মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ০৬:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীমঙ্গলে যুবলীগ নেতা সেলিমের উদ্যোগে সাড়ে ৫শ অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে ড. রেজা কিবরিয়ার পক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জে শেষ হয়েছে ৫দিন ব্যাপি ইয়ূথ এসোসিয়েশন অব ইউকে এর খাদ্য সহায়তা বিতরণ নবীগঞ্জে গৃহহীন দুই বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধাকে সেনাবাহিনীর বাসস্থান উপহার আলমগীর চৌধুরীর সৌজন্যে নবীগঞ্জে ১৬৫ পরিবারকে ঈদ উপহার প্রদান নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা “বঙ্গবন্ধু ছাত্র একতা পরিষদ” নেতা রায়হান এর উদ্যোগে ইফতার বিতরণ এখন প্রমান করার সময় মানুষ মানুষের জন্য-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম অনাহারী মুখ খাবার তুলে দিচ্ছেন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম বাগুনিপাড়া ডিফেন্স হোল্ডার এ্যাসোসিয়েশন ঈদ উপহার বিতরন
যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশসহ ২৫ দেশের মুসলমানদের বিশেষ নজরদারি বন্ধ

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশসহ ২৫ দেশের মুসলমানদের বিশেষ নজরদারি বন্ধ

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ বাংলাদেশসহ ২৫ মুসলিম দেশের লোকজনকে ভিসা প্রদানে কড়াকড়িসহ যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের সময় বিশেষ নিবন্ধন কর্মসূচি পুনরায় চালুর পথ রুদ্ধ করা হলো। দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যাতে খুব সহজে মুসলমানদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশকালে বিশেষ কড়াকড়ি এবং যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত মুসলিম অভিবাসীদের বিশেষ নজরদারিতে আনার অভিসন্ধি পূরণে সক্ষম না হন সে জন্যেই প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার নির্দেশে ২২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার মার্কিন হোমল্যান্ড সিকিউরিটি মন্ত্রণালয় ‘ন্যাশনাল সিকিউরিটি এন্ট্রি-এক্সিট রেজিষ্ট্রেশন সিস্টেমকে’ (এনএসইইআরএস) বিলুপ্ত ঘোষণা করেছে। ফেডারেল রেজিস্টারেও তা প্রকাশ করা হয়েছে। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে সন্ত্রাসী হামলার পরিপ্রেক্ষিতে তদানীন্তন প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশের নির্দেশ অনুযায়ী ২০০৩ সালে ‘এনএসইইআরএস’ চালু করা হয়। প্রথম দফায় ইরান, ইরাক, লিবিয়া, সুদান এবং সিরিয়ার নাগরিকদের জন্যে এ প্রক্রিয়া বহাল হয়। এরপর দ্বিতীয় দফায় যুক্ত করা হয় আফগানিস্তান, আলজেরিয়া, বাহরাইন, ইরিত্রিয়া, লেবানন, মরক্কো, নর্থ কোরিয়া, উমান, কাতার, সোমালিয়া, তিউনিশিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং ইয়েমেনকে। তৃতীয় দফায় পাকিস্তান ও সউদি আরব এবং শেষ দফায় বাংলাদেশ, মিশর, ইন্দোনেশিয়া, জর্ডান এবং কুয়েতকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এসব দেশের অভিবাসীদের নির্দিষ্ট স্থানে গিয়ে তালিকাভুক্ত হতে হয়। যুক্তরাষ্ট্র থেকে নিজ দেশে যাবার সময় নির্দিষ্ট এয়ারপোর্ট গিয়ে পৃথক কর্তৃপক্ষের জিজ্ঞাসাবাদ ও তল্লাশির প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হয়। একইভাবে এসব দেশ থেকে ইমিগ্র্যান্ট, নন-ইমিগ্র্যান্ট ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে আসার সময় বিশেষ মনিটরিংয়ের আওতায় এয়ারপোর্ট অতিক্রমের সঙ্গে সঙ্গে নিজেদের নাম-ঠিকানাসহ টিপসই লিপিবদ্ধ করতে হয়। অর্থাৎ মুসলমানদের বিশেষ নজরদারিতে রাখা হয়। ২০১১ সালের এপ্রিল পর্যন্ত বহাল ছিল এই প্রক্রিয়া। এ সময়ের মধ্যে অবশ্য তালিকাভুক্ত একজনকেও সন্ত্রাসে লিপ্ত থাকতে দেখা যায়নি। তবে তালিকাভুক্ত ৮৩ হাজার জনের মধ্যে ১৩ হাজারকেই যুক্তরাষ্ট্র থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে অভিবাসনের বৈধতা না থাকায়। এছাড়া, ওই সব দেশ থেকে আসা আড়াই লাখ ভিসাধারীকে ব্যাপক তল্লাশি ও জিজ্ঞাসাবাদেও সন্ত্রাসে লিপ্ত থাকার কোন আলামত পাওয়া যায়নি।
এই কর্মসূচিকে যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের পরিপন্থী হিসেবে অভিহিত করে মানবাধিকার ও অভিবাসীদের অধিকার ও মর্যাদা নিয়ে কর্মরত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলোর পক্ষ থেকে আন্দোলনের এক পর্যায়ে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার নির্দেশে তা অকার্যকর ঘোষণা করা হয় ২০১১ সালে। তবে তা যেকোনো সময় পুনরুজ্জীবিত করার সুযোগ ছিল। বিশেষ করে গত নভেম্বরের নির্বাচনের আগে রিপাবলিকান পার্টির প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প সন্ত্রাস বিরোধী পদক্ষেপের অংশ হিসেবে মুসলিম রাষ্ট্রেকে যুক্তরাষ্ট্রে আসার পথ বন্ধ করার কথা বলেন। ৮ নভেম্বরের নির্বাচনে জয়ী হবার পর সে মনোভাবের পুনঃপ্রকাশ ঘটিয়ে ট্রাম্পের উপদেষ্টারাও ইঙ্গিত দিয়েছেন এনএসইইআরএস পুনরুজ্জীবিত করার। সর্বশেষ বার্লিন ও তুরস্কে সন্ত্রাসী হামলার পর নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজেও সদম্ভে ঘোষণা করেছেন যে, ‘আমার সংশয় সত্যে পরিণত হচ্ছে।’ অর্থাৎ মুসলমানদের আশ্রয় দেয়ার অর্থ হচ্ছে সন্ত্রাসীদের অভ্যর্থনা জানানো। এমনি অবস্থায় নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের এটর্নি জেনারেল জেনারেল এরিক স্নাইডার এবং নিউইয়র্ক সিটি মেয়র বিল ডি ব্লাসিয়ো গত সপ্তাহে হোমল্যান্ড সিকিউরিটির মাধ্যমে হোয়াইট হাউজের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন যে, ‘ধর্মীয় ও জাতিগত কারণে কোনো নাগরিককে বিশেষ নিবন্ধন প্রক্রিয়ায় আনার অধিকার দেয়নি যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান। নয়া প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তেমন প্রক্রিয়া অবলম্বনের কথা বলছেন, যা মার্কিন সমাজকে বিভক্ত করতে পারে। এমন পদক্ষেপ খুব সহজে গ্রহণের সুযোগ রয়েছে ‘এনএসই্ইআরএসকে’ পুনরুজ্জীবিত করে।’ এ ব্যাপারে প্রেসিডেন্ট ওবামাকে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের আহবানও জানান ডেমোক্র্যাটিক পার্টির এই সিটি মেয়র ও স্টেট এটর্নি জেনারেল। একই আহবান জানিয়ে ১২ ডিসেম্বর দুই শতাধিক মানবাধিকার, সিভিল লিবার্টিজ এবং ধর্মীয় গ্র“পের পক্ষ থেকে সম্মিলিত একটি স্মারকলিপি দেয়া হয় হোয়াইট হাউজে।
এ প্রসঙ্গে ‘পেন স্টেট ল’ ইউনিভার্সিটির সেন্টার ফর ইমিগ্র্যান্টস রাইটস ক্লিনিকের পরিচালক সোভা সিভাপ্রসাদ জানান, ‘ট্রাম্প যদি একই প্রক্রিয়া অবলম্বন করতে চান কিংবা মুসলমানদের আগমন নিষিদ্ধ করতে চান, তাহলে তাকে নয়া একটি অধ্যাদেশ জারি করতে হবে। এই অধ্যাদেশের ব্যাপারে জনমত যাচাইয়ের প্রয়োজন হবে। এ জন্যে বেশ ক’মাস সময়ের দরকার। এমনি অবস্থায় হয়তো সারা আমেরিকায় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে জনমত সোচ্চার হয়ে উঠবে। বহুল বিতর্কিত এনএসইইআরএসকে ফেডারেল নথি থেকে মুছে ফেলার এই নির্দেশ জারির পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশিসহ মুসলিম অভিবাসীদের মধ্যে স্বস্তি এনেছে।
‘দেশীজ রাইজিং আর এ্যান্ড মুভিং’ এর সংগঠক কাজী ফৌজিয়া বলেন, ‘বিশেষ ধর্মীয় জনগোষ্ঠীর সঙ্গে বৈষম্য প্রদর্শনের কোনো অধিকার নেই এই যুক্তরাষ্ট্রে। সকল ধর্ম ও জাতিগোষ্ঠীতেই দুষ্ট লোক রয়েছে। তাই, কতিপয় সন্ত্রাসীর জন্যে মুসলিম অভিবাসীদের বিশেষ নজরদারির পদক্ষেপকে কখনোই বিনা চ্যালেঞ্জে ছেড়ে দেয়া হবে না। জর্জ বুশের নির্দেশ জারির পরপরই যেভাবে আমরা রাজপথে নেমেছিলাম, এখনও একই পন্থা অবলম্বন করতে বাধ্য হবো যদি ট্রাম্প গণবিরোধী ও সংবিধান বিরোধী কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।’

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com