সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:০১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের নদী খোকোদের তালিকা প্রকাশ ॥ শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান মাধবপুরে ছোট ভাইয়ের পিটুনীতে বড় ভাই খুন এমপি আবু জাহিরের প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জ সদর ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ ॥ আজ এক যোগে উদ্বোধন নবীগঞ্জে সন্ত্রাসী মুছা ১০ দিনেও অধরা কর আদায়ের উপর নির্ভর করে পৌরসভার উন্নয়ন-মেয়র ছাবির চৌধুরী নবীগঞ্জে নারী প্রতারক গ্রেপ্তার মানুষ বাঁচে তার কর্মে, বয়সের মধ্যে নয়-মিলাদ গাজী এমপি নবীগঞ্জে সাবেক ইউপি সদস্যের দাফন সম্পন্ন ॥ শোক প্রকাশ ‘হবিগঞ্জের মানুষ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী-মেয়র মিজান দুর্নীতি আর লুটপাটের মহাসাগরে নিমজ্জিত আওয়ামীলীগের পতন হবেই- জিকে গউছ
সন্ধ্যা নামলেই হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল এলাকা ভূতুড়ে পরিবেশে পরিণত হয়

সন্ধ্যা নামলেই হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল এলাকা ভূতুড়ে পরিবেশে পরিণত হয়

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সন্ধ্যা নামলেই হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল এলাকা ভূতুড়ে শহরে পরিণত হয়। হাসপাতাল খোলা থাকলেও জ্বলে না হাসপাতালের প্রধান ফটক বিভিন্ন স্থানের বাতি। অধিকাংশ ল্যাম্প পোষ্ট অকেজো থাকায় সন্ধ্যার পর ওই এলাকার সড়ক দিয়ে হাঁটাচলাও দায় হয়ে পড়ে। প্রায়শই ঘটছে দুর্ঘটনা।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে হাসপাতাল সড়ক ভূতুড়ে নগরে পরিণত হয়। আশপাশের সড়কগুলোর অধিকাংশ সড়ক বাতি অকেজো দেখা গেছে। হাসপাতাল এরিয়ার ভেতর যে কয়টি ল্যামপোষ্ট রয়েছে প্রায় সবগুলোই অকেজো হয়ে গেছে। এগুলো মেরামতের জন্য কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে। কিন্তু কেউ উদ্যোগ নেননি। কথা হয় অটো চালক রুস্তম আলীর সাথে। তিনি বলেন, ‘আপনারা কেডা চিনি না। তয় লাইটগুলান না জ্বলার কারণে অনেক অসুবিধা হয়। প্রায় গাড়ি এক্সিডেন্ট হয়।
পথচারি তোবারক হোসেন পা ফসকে হোচট খেয়ে পড়ে যান। কোনো মতে উঠেই ক্ষোভ ঝারলেন। বলেন, বাত্তিগুলান জ্বলে না। ঠিক করার খবর নাই। কতো মানুষ যে চিৎপটান খায় এর হিসাব নাই। এগুলান কি চোখে পড়ে না। পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা না থাকায় এ ধরণের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সাধারণ জনগণকে। আশপাশে বিভিন্ন ধরণের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুলো নিজ উদ্যোগে আলো জালিয়ে রাখলেও সরকারিভাবে সেরকম কোন আলো বা ল্যম্প পোষ্টের ব্যবস্থা নেই বললেই চলে। যে কয়েকটা ল্যাম্পপোষ্ট এখানে আছে সেগুলো অকেজো হয়ে পড়ে আছে। মনে হয় দেখার যেন কেউ নেই। আলোর ব্যবস্থা না থাকায় বেড়ে চলেছে বিভিন্ন ধরণের আইন বিরোধী কর্মকান্ড। রাতের আধারে অনেক মাদকসেবী অন্ধকারের সুযোগ নিয়ে এসব এলাকায় নির্দ্বিধায় চালিয়ে যাচ্ছে মাদক সেবনের কাজ। শুধু তাই নয় রাতের আধারে মাদক ব্যবসায়ীরাও এর ফায়দা লুটছে বলে একাধিক সুত্রে জানা গেছে। সদরের বিভিন্ন রাস্তার পাশে, দোকানের পিছনে, পরিত্যক্ত জায়গা গুলোতে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মাদক সেবনের পর খালি বোতল ফেলে রেখে যায় মাদকসেবীরা। যাতে করে নষ্ট হচ্ছে এলাকার ভাবমুর্তিসহ উঠতি বয়সের তরুণরা।
এ ব্যাপারে সদর হাসপাতালের আরএমও দেলোয়ার হোসেন জানান, বারবার গণপূর্ত বিভাগকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। তারা কোন উদ্যোগ নিচ্ছেন না। গণপূর্ত বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com