বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৪৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল থেকে বাচ্চা চুরির ১ ঘন্টার মধ্যে উদ্ধার ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার কালো দিবসের আলোচনা ॥ তারেক জিয়ার মৃত্যুদন্ড দাবি করেছেন এমপি আবু জাহির বাহুবলে প্রকাশ্য দিবালোকে চা শ্রমিকদের ॥ ভাতার ১২ লাখ টাকা ছিনতাই অভিযানে অর্ধেক টাকা উদ্ধার বানিয়াচঙ্গে হত্যা মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান সহ ৪ আসামী বিরুদ্ধে নারাজীর আবেদনের শুনানীর তারিখ পিছিয়েছে কুলাউড়ায় ট্রাক-সিএনজি সংঘর্ষে ॥ চুনারুঘাটের ১ ব্যক্তি নিহত ॥ স্ত্রী-সন্তান আহত নবীগঞ্জে দু’দলের সংঘর্ষে আহত ৪ চুনারুঘাটে সাংবাদিক নাছিরের উপর হামলা ॥ প্রতিবাদে সভা শায়েস্তাগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে মোটরসাইকেল আটক হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বারাপইলে দুধ ব্যবসায়ীর উপর প্রতিপক্ষের হামলা ॥ নগদ টাকা ও মোবাইল লুট মাধবপুরে ২শ পিস ইয়াবা সহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার
ঘনিয়ে আসছে হবিগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচন ॥ নির্বাচনী মাঠ ছষে বেড়াচ্ছেন ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরী

ঘনিয়ে আসছে হবিগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচন ॥ নির্বাচনী মাঠ ছষে বেড়াচ্ছেন ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরী

মোঃ ছানু মিয়া ॥
ঘনিয়ে আসছে হবিগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচন। সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী ডিসেম্বরের মধ্যেই এ নির্বাচন সম্পন্ন করার কথা। আর নির্বাচনকে সামনে রেখে দলীয় নেতাকর্মী থেকে শুরু করে ভোটারদের ধারে ধারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরী। ভোটারদের দৃষ্টি কাড়তে তিনি বিভিন্নভাবে চালিয়ে যাচ্ছেন প্রচার প্রচারণা।
নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরাও। ইতিমধ্যেই মাঠে নেমে পড়েছেন তারাও। তবে প্রচারণায় চেয়ারম্যানের তুলনায় সদস্য প্রার্থীরা অনেক এগিয়ে। কয়েকজন অনেকটা আঁটঘাট বেঁধেই মাঠে নেমে পড়েছেন। তারা লিফলেট, কার্ড বিতরণও করছেন। ঘনিষ্টজনদের নিকট দোয়া, সহযোগিতা চাইছেন। কিন্তু বেশির ভাগ প্রার্থীই পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। আর চেয়ারম্যান পদে এখনও পর্যন্ত একমাত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনীয় মাঠে সক্রিয় রয়েছেন জেলা পরিষদের বর্তমান জেলা পরিষদ প্রশাসক ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরী। তিনি হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক দুই বারের সাধারণ সম্পাদক ও সফলতার সাথে গত কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরী দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে হবিগঞ্জ বিএমএ ও স্বাচিপের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। তিনি ইতিপূর্বে ওসমানী মেডিকেল কলেজের ভিপি ও সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন। তবে নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আরও দু’জনের নামও মাঝে মধ্যে শুনা যাচ্ছে। অপরদিকে মাঝে মাঝেই কিছু প্রচারণা করছেন জামায়াত নেতা অ্যাডভোকেট এনামুল হক মোশাহিদ। তিনি কার্ড ছাপিয়ে বিতরণও করছেন। তবে তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন কি-না তা নিয়ে রয়েছে সন্দেহে। যদি নির্বাচনে অংশ নেনও তবুও অপ্রতিদ্বন্দ্বিই থাকবেন ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরী। কারণ জেলায় জামায়াতের ভোট নেই বললেই চলে। বিএনপির ভোট সংখ্যাও একেবারেই নগণ্য। যা হিসেব করার মতো নয়।
এ ব্যাপারে মাধবপুর বহরা ইউপি চেয়ারম্যান আরিফ রহমান বলেন, বর্তমান জেলা পরিষদ প্রশাসক ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরী দীর্ঘ বছর ধরে জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসেবে দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে মুশফিক হুসেন চৌধুরী দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তাই আগামী জেলা পরিষদ নির্বাচনে তার কোন বিকল্প নাই।
চুনারুঘাট উপজেলার ইউপি সদস্য আকবর মিয়া বলেন, ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরী জেলা পরিষদের দায়িত্ব গ্রহণ পর থেকে গ্রামীণ এলাকর ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। অনেক অবহেলিত এলাকায় উন্নয়নের ছুয়া লেগেছে। এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে মুশফিক চৌধুরীকেই দলীয় প্রার্থী হিসেকে দেখতে চাই।
এদিকে এ নির্বাচন উপলক্ষে পুরো জেলাকে ১৫টি সাধারণ ও ৫টি সংরক্ষিত আসনে ভাগ করা হয়েছে। আসন বিন্যাস করতে গিয়ে একটি উপজেলার সাথে অপর অপর উপজেলার ইউনিয়নকে সংযুক্ত করা হয়েছে। এতে সাধারণ সদস্য ও সংরতি সদস্যসহ ভোটারদের মাঝে বিভ্রান্তি দেখা দিয়েছে।
জেলা পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, হবিগঞ্জ-১ আসনে রাখা হয়েছে আজমিরীগঞ্জ পৌরসভাসহ এ উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন এবং বানিয়াচং উপজেলার ৫নং দৌলতপুর ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-২ আসনে বানিয়াচং উপজেলা সদরের ১, ২, ৩ ও ৪নং ইউনিয়ন এবং ৬,৭ ও ৮নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-৩ আসনে একই উপজেলার ৯, ১০, ১১, ১২, ১৩, ১৪ ও ১৫নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-৪ আসনে নবীগঞ্জ উপজেলার ১, ২, ৩, ৪ ও ৫নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-৫ আসনে নবীগঞ্জ পৌরসভার সাথে রাখা হয়েছে ৬, ৭, ৮ ও ৯নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-৬ আসনে একই উপজেলার ১০, ১১, ১২, ১৩নং ইউনিয়ন এবং বাহুবল উপজেলার ১নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-৭ আসনে বাহুবল উপজেলার ২, ৩, ৪, ৫ ও ৭নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-৮ আসনে আছে হবিগঞ্জ পৌরসভাসহ সদর উপজেলার ৩, ৪, ৫ ও ১০নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-৯ আসনে সদর উপজেলার ১, ২, ৬, ৯ ও লাখাই উপজেলার ৫নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-১০ আসনে সদর উপজেলার শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভাসহ ৭ ও ৮নং ইউনিয়ন এবং বাহুবল উপজেলার ৬নং ও চুনারুঘাট উপজেলার ৭নং ইউনিয়ন রাখা হয়েছে। হবিগঞ্জ-১১ আসনে লাখাই উপজেলার ১, ২, ৩, ৪ ও ৬নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-১২ আসনে চুনারুঘাট উপজেলার ১, ২, ৩, ৪ ও ১০নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-১৩ আসনে চুনারুঘাট পৌরসভাসহ এ উপজেলার ৫, ৬, ৮ ও ৯নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-১৪ আসনে রাখা হয়েছে মাধবপুর উপজেলার ৬, ৭, ৮, ৯, ১০ ও ১১নং ইউনিয়ন। হবিগঞ্জ-১৫ আসনে রয়েছে মাধবপুর পৌরসভাসহ এ উপজেলার ১, ২, ৩, ৪ ও ৫নং ইউনিয়ন। আর সংরক্ষিত আসন করা হয়েছে হবিগঞ্জ-১, ২ ও ৩ নিয়ে হবিগঞ্জ সংরক্ষিত-১, হবিগঞ্জ-৪, ৫ ও ৬ নিয়ে হবিগঞ্জ সংরক্ষিত-২, হবিগঞ্জ-৭, ৮ ও ১০ নিয়ে হবিগঞ্জ সংরক্ষিত-৩, হবিগঞ্জ-৯, ১১ ও ১২ নিয়ে হবিগঞ্জ সংরক্ষিত-৪ এবং হবিগঞ্জ-১৩, ১৪ ও ১৫ নিয়ে হবিগঞ্জ সংরক্ষিত-৫ আসন গঠন করা হয়েছে। গত ২৪ সেপ্টেম্বর সীমানা নির্ধারণ করেছেন সীমা নির্ধারণ কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক সাবিনা আলম। এদিকে এ সীমানা নির্ধারণ নিয়ে প্রার্থী এবং ভোটারদের মাঝে স্পষ্ট কোন ধারণা তৈরী হয়নি। অধিকাংশরাই জানেননা কোন আসনের সীমানা কতটুকু। এ বিষয়ে আজমিরীগঞ্জের সাধারণ সদস্য পদপ্রার্থী অ্যাডভোকেট প্রসেনজিৎ জানান, তিনি হবিগঞ্জ-১ আসনের সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে মাঠে প্রচারণা শুরু করেছেন। কিন্তু স্পষ্ট করে বলতে পারেননা তার আসনে কোন কোন ইউনিয়ন রাখা হয়েছে। আবার পৌরসভার জনপ্রতিনিধিরা কি তার ভোটার কি-না তা নিয়েও তার মাঝে বিভ্রান্তি রয়েছে। কারণ তারা নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি না। আর নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ছাড়া কেউ জেলা পরিষদের ভোটার হতে পারবেননা বলে তিনি জানান। জেলায় মোট ভোট রয়েছে ১১০৩টি। এর মাঝে ৭৭টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত সদস্য, ৬টি পৌরসভার মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর এবং ৮টি উপজেলার চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানরা এ নির্বাচনের ভোটার হিসেবে গণ্য হবেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com