শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ০৩:২৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতীয় নাগরিকের পিটুনীতে বাংলাদেশী খুন ॥ লাশের অপেক্ষায় স্বজনরা বানিয়াচংয়ের বিভিন্ন বাজারে সেনাবাহিনীর জনসচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শ্রীমঙ্গলে ৬৭ টি মামলায় ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা নবীগঞ্জে সরকারের অর্থ সহায়তার তালিকায় নারী কাউন্সিলরের পরিবারের ৬ সদস্যের নাম শচীন্দ্র লাল সরকারের সমাধীতে জেলা সিপিবি, উদীচী, কিবরিয়া ফাউন্ডেশন, সচেতন নাগরিক কমিটি ও মাতৃছায়া কেজি এন্ড হাইস্কুলের পুষ্পস্তবক অর্পন দৈনিক খোয়াই পত্রিকার সার্কুলেশন ম্যানেজার সাইফুলের পিতার ইন্তেকাল নবীগঞ্জে ভাতিজার হাতে চাচা খুন শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর আব্দুল আহাদের মৃত্যু বানিয়াচঙ্গের হাওর থেকে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার হবিগঞ্জে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১
নবীগঞ্জ বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্র বিক্রির প্রস্তাব অনুমোদন

নবীগঞ্জ বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্র বিক্রির প্রস্তাব অনুমোদন

এম এ বাছিত/কিবরিয়া চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জে বিবিয়ানাসহ তিনটি গ্যাসক্ষেত্র বিক্রির প্রস্তাব অনুমোদন হওয়ায় শেভরনে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। মার্কিন কোম্পানী শেভরন তিনটি গ্যাসক্ষেত্র বিক্রয়ের উদ্যোগ পেট্রোবাংলাকে অবহিত করেছে। এরই প্রেক্ষিতে পেট্রোবাংলার তরফ থেকে জালালাবাদ, বিবিয়ানা ও মৌলভীবাজার গ্যাসক্ষেত্র বিক্রয়ের প্রস্তাব উত্থাপিত হয়। তিনটি গ্যাসক্ষেত্রে প্রায় সাত শতাধিক শ্রমিক ও কর্মচারী নিয়োগ করে শেভরণ কর্তৃপক্ষ। শ্রমিক ও কর্মচারী নিয়োগ দিয়ে ২০০৫ সালে মৌলভীবাজার এবং ২০০৭ সালে বিবিয়ানায় গ্যাস উৎপাদন শুরু করে শেভরন। বিবিয়ানার ৬টি ক্ষেত্র থেকে জ্বালানী চাহিদার প্রায় ৬৫ শতাংশ গ্যাস জাতীয় গ্রীডে সঞ্চালন হচ্ছে। শেভরনে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারী সূত্রে প্রকাশ, বিবিয়ানাসহ তিনটি গ্যাসক্ষেত্র বিক্রির জন্য প্রাথমিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছে বহুজাতিক মার্কিন কোম্পানী শেভরন। ওই তিন ক্ষেত্র হচ্ছে-সিলেটের জালালাবাদ, নবীগঞ্জের বিবিয়ানা এবং মৌলভীবাজারের গ্যাসক্ষেত্র। এই তিন গ্যাসক্ষেত্রের স্বত্ব ক্রয় প্রক্রিয়ায় অংশ নেয়ার নিমিত্তে বাংলাদেশের পেট্রোবাংলার প্রস্তাব অনুমোদন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত সোমবার তিনি এ অনুমোদন দেয়ার খবরে তিনটি ক্ষেত্রে কর্মরত শ্রমিক ও কর্মচারীদের মধ্যে ছাঁটাই আতংক দেখা দিয়েছে। পেট্রো বাংলা, সরকার ও শেভরনের স্বত্ব ক্রয়ে অর্থ লগ্নির আগ্রহ প্রকাশ করেছে তিনটি আর্থিক কোম্পানী। বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ গণমাধ্যমকে বলেন, গ্যাসক্ষেত্রে অর্থলগ্নি ও পেট্রোবাংলার আগ্রহের কথা শেভরনকে জানানো হয়েছে। গ্যাসক্ষেত্র তিনটির বিক্রয় ও হস্তান্তর প্রক্রিয়া নিয়ে পেট্রোবাংলা প্রস্তুতি শুরু করেছে। এদিকে, মার্কিন কোম্পানী শেভরন গ্যাসক্ষেত্র বিক্রি করলে কোম্পানীতে কর্মরত প্রায় সাত শতাধিক কর্মকর্তা ও কর্মচারীর ভবিষ্যত কি হবে এনিয়ে উৎকণ্ঠায় তারা। কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে ছাঁটাই আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কোম্পানী আইন অনুযায়ী মুনাফার ৫ শতাংশ ওয়ার্কার্স পার্টিসিপেশন ফান্ডের টাকা জমা করেনি শেভরন। গত সপ্তাহ থেকে কোম্পানীর কর্মীদের শেভরনের তরফ থেকে বাণিজ্যিক প্রক্রিয়া অবহিত করা হয়। প্রত্যাশিত ক্রেতা পেলে কোম্পানীর স্বত্ব হস্তান্তর প্রক্রিয়া পুরোদমেই চলছে। যে কোন মুহুর্তে হস্তান্তর প্রক্রিয়া চুড়ান্ত হতে পারে। এনিয়ে শেভরনে কর্মরত কর্মীরা কর্মসংস্থান ছাড়াও তাদের দেনা পাওনা নিয়ে উদ্বিগ্ন। ইতিপূর্বে ইউনোকলের স্বত্ব ক্রয়ের পর তাদের অধিকাংশ কর্মীকে রেখে দেয় শেভরন। নতুন করে ক্রেতা কোম্পানীর কৌশল কি হবে তা নিয়েও উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে।
শেভরন সূত্র জানায়, বিধিমালা মোতাবেক শেভরনের উত্তরাধিকার হিসেবে যে কোম্পানী আসবে তাদের উপরই কর্মরত কর্মীদের দায়দায়িত্ব বর্তাবে। সে ক্ষেত্রে নতুন কোম্পানী লোকবল কমাতে চাইলে সেই কোম্পানীর বিধিমালা অনুযায়ী ছাঁটাই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। শেভরনের স্বত্ব ক্রয়ে পেট্রোবাংলার যে অর্থ প্রয়োজন তা লগ্নি করতে আগ্রহ দেখিয়েছে চীন, ভারত ও হংকংয়ের তিনটি কোম্পানী। উৎপদন অংশীদারিত্ব চুক্তির (পিএসসি) আওতায় বর্তমানে শেভরন বিবিয়ানা, জালালাবাদ ও মৌলভীবাজারের গ্যাসক্ষেত্র পরিচালনা করছে। ১৯৯৫ সালে এই তিনটির বিষয়ে পিএসসি চুক্তি সই হয়। জালালাবাদ গ্যাসক্ষেত্রটি আবিস্কার করে বাপেক্স। পিএসসি সই হওয়ার পর শেভরন সেখানে ১৯৯৯ সালে উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু করে। ১৯৯৮ সালে বিবিয়ানা এবং ১৯৯৯ সালে মৌলভীবাজার গ্যাসক্ষেত্র আবিস্কৃত হয়। ২০১৪ সালে শেভরন বিবিয়ানায় গ্যাসক্ষেত্র সম্প্রসারণ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে। উল্লেখ্য, ১৯৯৭ সালে আবিস্কৃত নবীগঞ্জের কুশিয়ারা নদীর বিবিয়ানা প্রশাখায় ত্রিমাত্রিক ভূতাত্বিক জরিপ চালিয়ে গ্যাসের সন্ধান পায় মার্কিন কোম্পানী অক্সিডেন্টাল। প্রাথমিকভাবে ৪০ একর ভূমি অধিগ্রহণ করে ওই বছরই ড্রিলিং কাজ শুরু করে। সরকারী অনুমোদন সাপেক্ষে ’বিবিয়ানা গ্যাস ক্ষেত্র’ নামে খননের প্রাথমিক কাজ শুরু হয়। ৫টি কুপ খননের পর ২০০০ সালে অক্সিডেন্টাল বিবিয়ানার দায়িত্ব ইউনিকলের নিকট হস্তান্তর করে। ইউনিকল কিছু কার্যক্রম পরিচালনার পর ২০০৫ সালে শেভরনের নিকট সার্বিক দায়িত্ব হস্তান্তর করে। ২০০৭ সালে ৫মার্চ জাতীয় গ্রীডে বিবিয়ানার গ্যাস সঞ্চালনের শুরু হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com