রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ১২:০৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবসে এমপি আবু জাহির ॥ শহীদদের তালিকা তৈরি করে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হবে

কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবসে এমপি আবু জাহির ॥ শহীদদের তালিকা তৈরি করে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হবে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় গতকাল রবিবার লাখাই উপজেলার কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস পালিত হয়েছে। ১৯৭১ সালের এই দিনে কৃষ্ণপুরে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সদস্যরা স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় ১২৭ জন নিরিহ গ্রামবাসীকে হত্যা করেছিল।
দিবসটি পালন উপলক্ষে স্থানীয় কমলাময়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্থপিত স্মৃতি সৌধে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির। এ সময় জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার এডভোভোকট মোহাম্মদ আলী পাঠান, উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট মুশফিউল আলম আজাদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর হোছাইন সহ শহীদ পরিবারের সদস্যবৃন্দ ও এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন। কর্মসূচির শুরুতে শহীদ বেদিতে ফুল দেওয়া ছাড়াও ছিল পতাকা উত্তোলন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা, বিশেষ প্রার্থনা ও আলোচনা সভা। বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা অমরেন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন সংসদ সদস্য এডভোকেট মোঃ আবু জাহির। অন্যান্যের মাঝে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার গৌর প্রসাদ রায়, অবসরপ্রাপ্ত প্রকৌশলী প্রদীপ কুমার রায়, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মোঃ আলমগীর খান, দৈনিক জনকন্ঠের জেলা প্রতিনিধি রফিকুল হাসান চৌধুরী তুহিন, মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ এবং শহীদ পরিবারের সদস্যরা বক্তব্য দেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য এডভোকেট মোঃ আবু জাহির বলেন, মুক্তিযুদ্ধ আমাদের অহংকার, আমাদের বিশাল ও শ্রেষ্ঠ অর্জন। কৃষ্ণপুর হবিগঞ্জের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে অনন্য একটি নাম। এই গ্রামের নিরিহ মানুষ তাদের জীবনের বিনিময়ে স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। জাতি কখনো এই ত্যাগ ভুলবে না। তিনি বলেন, স্বজন হারানো পরিবারের শোককে শক্তিতে পরিণত করে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে পুনর্বাসন করতে হবে। আবু জাহির বলেন, বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের জন্য নানা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে চলেছে। এই এলাকার শহীদদের তালিকা তৈরি করে তাদের পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেওয়া হবে।
উল্লেখ্য, মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয়স্থল এবং শতভাগ সনাতন ধর্মাবলম্বী অধ্যুসিত গ্রাম হিসেবে যুদ্ধ চলাকালীন এই গ্রামটি হানাদারদের অন্যতম টার্গেট ছিল। এলাকাবাসী জানান, ১৯৭১ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর ভোরে পাকিস্তানী বাহিনী বি-বাড়ীয়া অঞ্চল থেকে নৌকা যোগে এসে ঘুমন্ত গ্রামবাসীকে ধরে এনে কোন কিছু বুঝতে না দিয়েই নদীর পাড়ে সারিবদ্ধভাবে দাড় করিয়ে ব্রাশ ফায়ার করে হত্যা করে। এ সময় অনেকেই লুকানোর চেষ্ঠা করেও রেহাই পাননি। ভাটির জনপদের দুর্গম এই গ্রামটির চারদিকে পানি থাকায় কিছু সংখ্যক লোক গ্রামের গাছ গাছালী আর ঝোপ ঝারে লুকিয়ে প্রাণ রক্ষা করে। এ গ্রামের পঙ্গুত্ব বরণকারী বহু লোক সেদিনের লোমহর্ষক ঘটনার কথা মনে করে এখনও শিউরে উঠেন।
বর্তমান সরকার এই গ্রামে ৭১ সালে জীবন উৎসর্গকারীদের স্মৃতি রক্ষায় একটি বদ্যভূমি নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহন করে। জেলা সদর থেকে এক সময় বিচ্ছিন্ন এই গ্রামের ছিল না কোন রাস্তা। সংসদ সদস্য আবু জাহির এর প্রতিশ্র“তি অনুযায়ী একটি সাবমার্জেবল রাস্তা নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এক সময় বর্ষা মৌসুমে নৌকাই ছিল তাদের একমাত্র ভরসা। গ্রামবাসী ও মুক্তিযোদ্ধাদের দাবি আপনজন হারানো পরিবারের সদস্যদের পুনর্বাসন এবং কৃষ্ণপুরের পরিকল্পিত উন্নয়ন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com