সোমবার, ১০ অগাস্ট ২০২০, ০১:৫২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচংয়ে মাছ ধরা নিয়ে দুই গ্রামবাসীর ভয়াবহ সংঘর্ষ নবীগঞ্জে রাতে নিখোঁজ ব্যক্তির সকালে ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধার বঙ্গমাতা ছিলেন বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের অন্যতম অগ্রদূত ॥ এমপি আবু জাহির শহরে টমটমসহ যানবাহনের ডাবল ভাড়া কমানোর দাবি নবীগঞ্জে দুইটি বিদ্যালয়ের নাম নিয়ে হাস্যরস ॥ গন্ধা গ্রামের স্কুলের নাম ‘গনজা স:প্রা:বি’ খনকারিপাড়া গ্রামে ‘ঋণকারীপাড়া স:প্রা:বি’ বঙ্গমাতার জন্ম দিবসে হবিগঞ্জ জেলা আ.লীগের মিলাদ ও দোয়া মাহফিল বাহুবলে গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন এর ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভা নবীগঞ্জের দিলীপ ভট্টাচার্য্যের মৃত্যুতে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আ.লীগ সাধারণ সম্পাদকের শোক বাইপাস থেকে মোটর সাইকেলসহ এক মাদক বিক্রেতা আটক
মাদক মামলায় তিন আসামীর যাবজ্জীবন

মাদক মামলায় তিন আসামীর যাবজ্জীবন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মাদক মামলায় তিন আসামীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ। একই সাথে তাদের প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ৬ মাসের কারাদন্ড এবং এক আসামীকে খালাস দেয়া হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে বিজ্ঞ বিচারক মাফরোজা পারভীন এ দন্ডাদেশ প্রদান করেন। দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হল, মাধবপুর উপজেলার কৃষ্ণনগর গ্রামের হামিদ পাঠানের পুত্র চমক পাঠান (৩৫) ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগর থানার ধৃতপুর গ্রামের নুরুল ইসলামের পুত্র গাজিউর রহমান (৩০) এবং শরতপুর গ্রামের রশিদ মিয়ার পুত্র ফজলুল করিম (৪০)। খালাস প্রাপ্ত আসামী হল মাধবপুর উপজেলার আদাঐর গ্রামের গোপাল চক্রবর্তীর পুত্র প্রিয়তোষ চক্রবর্তী। রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত পিপি ছালেহ আহমেদ।
মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০০৫ সালের ৯ আগষ্ট মাধবপুর থানা পুলিশ পশ্চিম বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে একটি ঘর থেকে ভারতীয় নিষিদ্ধ ৪৪ বোতল ফেনসিডিল ও ৫০ বোতল কোরেক্স উদ্ধার করে। এ সময় চমক পাঠান ও প্রিয়তোষকে আটক করা হয়। অপর দুইজন পালিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে মাধবপুর থানার তৎকালীন এসআই এরশাদ উল্লা বাদি হয়ে ১০ আগষ্ট ১৯৯০ইং সনের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন (১৯) ক ধারায় মামলা দায়ের করেন। ২০০৫ সালের ২২ অক্টোবর তদন্ত শেষে পুলিশ ৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দাখিল করে। পুলিশসহ ১০ জন স্বাক্ষির জবানবন্দি শেষে গতকাল আদালত এ রায় প্রদান করেন। রায় চলাকালে চমক পাঠান ও প্রিয়তোষ চক্রবর্তী কোর্ট হাজতে ছিল। এ ছাড়া গাজিউর রহমান জীবন ও ফজলুর করিম পলাতক ছিল। আদালতের আদেশ মতে প্রিয়তোষ চক্রবর্তীকে কোট হাজতে মুক্তি দেয়া হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com