সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ০৯:০৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীমঙ্গলে যুবলীগ নেতা সেলিমের উদ্যোগে সাড়ে ৫শ অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে ড. রেজা কিবরিয়ার পক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জে শেষ হয়েছে ৫দিন ব্যাপি ইয়ূথ এসোসিয়েশন অব ইউকে এর খাদ্য সহায়তা বিতরণ নবীগঞ্জে গৃহহীন দুই বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধাকে সেনাবাহিনীর বাসস্থান উপহার আলমগীর চৌধুরীর সৌজন্যে নবীগঞ্জে ১৬৫ পরিবারকে ঈদ উপহার প্রদান নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা “বঙ্গবন্ধু ছাত্র একতা পরিষদ” নেতা রায়হান এর উদ্যোগে ইফতার বিতরণ এখন প্রমান করার সময় মানুষ মানুষের জন্য-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম অনাহারী মুখ খাবার তুলে দিচ্ছেন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম বাগুনিপাড়া ডিফেন্স হোল্ডার এ্যাসোসিয়েশন ঈদ উপহার বিতরন
তনু হত্যার গোপন ও মিথ্যা

তনু হত্যার গোপন ও মিথ্যা

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ আমাদের স্মৃতিগুলোকে জাগরুক রাখার জন্য মাঝে মাঝে আকস্মিক আঘাতের প্রয়োজন রয়েছে। কুমিল্লা ভিকেক্টারিয়া কলেজের শিক্ষার্থী সোহাগী জাহান তনুর কমলা রংয়ের হিজাব পড়া হাসিমাখা মুখমন্ডলের ছবিটি আমাদের চিরাচরিত দৃশ্য। মানুষ কিভাবে প্রভাবিত হয়ে একটি সত্যকে মিথ্যা করে দেয়। তনুকে ধর্ষণ ও হত্যা করে জঙ্গলে ফেলে দেওয়া হয়। তিন মাস পরে তনুর হত্যাকান্ড আগের চেয়ে রহস্যজনক হচ্ছে। যা আগে হয়নি।
আমরা তনুর মায়ের আহাজারি শুনেছি। তনুর মা আনোয়ারা বেগম তার মেয়ের চেহারা ভুলতে পারবে না। একজন মা তার মহামূল্যবান সম্পদ কন্যা হত্যার বিচার দাবি করেছেন। সে তার স্নেহাশীষ কন্যার হত্যার কারণ জানতে পারেনি। তাকে কিভাবে হত্যা করা হলো তিনি জানেন না। এছাড়া তাকে নির্যাতন করে হত্যার জন্য কাউকে ধরাও হয়নি। এখানেই শেষ নয়, এখন আনোয়ারা বেগম তার পরিবারের বাকি সদস্যদের জীবন নিয়ে ভীতিতে রয়েছেন। তার স্বামী তনুর দুর্ভাগ্যবান বাবা যিনি তার মেয়ের মৃত দেহ চিহ্নিত করেছিলেন। তনু হত্যাকান্ডের পরে কুমিল্লা আবেগে উত্তাল হয়ে পরে। তনুর মা আনোয়ারা বেগম বলেছেন, তার পরিবারকে নজরদারীতে রাখা হয়েছে। তাদের বলা হয়েছে তারা যেন তনু হত্যাকান্ড নিয়ে আর কিছু না বলেন। তারা তনুর ডায়েরি ও ছবির অ্যালবাম নিয়ে গেছে।
ধর্ষণ ও হত্যা এবং ধর্ষণের পরে হত্যা বাংলাদেশের মানুষের জন্য জঘন্য খবর নয়। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের হিসেব অনুযায়ী, ২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে মার্চ ২৯৯ জনকে ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে ১৮ জনকে ধর্ষণের পরে হত্যা করা হয়েছে। তবে সোহাগী জাহান তনুর হত্যাকান্ডের বিষয়টি ব্যতিক্রম। এই হত্যাকা- দেশের সাধারণ মানুষের আবেগকে নাড়া দিয়েছে। ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিচার দাবি করেছে। একটি বিষয়কে প্রভাবিত করে কিভাবে হস্তক্ষেপ ও গোপন করে আন্দোলন থামানো যায় তা শিখিয়ে দিয়েছে। গণমাধ্যমের খবরে তনুর প্রথম ময়না তদন্তের প্রতিবেদনে স্পষ্ট বলা হয়েছে তনুকে হত্যা ও ধর্ষণ করা হয়নি।
পরে তার পরিবারের কাছ থেকে নিয়ে তনুর মরদেহ নিয়ে দ্বিতীয় ময়না তদন্ত করা হয়। দ্বিতীয় তদন্ত অবাক হওয়ার মতো প্রতিবেদন দিয়েছে। প্রথম ময়না তদন্ত সঠিক ছিল বলে দ্বিতীয় ময়না তদন্তেও বলা হয় তার শরীরে যৌন নির্যাতনের কোনো আলামত পাওয়া যায়নি। কোর্ট ডিএনএ টেস্টের জন্য নির্দেশ দিলে টেস্টে তাকে তিন জনের মাধ্যমে ধর্ষণ করা হয় বলে জানানো হয়। এই সত্যটি কার্পেটের নিচে চাপা পরে গেছে। আমরা জানি না তদন্তকারী সংস্থা প্রথম ও দ্বিতীয় প্রতিবেদনের সঙ্গে ডিএনএর প্রতিবেদনের সঙ্গে সাদৃশ থাকবে কি না।
তদন্তের এই দীর্ঘ প্রক্রিয়ার অপেক্ষা মনে হয় কখনো সমাপ্ত হবে না। আনোয়ারা বেগম ও তার পরিবারের অন্য সদস্যরা অসহায় ও পরাজিত হবে। আর সমাজের অন্যরা তনুর বিচারের আপডেট খবরের জন্য অপেক্ষা করবে। তনুর হত্যার বিচারের অপেক্ষা স্মৃতিগুলোকে জাগরুক রাখার মতোই। আকস্মিক আঘাত প্রয়োজন রয়েছে, তনু হত্যার খবরও তাকে বাঁচিয়ে রাখবে।
ডেইলি স্টার থেকে অনুবাদ করেছেন এম রবিউল্লাহ

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com