমহাদেশ এবং ইন্দো-চীন অঞ্চলের সংযোগস্থলে অবস্থিত।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com