সোমবার, ০১ Jun ২০২০, ০১:৩৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
এমপি আবু জাহির এর প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জে হতে যাচ্ছে করোনা পরীক্ষার ল্যাব জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক নবীগঞ্জে মাসিক আইনশৃংঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত লাখাইয়ে পরীক্ষায় ফেল করায় কিশোরী আত্মহত্যা করোনায় চুনারুঘাটে সেলুন ব্যবসায়ীরা দিশেহারা নবীগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৭৯.৩১% জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৬ জন ভারতীয় নাগরিকদের হাতে নিহত বাংলাদেশীর লাশ ৬ দিন পর বিজিবির কাছে হস্তান্তর হবিগঞ্জে দুই গ্রামবাসির সংঘর্ষে আহত ৫০ নবীগঞ্জে পুলিশের হস্তক্ষেপে সংঘাত থেকে রক্ষা পেল গ্রামবাসী বানিয়াচঙ্গে কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টা ॥ লম্পট গ্রেফতার
হবিগঞ্জের বার্তা সম্পাদকদের মতবিনিময় সভা বক্তারা পূর্ণাঙ্গভাবে গ্রাম আদালতের কার্যক্রম চালু হলে ॥ গ্রামের বিচার গ্রামেই হবে যেতে হবে না আদালতে

হবিগঞ্জের বার্তা সম্পাদকদের মতবিনিময় সভা বক্তারা পূর্ণাঙ্গভাবে গ্রাম আদালতের কার্যক্রম চালু হলে ॥ গ্রামের বিচার গ্রামেই হবে যেতে হবে না আদালতে

মোঃ কাউছার আহমেদ ॥ “ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় গ্রাম আদালতের ভুমিকা” শীর্ষক এক মতবিনিময় সভা গতকাল শুক্রবার বিকালে দৈনিক হবিগঞ্জ এক্সপ্রেস পত্রিকার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। ম্যাস লাইন মিডিয়া সেন্টার এমএমসি’র সহযোগীতায় ও হবিগঞ্জ স্থানীয় সরকার সাংবাদিক ফোরামের উদ্যোগে আয়োজিত সভায় উঠে আসে গ্রাম আদালত সম্পর্কে বিভিন্ন দিক। জেলা স্থানীয় সরকার সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি ও দৈনিক খোয়াই পত্রিকার যুগ্ম সম্পাদক হারুনুর রশিদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম কোহিনুর এর পরিচালানয় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন, ম্যাস লাইন মিডিয়া সেন্টার এমএমসি’র সিলেট বিভাগীয় আঞ্চলিক কর্মকর্তা মোঃ মিজানুর রহমান, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক হবিগঞ্জ এক্সপ্রেস পত্রিকার সম্পাদক মোঃ ফজলুর রহমান, দৈনিক আয়না’র সম্পাদক মোঃ রাশেদ আহমেদ খান, স্বর্দেশ বার্তার বার্তা সম্পাদক মুজিবুর রহমান, সাপ্তাহিক জনতার দলিল পত্রিকার সম্পাদক মামুন চৌধুরী।
সভায় বক্তারা বলেন, পল্লী এলাকার জনসাধারণ তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে থানা পুলিশ আর কোর্ট-কাচারীর দারস্ত হচ্ছেন। গ্রাম আদালত সরকার একটি যুগন্তকারী পদক্ষেপ কিন্তু এই গ্রাম আদালত প্রয়োজনীয় লোকবল, আইনের জটিলতা ও সঠিক প্রচার প্রচারণার অভাবে এখনও জিমিয়ে রয়েছে।  প্রয়োনীয় লোকবল নিয়োগ করে পূর্ণাঙ্গভাবে গ্রাম আদালত চালু করতে পারলে “গ্রামের বিচার গ্রামেই হবে, কোর্ট কাচারী লাঘবে” বলে মন্তব্য করেন বক্তারা।
বক্তারা বলেন, লোকবল এবং আইনকে আরো যোগোপযোগি করাসহ সরাসরি রায় বাস্তবায়নের ক্ষমতা গ্রাম আদালতকে প্রদান করা হলে গ্রাম আদালত জন চাহিদার প্রেক্ষিতেই পূর্ণাঙ্গভাবে সক্রিয় হবে। গ্রাম আদালত সচল হলে স্বল্প খরচে মানুষ বিচার পাবে এবং উচ্চ আদালতে মামলার জট কমে যাবে।
প্রসঙ্গত গ্রামীণ জনগোষ্ঠিত কাছে স্বল্প খরচে ন্যায় বিচারের সুফল পোঁছে দিতে ১৯৭ সালে ‘ গ্রাম আদালত অধ্যাদেশ’ জারি করে তৎকালীন সরকার। পরবর্তীতে কিছু সংশোধনের পর ২০০৬ সালে এই আদেশটিকে ‘গ্রাম আদালত আইন নামে’ রূপান্ত করা হয়।
কিন্তু গ্রাম আদালত চালু হলেও গ্রামীণ এলাকার জনগণ এ সম্পর্কে অজ্ঞাত, যে কারণে মানুষ তুচ্ছ ঘটনা নিয়েও থানা ও আদালতের বারেন্দায় ভীড় জামাচ্ছেন। গ্রামের সাধারণ মানুষ, গ্রাম আদালত কি তা জানেনা। ফলে গ্রাম আদালত তাদের উপকারেও আসছেনা। ভিলেজ পলিটিক্স, পক্ষ-বিপক্ষ রাজনীতি কবলে পড়ে প্রতারিত হচ্ছে গ্রামের সাধারণ মানুষ। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গ্রামীণ এলাকায় চলছে হানাহানি, রক্তপাত ও সংঘর্ষ। এসব বিষয়ে এক পক্ষ অন্য পক্ষকে ঘায়েল করতে সামান্য এ সকল ঘটনাকে নিয়ে তারা যাচ্ছে থানা পুলিশ ও আদালতের বারান্দায়। পল্লী এলাকার জনগণকে সচেতন করে তুলতে পারলে গ্রাম আদালত পূর্ণাঙ্গতা আসতে পারে। এতে বুঝা যায়, যে একমাত্র জন সচেতনার অভাবেই গ্রাম আদালত পূর্ণাঙ্গ রূপ পাচ্ছে না।
অন্য দিকে গ্রাম আদালত সম্পর্কে আদালতে দায়িত্বরত বিচারকদের দক্ষতার অভাব, যে কারণে গ্রাম আদালত এখন পর্যন্ত কাঙ্খিত মানে উন্নতি হয়নি। ভিলেট পলিটিক্স ও গ্রামও রাজনীতির কারণে অনেক চেয়ারম্যান এখনও গ্রাম আদালত প্রতিষ্ঠার কোন উদ্যোগই গ্রহণ করেন নি। আবার ভোটের হিসাব মিলাতে কোন কোন ইউনিয়ন পরিষদে গ্রাম আদালত গড়ে উঠছে না। তবে সরকারি-বেসরকারিভাবে গ্রামীণ অঞ্চলে যথেষ্ট প্রচার প্রচারণা চালালে এই আদালতের প্রতি মানুষের আস্থা আরো বৃদ্ধি পাবে। জনগণ গ্রাম আদালতের সুফল ভোগ করতে পারবেন।  এ ক্ষেত্রে গ্রাম আদালতের বিচারকের ভূমিকা অবতীর্ণ ব্যক্তিদের যথাযত আইনি প্রশিক্ষন গ্রহণ করা প্রয়োজন। আর এতে গ্রাম আদালত কার্যকর হবে, সুফল পাবে জনগণ।
গ্রাম আদালতে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা হলে তৃণমূল মানুষের সামগ্রীক উন্নয়নকে কার্যকর করে তুলবে। গ্রাম আদালত পূর্ণাঙ্গভাবে প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের প্রতিষ্ঠিত হলে, এর সুবিধা সাধারণ জনগণ ভোগ করতে পারবে। তবে গ্রাম আদালত প্রতিষ্ঠিত করতে হলে প্রথমই জনগণকে আগে গ্রাম আদালত সম্পর্কে আরো সচেতন করতে হবে।
উল্লেখ্য-গবীর মানুষের ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে ও উচ্চ আদালতে মামলার জট কমাতে এবং সাধারণ মানুষের দোরগড়ায় আইনীসেবা পৌঁছে দিতে ১৯৭৬ সালে গ্রাম আদালতের যাত্রা শুরু হয়। কিন্তু এখনও এই কার্যক্রম পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তাবায়ন হচ্ছে না। সঠিক প্রচার প্রচারণা ও গ্রাম আদালত সম্পর্কে জনসাধারনের অজ্ঞতাই এর একমাত্র কারণ। এক্ষেত্রে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, মেম্বারগণ সবচেয়ে বেশি কার্যকরি ভূমিকা রাখতে পারেন। তারা এলাকায় জনসচেতনতা সৃষ্টি করে গ্রাম আদালতের বিচার কার্যক্রম চালু করতে পারলে, এক দিকে আদালতের মামলার জট কমে অন্য দিকে জনগণ স্বল্প খরচে দ্রুত বিচারের সুফল পাবে।
কম খরচে দরিদ্র, অনগ্রসর, নারী, প্রতিবন্ধী, সুবিধাবঞ্চিত ও ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠির জন্য সামাজিক নিরাপত্তা ও বিচার প্রাপ্তির সুযোগ নিশ্চত করা, উচ্চ আদালতে মামলার চাপ কমানো এবং সামাজিক ন্যায্যতা নিশ্চিত করতেই গ্রাম আদালত গঠন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com