শনিবার, ১৭ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:৪৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সদর উপজেলার যমুনাবাদে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু চুনারুঘাটে চোরাই সেগুন কাঠ উদ্ধার যুক্তরাজ্যে হবিগঞ্জবাসীর উদ্যোগে ঈদ পূনর্মিলনী “আনন্দ সন্ধ্যা” নবীগঞ্জের বনকাদিপুর আমজাদ ॥ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আর নেই বঙ্গবন্ধু ছিলেন আধুনিক বাংলার স্বপ্নদ্রষ্টা ॥ এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু আহত সীমেরগাঁও গ্রামে সংঘর্ষে টেটাবিদ্ধ ২ জনসহ আহত ১০ সৌদি আরবের জেদ্দা কনস্যুলেট এর উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালন ॥ বিশেষ অতিথি হিসাবে মন্ত্রী মাহবুব আলীর যোগদান মাধবপুরে সাজাপ্রাপ্ত দুই আসামী গ্রেপ্তার নবীগঞ্জ উপজেলা ও পৌর জাতীয় পার্টির ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্টিত
মাদক চোরাচালান ॥ ঘাট লিডারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া আহ্বান

মাদক চোরাচালান ॥ ঘাট লিডারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া আহ্বান

চুনারুঘাট প্রতিনিধি ॥ বাল্লা সীমান্তের মাদকের ঘাট লিডার শহীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে চুনারুঘাট থানার ওসিকে বলা হয়েছে। গতকাল চোরাচালান ও আইনশৃঙ্খলা সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহমেদ জামিল এ নির্দেশ দেন। ওই সভায় চুনারুঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের, ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান মহালদার, কাজী সাফিয়া আক্তার, ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন খান, চৌধুরী শামসুন্নাহার, সৈয়দ লিয়াকত হাসান, ফারুক চৌধুরী, আব্দুর রশিদ, ফজলুর রহমান তরফদার সবুজ, বাল্লা, চিমটিবিল ও সাতছড়ি বিজিবি ক্যাম্পের সুবেদারগণসহ বিভাগীয় কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভার শুরুতে দ্রব্যমূল্য নিয়ে আলোচনা হয়। এরপর শুরু হয় চোরাচালান প্রতিরোধ সভা। ওই সভায় সৈয়দ লিয়াকত হাসান ও সাংবাদিক নুরুল আমিন মাদকের চোরাচালান বৃদ্ধি নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত ঘটান। পরে শহীদের ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে চুনারুঘাট থানার ওসিকে অনুরোধ করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার।
সীমান্ত সূত্র জানায়, বাল্লা সীমান্তের মৃত তৈয়ব আলীর পুত্র শহীদ বিগত ১০ বছর ধরে মাদক পাচারের সাথে জড়িত। সে বর্তমানে ঘাট লিডার হিসেবেও কাজ করছে। সে প্রতি ২৪ বোতল অফিসার চয়েস (২৫০ এমএল) এর জন্য ৫শ টাকা, ৭৫০ এমএল বোতল সাইজের হুইস্কির প্রতিটির জন্য ৫০ টাকা, ২০ বোতল ফেনসিডিলের জন্য ৫শ’ টাকা, প্রতি বাইসাইকেলের জন্য ২শ’ টাকা, প্রতি প্যাকেট জিরার জন্য ১০ টাকা, ভারতে অবৈধ অনুপ্রবেশের জন্য প্রতি যাত্রীর জন্য ৫শ’ টাকা বখরা আদায় করে। সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করে শহীদ মাদকের চালান নিয়ে আসে ভারত থেকে। সীমান্ত সূত্র জানায়, বাল্লা সীমান্তের কমপক্ষে ১০টি গ্রামের শতাধিক নারী-পুরুষ মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। এরা সীমান্তের কুলিবাড়ী, শ্মশানঘাট, বড়ইতলা, মোকামঘাট, বড়ক্ষের, চিমচিবিল, গুইবিল, সাতছড়ি, কালেঙ্গা পয়েন্ট দিয়ে ইয়াবা, অফিসার চয়েজ, নাম্বার ওয়ান, ভটকা, ম্যাকডুয়েল, বিয়ার, ফেনসিডিল, বাংলা মদ এবং নানা ধরণের যৌন উত্তেজক বড়ির চালান নিয়ে আসে। সীমান্তের গোবরখলা, টেকেরঘাট, আমু চা বাগান, টিমটিবিল খাস এবং আহমদাবাদ ইউপি’র বনগাঁও গ্রামের চিহ্নিত চোরা কারবারীরা ঘাট সম্রাটকে বখরা দিয়ে মাদকের চালান পৌছে দিচ্ছে রাজধানী সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। গাজীপুর ইউপি’র ইব্রা শাহ ভিলেজ মার্কেটের আশপাশ, ইছালিয়া সেতু ও আমুরোড বাঁশতলা, সিএনজি পয়েন্ট হয়ে প্রতিদিন টেম্পু, সিএনজি, মোটর সাইকেল, রিক্সা করে মাদকের চালান যায় গন্তব্যে। র‌্যাব-বিজিবি মাঝে-মধ্যে মাদক ব্যবসায়ীদের তাড়া করছে-পাকড়াও করছে কিন্তু কৌশলী ব্যবসায়ীরা থেকে যাচ্ছে ধরা-ছোঁয়ার বাইরে। ওই ঘাট সম্রাটের বিরুদ্ধে একাধিক মাদক মামলা রয়েছে। অকটেনের বিনিময়ে সে ভারত থেকে নিয়ে আসছে মাদক। তার কর্মকান্ড নিয়ে সীমান্তে চলছে নানান ধরণের আলোচনা। তবে শহীদ বলছে, সে মাদক পাচারের জন্য কোন বখরা নেয় না। জিরাসহ বিভিন্ন জাতীয় মশলা, সাইকেল, গরু এসবের জন্য বখরা আদায় করে থাকে। এ ব্যাপারে বাল্লা বিজিবি’র সুবেদার নবির হোসেন বলেন, সীমান্তে মাদক চোরাচালান রোধে বিজিবি খুবই তৎপর। কোন অবস্থাতেই সীমান্তে চোরাচালান হতে দেয়া হবে না।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com