বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ০৪:১৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ডাঃ ফাতেমা খানম দশ টাকা কেজির চাল হাতে দিয়ে লোকজনকে ঘরে থাকার আহবান জানালেন এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জের বেসরকারি চিকিৎসকদের পিপিই প্রদান করলেন ডাঃ মুশফিক চৌধুরী মাধবপুরে করোনা সতর্কতা ॥ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সরানো হল বাজার মাধবপুরে পিস্তলের গুলি বের হয়ে এএসআই আহত বানিয়াচঙ্গে গ্রামবাসীর উদ্যোগে ৩০টি গ্রাম লকডাউন “আপনার সুরক্ষা আপনার হাতে” এ স্লোগান এখন চা শ্রমিকের ঘরে ঘরে শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে লোকসমাগম কমাতে কাঁচা বাজার স্থানান্তর হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম বানিয়াচংয়ে আইন অমান্য করে ব্যাবসা প্রতিষ্টান খোলা রাখায় অর্থদন্ড
ধারাবাহিক লোকসানের কবলে চুনারুঘাটের পোল্ট্রি খামারীরা দেনা মাথায় নিয়ে নিঃস্ব অনেক

ধারাবাহিক লোকসানের কবলে চুনারুঘাটের পোল্ট্রি খামারীরা দেনা মাথায় নিয়ে নিঃস্ব অনেক

নুুরুল আমিন, চুনারুঘাট থেকে ॥ ধারাবাহিক লোকসানের কবলে পড়েছেন চুনারুঘাটের পোল্ট্রি খামারীরা। গত ছ’মাস ধরে তারা গুনছেন একের পর এক লোকসান। পুঁজি হারিয়ে অনেক খামারী এখন নিঃস্ব। ধার-দেনা পরিশোধ করতে না পারায় অনেক খামারী আত্মগোপন করেছেন। ব্যবসা লাটে উঠায় খামারী পরিবারের সদস্যরাও মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। বিগত ৭/৮ বছর পূর্ব থেকে সীমান্ত উপজেলা চুনারুঘাটের শত শত বেকার যুবক চাকরী-বাকরী না পেয়ে পোল্ট্রি খামার স্থাপনের দিকে ঝুকে পড়েন। অনেক যুবক ধার-দেনা করে পুঁজি কাটান খামারে। গ্রাম্য দাদন ব্যবসায়ীর নিকট থেকে কেউ কেউ গ্রহন করেন চড়া সুদে ঋণ। দেখতে দেখতে এ শিল্পের প্রসার ঘটতে থাকে। প্রতিকূল পরিবেশের মাঝেও বর্তমানে চুনারুঘাটে পোল্ট্রি খামার রয়েছে ২ শতাধিক। ১দিনের বাচ্চার বাড়তি দাম, ওষুধ-পত্রের দুষ্প্রাপ্ততাসহ নানা বৈরী পরিস্থিতি মোকাবেলা করে খামারীরা যখন এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে থাকেন তখন তাদের ঘাড় চেপে ধরে ‘রাজনীতি’। অব্যাহত হরতাল-অবরোধ আর জ্বালাও-পোড়াও রাজনীতির কবলে পড়েন তারা। সময়মত মোরগীর বাচ্চা উঠাতে না পারায় খামারগুলো বিরানভূমিতে পরিণত হয়। যারা অসাধ্য সাধন করে বাচ্চা এনে খামার পরিচালনা করেন তারা মোরগ বিক্রি করতে না পারায় লোকসানে পড়েন। সোহেল নামের এক খামারী বলেন, গত কোরবানীর ঈদ থেকে তিনি একের পর এক লোকসান গুনছেন। এখন তিনি ঋণগ্রস্ত একজন খামরীতে পরিণত হয়েছেন। দেনার ভারে তিনি মুহ্যমান। এমারান হোসেন স্থানীয় দাদন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ঋণ গ্রহন করে খামার প্রতিষ্টা করেছিলেন বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য। কিন্তু লোকসান গুনতে গুনতে তিনি নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। খামরটিও বর্তমানে বন্ধ রয়েছে তার। কলেজ ছাত্র আমিনুর রশীদ ৫শ মোরগীর ধারণক্ষমতার ফার্ম প্রতিষ্টা করেছিলেন ৩ মাস পূর্বে। মোরগগুলো বিক্রির সময় থেকে তিনি পড়েন অবরোধের বেড়াজালে। বাধ্য হয়ে তিনি কম দামে বিক্রি করেন মোরগ। এতে তার ২৩ হাজার টাকা লোকসান হয়। এরপর তিনি আর মোরগের বাচ্চা তুলেননি ফার্মে। এখন তিনি বেকার। তার মত অনেক খামারীই বেকার জীবন-যাবন করছেন। খামারী ফরিদ মিয়া ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে আত্মগোপন করেছেন। দাদনের টাকা ফেরত দিতে তার পরিবারকে চাপ দিচ্ছে দাদন ব্যবসায়ী।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com