মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ১১:৩৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
করোনা প্রতিষেধক শ্রীমঙ্গলে যুবলীগ নেতা সেলিমের উদ্যোগে সাড়ে ৫শ অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে ড. রেজা কিবরিয়ার পক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জে শেষ হয়েছে ৫দিন ব্যাপি ইয়ূথ এসোসিয়েশন অব ইউকে এর খাদ্য সহায়তা বিতরণ নবীগঞ্জে গৃহহীন দুই বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধাকে সেনাবাহিনীর বাসস্থান উপহার আলমগীর চৌধুরীর সৌজন্যে নবীগঞ্জে ১৬৫ পরিবারকে ঈদ উপহার প্রদান নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা “বঙ্গবন্ধু ছাত্র একতা পরিষদ” নেতা রায়হান এর উদ্যোগে ইফতার বিতরণ এখন প্রমান করার সময় মানুষ মানুষের জন্য-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম অনাহারী মুখ খাবার তুলে দিচ্ছেন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম
আমেরিকায় হবিগঞ্জের সাবেক ইমাম আলাউদ্দিন আখঞ্জি খুন

আমেরিকায় হবিগঞ্জের সাবেক ইমাম আলাউদ্দিন আখঞ্জি খুন

IMG_4705 copy

IMG_4708 copy

IMG_4688

IMG_4696 copyস্টাফ রিপোর্টার ॥ যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক সিটিতে মসজিদ থেকে ফেরার পথে আল ফোরকান জামে মসজিদের ইমাম আলাউদ্দিন আখঞ্জি ও তার সঙ্গী তেরা মিয়া প্রকাশ্য দিবালোকে বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত হয়েছেন। আলাউদ্দিন আখঞ্জি হবিগঞ্জ চৌধুরী বাজার জামে মসজিদের ইমাম ছিলেন। স্থানীয় সময় শনিবার দুপুরে জোহরের নামজের পর কুইন্সের ওজনপার্কে ‘আল ফোরকান জামে মসজিদ’ এর কাছে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত মাওলানা আলাউদ্দিন আখঞ্জি (৫৫) এর গ্রামের বাড়ি চুনারুঘাট উপজেলার গোছাপাড়া গ্রামে। নিহত থেরা উদ্দিন (৬৪) তার প্রতিবেশী। গ্রামের বাড়ি সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার লক্ষ্মীপাশা ইউনিয়নের জাঙ্গলহাটা গ্রামের কাজী ইজ্জাদ আলীর ছেলে।
অতিশয় বৃদ্ধ ও অসুস্থ মা আমিনা খাতুনকে দেখার জন্য ৩১ আগস্ট মাওলানা আলাউদ্দিনের দেশে ফেরার কথা ছিল। তার মৃত্যুতে হবিগঞ্জ শহর ও তার গ্রামের বাড়ী চুনারুঘাট উপজেলার আমুরোড বাজার সংলগ্ন গোছাপাড়া গ্রামে শোকের ছায়া নেমে আসে। স্বজনরা তার মৃত্যুতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তার ভাই মাওলানা নাছির উদ্দিন আখঞ্জী মরহুমের লাশ দেশে আনার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেন। মাওলানা শাহ আলাউদ্দিন আখঞ্জি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার আমুরোড গোছাপাড়া গ্রামের সভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা আমুরোড জামে মসজিদের সাবেক খতিব মাওলনা শাহ সামছুদ্দিন আখঞ্জি। তিনি হবিগঞ্জের বিশিষ্ট সুন্নী আলেম হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তিনি প্রথমে শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে জামে মসজিদ ও পরে হবিগঞ্জ চৌধুরী বাজার জামে মসজিদের ইমাম ও খতিবের দায়িত্ব পালন করেন। তার মেয়ে জান্নাতুন নাঈম আখঞ্জী ২০১১ সালে তাকে সপরিবারে আমেরিকা নিয়ে যায়। সেখানকার কুইন্স ওজনপার্কে অবস্থিত আল ফুরকান জামে মসজিদে তিনি ইমামতি করতেন।
ধর্মীয় বিদ্বেষ থেকে এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে অভিযোগ করে ঘটনাস্থলে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন প্রবাসী কয়েকশ বাংলাদেশি। তারা হত্যাকারীকে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।
নিউ ইয়র্ক পুলিশের ডেপুটি ইন্সপেক্টর হেনরি সটনার ঘটনাস্থলে সংক্ষিপ্ত সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “প্রকাশ্য দিবালোকে এমন পরিস্থিতি সত্যি উদ্বেগের ব্যাপার। এটি হেইট ক্রাইম কি না- তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।”
আলাউদ্দিনের ছোট ভাই মাশুকউদ্দিন বলেন, মসজিদ থেকে হাঁটা পথে ৭/৮ মিনিট দূরত্বে এক বাড়িতে তার ভাই থাকতেন। পাশেই থেরাউদ্দিনের বাসা। দুপুরে জোহরের নামাজের পর মসজিদ থেকে বেরিয়ে বাড়ি ফেরার পথে তারা খুন হন।
পুলিশ বলছে, এক ব্যাক্তি পেছন থেকে তাদের মাথায় গুলি করে। ঘটনার পর অস্ত্র হাতে একজনকে দ্রুত ওই এলাকা ত্যাগ করতে দেখেছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।
গুলির খবর পেয়ে টহল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আলাউদ্দিনকে জ্যামাইকা হাসপাতালে এবং থেরাউদ্দিনকে এলমহার্স্ট হাসপাতালে নিয়ে যায়। আলাউদ্দিন হাসপাতালে নেওয়ার পরপরই এবং থেরাউদ্দিন চার ঘণ্টা পর হাসপাতালে মারা যান।
হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাটের আলাউদ্দিন আকুঞ্জি পাঁচ বছর আগে ইমিগ্র্যান্ট হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন। তিন সন্তানের মধ্যে বড় ছেলের বিয়ে উপলক্ষে আগামী সপ্তাহে তার দেশে যাওয়ার কথা ছিল।
থেরাউদ্দিনের এক আত্মীয় একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে জানিয়েছেন, সাড়ে চার বছর আগে নিউ ইয়র্কে যান থেরাউদ্দিন। তার ছেলেমেয়ে, ভাইবোনসহ পরিবারের সবাই সেখানেই থাকেন।
প্রবাসী বাংলাদেশিরা বলছেন, ধর্মীয় বিদ্বেষ থেকে ঘটানো হয়েছে এই হত্যাকাণ্ড।
নিউ ইয়র্ক সিটির ব্রুকলিন ও কুইন্সের সীমানা বরাবর এই ওজনপার্কে বাংলাদেশিদের পরিচালনায় আরও দুটি মসজিদ রয়েছে।
আল আমান মসজিদের সভাপতি কবীর বলেন, “এর আগে কখনো এ এলাকার মসজিদের ইমাম অথবা মুসল্লিকে এভাবে টার্গেট করা হয়নি। মাওলানা আলাউদ্দিনের মত সাদাসিধে মানুষের কোন শত্র“ ছিল না।”
সিসি ক্যামেরার ভিডিও এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে কম্যুনিটি লিডার মিসবাহ আবদিন বলেন, ওজনপার্কের লিবার্টি এভিনিউ ও ৭৯ স্ট্রিটে নীল রংয়ের শার্ট ও হাফ প্যান্ট পরিহিত দীর্ঘকায় এক ২৭-২৮ বছর বয়সী যুবক খুব কাছে থেকে বন্দুক তাক করে পরপর পাঁচ রাউন্ড গুলি করে। তারপর সে দৌড়ে চলে যায়।
“নিহত দুজনের পরনেই পায়জামা-পাঞ্জাবি আর মাথায় টুপি ছিল। এটি ধর্মীয় বিদ্বেষমূলক হামলা ছাড়া আর কিছু না।”
বিক্ষোভে অংশ নেওয়া ইউনাইটেড ট্যাক্সি ড্রাইভার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান এবং বাংলাদেশ সোসাইটির সহ-সাধারণ সম্পাদক ওসমান চৌধুরীও একই কথা বলেন।
বিক্ষোভে অংশ নেওয়া কয়েকজনের হাতে ঘাতকের বিচার ও কম্যুনিটির নিরাপত্তার দাবিতে পোস্টারও দেখা যায়।
স্থানীয় কাউন্সিলম্যান এরিক এ আলরিচ সবাইকে ধৈর্য্য ধরার আহ্বান জানান এবং ঘাতকদের চিহ্নিত করতে সবার সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন। বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি আজমল হোসেন কুনু জানান, বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় ঘটনাস্থলে একটি প্রতিবাদ সমাবেশ করবেন তারা। এজন্য নগর প্রশাসনের অনুমতি নেওয়া হয়েছে।
তবে নিহত দুজনের মরদেহ দেশে পাঠানো হবে কি না, সে বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে আলাউদ্দিনের ভাই মাশুকউদ্দিন জানান।
এর আগে ২০০২ সালে হিসপানিক দুই যুবকের হামলায় এ এলাকায় নিহত হন বাংলাদেশের ফটো-সাংবাদিক মিজানুর রহমান। ১১ অগাস্ট ছিল তার মৃত্যুবার্ষিকী। কাছাকাছি এলাকায় ২০১৪ সালের ৯ জুলাই ভোরে খুন হন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নজমুল ইসলাম (৫৭)।
মিজানের ঘাতকদের দীর্ঘমেয়াদি সাজা হয়েছে। আর নজমুল হত্যায় জড়িত দুই যুবকের বিচার চলছে কুইন্স ক্রিমিনাল কোর্টে।
যুক্তরাষ্ট্র হবিগঞ্জ জেলা সমিতির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ নোমান বলেন, মাওলানা আলাউদ্দিনের মৃত্যুতে প্রবাসীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এই হত্যাকান্ডের পর প্রবাসীদের মাঝে আতংক বিরাজ করছে।
আলাউদ্দিন আখনজীর ভাই টাউন মসজিদের ইমাম মাওলানা নাছির উদ্দিন আখঞ্জী বলেন, তার ভাই অত্যন্ত নিরীহ মানুষ ছিলেন। তিনি কখনো একটা মাছিকেও আঘাত করেননি। তিনি অত্যন্ত ধার্মিক এবং সবার খুব শ্রদ্ধাভাজন ছিলেন।
হবিগঞ্জ চৌধুরী বাজার জামে মসজিদের বর্তমান খতিব মাওলানা আব্দুল মজিদ বলেন, আলাউদ্দিন আখঞ্জি বিদেশে থাকলেও এই মসজিদের মুসল্লীরা সব সময় স্মরণ করত থাকে। তার মৃত্যুতে এই মসজিদের মুসল্লীরা শোকহত হয়েছেন।
মাওলানা আলাউদ্দিন আখঞ্জির ছেলে ফয়েজ উদ্দিন আখঞ্জি বলেন, তার দাদী আমিনা খাতুন খুবই অসুস্থ এবং বৃদ্ধ। মূলত তাকে দেখা এবং মাকে নিয়ে ঈদ করার কথা ছিল তার।
আমুরোড জামে মসজিদের সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান আজাদ বলেন, তাদের পরিবারের সবাই ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিত এবং বিভিন্ন মসজিদের ইমামের দায়িত্ব পালন করছেন। আলাউদ্দিন আখঞ্জির মৃত্যুতে এলাকাবাসী শোকাহত এবং তার জন্য আহাজারি করছে।
রবিবার বিকেলে, র‌্যাব-৯ এর একটি টিম নিহতের পরিবারে গিয়ে খোজ খবর নেয়। র‌্যাব জানতে চায় আলাউদ্দিন আখঞ্জির কোন শত্র“ ছিল কি-না । আলাউদ্দিন আখঞ্জির বড় ছেলে ফয়েজ উদ্দিন জানান, তার দাদী আমিনা খাতুনের বয়স ৮৫ বছর। তিনি এখনও জানেন না তার ছেলে মারা গেছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com