বৃহস্পতিবার, ১৮ Jul ২০১৯, ১১:২৮ পূর্বাহ্ন

নবীগঞ্জে শীতের আগমনী বার্তায় ॥ ব্যস্ততা বেড়েছে লেপ তোষক কারিগরদের

নবীগঞ্জে শীতের আগমনী বার্তায় ॥ ব্যস্ততা বেড়েছে লেপ তোষক কারিগরদের

কিবরিয়া চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ দরজায় কড়া নাড়ছে শীত। শীতের এই আগমনী বার্তায় ব্যস্ততা বেড়েছে নবীগঞ্জে লেপ-তোষক তৈরির কারিগরদের। এখন অলস সময় কাটানোর একদম ফুসরত নেই তাদের। শীত মানেই প্রশান্তির ঘুমের জন্য সবচেয়ে উপযোগী ঋতু। তবে সেই প্রশান্তির ঘুমের সাথে শীতকে মোকাবেলা করে ঘুমাতে প্রয়োজন শীতবস্ত্রের। সেই শীতবস্ত্রের সবচেয়ে পছন্দের তালিকায় থাকে লেপ। আর তাই শীত মৌসুম এলেই অন্তত ৩টি মাস তাদের ব্যস্ততা বেড়ে যায় যেকোনো সময়ের চেয়ে অনেক গুণ বেশী। তাই তারা অন্য সময়ের রোজগার পুষিয়ে নিতে এ ৩টি মাস কাজ করেন সমান তালে। বাকি ৯ মাস এ কাজের চাহিদা না থাকায় লেপ সেলাই কর্মীরা জীবিকা নির্বাহের জন্য অন্য কাজে মনোনিবেশ করে। কেউ নেমে পড়ে রিকশা-ভ্যান চালাতে, কেউ মাঠে দিনমজুরের কাজ নেয়, আবার কেউ কেউ তাদের সুবিধামত বেছে নেয় অন্য পেশা।
আউশকান্দি বাজারে ফুলসজ্জা বেডিং ব্যবসায়ী আজমান আলী জানান, বছরের অন্যান্য সময় মাসে ২/৩ জন তোষক কিনতে আসলেও লেপের চাহিদা একেবারেই থাকে না। শীতের শুরু থেকে অন্তত ৩টি মাস লেপ ও তোষক বেশি বিক্রি হয়ে থাকে। সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়ে থাকে লেপ। যে কারণে চাহিদার কথা মাথায় রেখে লেপ সেলাই কর্মীদের সংখ্যাও বাড়াতে হয়। তিনি বলেন, বর্তমানে আমার এখানে ১০-১৫ জনের উপরে লেপ সেলাইয়ের কর্মী রয়েছেন। অন্য সময় এ ব্যবসা ধরে রাখতে মাত্র ২/৩ জন লেপ ও তোষক সেলাইয়ের কাজ করে থাকে। শীত মৌসুম শেষ হলেই এখানে কাজ না থাকায় বাকি লেপ সেলাই কর্মীরা অন্য পেশায় চলে যায়। তিনি আরো জানান, এখানে পাইকারী দামে হকারদের কাছে রেডিমেট লেপ ও তোষক বিক্রি করা হয়। হকাররা লেপ-তোষক সাজিয়ে নিয়ে গ্রামে গ্রামে ঘুরে সাড়ে ৭ থেকে ৮শ টাকা দরে প্রতিটি লেপ ও এক হাজার থেকে ১২শ টাকায় তোষক বিক্রি করে। পাশাপাশি এখানে ভালো লেপ তৈরির অর্ডারও নেয়া হয়। সে ক্ষেত্রে লেপ অনুযায়ী দাম ১ হাজার থেকে ১৩শ’ টাকা পড়ে। শাহজালাল (রঃ) বেডিং এর সেলাই কর্মী মোজাহিদ বলেন, সেলাই কাজ করলে অন্তত ৩টি মাস কোথাও কাজের জন্য ধর্ণা দিতে হয় না। ছায়ায় বসে সেলাইয়ের কাজ করতে বেশ ভালোই লাগে। দিন শেষে চারশ থেকে পাঁচশ টাকা রোজগার হয়। শীত মৌসুম শেষে অন্য কাজে গেলে প্রতিদিন গড় রোজগার ২শ টাকা করা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। সংসার চালানো কঠিন হয়ে যায়। যে কারণে এ মৌসুমে রোজগার অনেকটা পুষিয়ে নিতে আমরা ৩ মাস লেপ সেলাইয়ের কাজ করে থাকি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com