বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:২৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শহরে হাইব্রিড হীরা-২ নকল ধান বীজ তৈরির কারখানা আবিস্কার ॥ বিপুল পরিমাণ ক্যামিকেল, নকল বীজ ও প্যাকেট জব্ধ ॥ গুদাম সীলগালা হবিগঞ্জে সেমিনারে সিটিটিসি কর্মকর্তা ॥ জঙ্গীদের পরিবারের দুর্দশার চিত্র তুলে ধরলেও সচেতনতা আসতে পারে নবীগঞ্জে যুবতি অপহরণের অভিযোগে ১৪ বছর জেল লবন নৈরাজ্য ॥ হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে ২০ ব্যবসায়ীকে জরিমানা সমাপনী পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না নবীগঞ্জে ইয়াসমিনের নবীগঞ্জে ফরিদ গাজীর নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল বাহুবলে ইজিবাইক উল্টে ১ জনের মৃত্যু নবীগঞ্জে গণফোরামের প্রথম সভায় বক্তারা ॥ ড. রেজা কিবরিয়া সিলেট বিভাগের গর্ব তারেক রহমানের জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সদর উপজেলা বিএনপির মিলাদ মাহফিল সাংবাদিক সলিল এর পিতার পরলোকগমন ॥ শোক প্রকাশ
চুনারুঘাটে ছেলেকে লুকিয়ে রেখে অপহরণ মামলা ॥ ৮১ দিন পর কথিত অপহৃত রংপুর থেকে উদ্ধার

চুনারুঘাটে ছেলেকে লুকিয়ে রেখে অপহরণ মামলা ॥ ৮১ দিন পর কথিত অপহৃত রংপুর থেকে উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চুনারুঘাটে মাহফুজুর রহমান রিয়াজ (১৪) নিখোঁজের রহস্য ফাঁস হয়ে গেছে। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে পিতাই তাকে লুকিয়ে রেখেছিলেন। কথিত অপহরনের ৮১ দিন পর গত বৃহস্পতিবার রংপুর জেলার পীরগাছা থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করেছে। সে চুনারুঘাট উপজেলার দেওরগাছ ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের জমরুত মিয়ার পুত্র। গত ১০মে থেকে সে নিখোঁজ হয়। পরদিন ১১মে তার মাতা সুফিয়া খাতুন প্রকাশ ছইদা খাতুন বাদী হয়ে চুনারুঘাট থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। পরে ৬জুন পিতা জমরুত মিয়া বাদী হয়ে একই এলাকার সিরাজুল ইসলাম (৫২), ফারুক মিয়া (৩০) ও জুনাইদ মিয়া (৪৮)সহ ৯ জনের বিরুদ্ধে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) ইকবাল হোসেন মোবাইল কল লিস্টের সূত্র ধরে দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান শুরু করেন। এক পর্যায়ে গত ২০ জুলাই বিকালে অপহৃত কিশোরের মাতা বাদীনি সুফিয়া খাতুন প্রকাশ ছইদা খাতুন, বোন তানহা আক্তার, বোন জামাই মাদ্রাসা শিক্ষক মোজাহিদ হোসেনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে বোন তানহা আক্তার ও তার স্বামী মোজাহিদ হোসেনকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। ফলে কথিত অপহরণ ঘটনা ফাঁস হয়ে যায়। এরপর থেকে মাহফুজুর রহমান রিয়াজ বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনের চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে রংপুর জেলার পীরগাছা থানা পুলিশের হাতে রিয়াজ আটক হয়। আটকের পর সেখানকার পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সে তার ঠিকানা প্রকাশ করে। পরে পীরগাছা থানা অফিসার ইনচার্জ চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ নির্মলেন্দু চক্রবর্তীকে মোবাইল ফোনে ঘটনাটি অবহিত করেন। এরই প্রেক্ষিতে চুনারুঘাট থানার এস.আই আতাউর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ কথিত অপহৃত কিশোর রিয়াজকে পীরগাছা থানা থেকে চুনারুঘাট থানায় নিয়ে আসেন। গতকাল রিয়াজকে হবিগঞ্জ আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দির জন্য হাজির করা হয়। ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে, সে জানায় তার বাবা জমরুত আলীর প্ররোচনায় তার বোন জামাই মোজাহিদ হোসেন ও বোন তানহা আক্তারের সহযোগিতায় তাকে প্রথমে সিলেট শেরপুর, বিশ্বনাথ, চট্টগ্রাম, নারায়নগঞ্জ ও রংপুর জেলার পীরগাছায় লুকিয়ে রাখা হয়। পরে তার বাবা জমরুত আলী রিয়াজকে ফোন করে বলে যে, তার বোন ও বোন জামাইকে পুলিশ গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে। এ সংবাদ শুনে রিয়াজ নিজেই ওইদিন পীরগাছা থানায় আত্মসমর্পণ করে বলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জানায়।
উল্লেখ্য যে, লক্ষীপুর গ্রামের জমরুত আলী ও সিরাজ মিয়া গংদের মাঝে জমি-জমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। ওই বিরোধের জের হিসেবে সিরাজ গংদের ফাঁসানোর জন্য নিজের ছেলেকে প্রথমে নারায়নগঞ্জে লুকিয়ে রেখে ভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে জমরুত। এ নিয়ে এলাকায় আলোচনা ও সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com