সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ০৬:৫২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীমঙ্গলে যুবলীগ নেতা সেলিমের উদ্যোগে সাড়ে ৫শ অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে ড. রেজা কিবরিয়ার পক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জে শেষ হয়েছে ৫দিন ব্যাপি ইয়ূথ এসোসিয়েশন অব ইউকে এর খাদ্য সহায়তা বিতরণ নবীগঞ্জে গৃহহীন দুই বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধাকে সেনাবাহিনীর বাসস্থান উপহার আলমগীর চৌধুরীর সৌজন্যে নবীগঞ্জে ১৬৫ পরিবারকে ঈদ উপহার প্রদান নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা “বঙ্গবন্ধু ছাত্র একতা পরিষদ” নেতা রায়হান এর উদ্যোগে ইফতার বিতরণ এখন প্রমান করার সময় মানুষ মানুষের জন্য-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম অনাহারী মুখ খাবার তুলে দিচ্ছেন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম বাগুনিপাড়া ডিফেন্স হোল্ডার এ্যাসোসিয়েশন ঈদ উপহার বিতরন
টমটম চালক ও যাত্রীর মধ্যে কথা কাটাকাটির জের ॥ ১০ গ্রামবাসীর সংঘর্ষে সুরাবই রণক্ষেত্র ॥ শতাধিক আহত ॥ ১৬৩ রাউন্ড বুলেট ও ৩১ রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ

টমটম চালক ও যাত্রীর মধ্যে কথা কাটাকাটির জের ॥ ১০ গ্রামবাসীর সংঘর্ষে সুরাবই রণক্ষেত্র ॥ শতাধিক আহত ॥ ১৬৩ রাউন্ড বুলেট ও ৩১ রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শায়েস্তাগঞ্জের সুতাং রেলস্টেশন এলাকায় তুচ্ছ বিষয় নিয়ে ১০ গ্রামবাসীর ৪ঘণ্টাব্যাপি সংঘর্ষে উভয় পক্ষের শতাধিক লোক আহত হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে সুরাবইসহ পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। হবিগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। শায়েস্তাগঞ্জ থানা পুলিশ সংঘর্ষ শুরুর কিছুক্ষণ পরই ঘটনাস্থলে গেলেও দর্শকের ভূমিকা পালন করে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। শুরু থেকে শায়েস্তাগঞ্জ থানা পুলিশ এ্যাকশনে গেলে পরিস্থিতি এত ভয়াবহ হতনা বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। রবিবার সন্ধ্যায় টমটম চালক এবং যাত্রীর মধ্যে কথা কাটাকাটির জের ধরেই গতকাল সোমবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
Untitled-1 copyস্থানীয় সূত্র জানায়, রবিবার সন্ধ্যায় কান্দিগাঁও গ্রামের জামাল মিয়াসহ প্রাণ কোম্পানীর কয়েকজন শ্রমিক ওলিপুর থেকে বাছিরগঞ্জ বাজার যাওয়ার জন্য টমটমে উঠেন। টমটম চালক ছিলেন সুরাবই গ্রামের আল-আমিন। চালক আল আমিন বাছিরগঞ্জ বাজারে না গিয়ে যাত্রীদেরকে সুতাং বাজারে নামিয়ে দেন। এনিয়ে কান্দিগাঁও গ্রামের জামাল মিয়ার সাথে টমটম চালক আল-আমিনের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতি হয়। এ ঘটনার পর কান্দিগাঁও ও সুরাবই গ্রামবাসীর মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। রাতে কান্দিগাঁও গ্রামের লোকজন বৈঠকে বসে সংঘর্ষের প্রস্তুতি নেয়। গতকাল সোমবার সকাল ১০টার দিকে কান্দিগাঁও গ্রামের লোকজন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সুতাং রেল স্টেশন সংলগ্ন মাঠে জড়ো হয়ে সুরাবই গ্রামবাসীকে ডাকাডাকি শুরু করে। এ সময় সুরাবই গ্রামবাসীও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সুতাং রেল স্টেশন ও আশপাশ এলাকায় অবস্থান নেয়। এক পর্যায়ে শুরু হয় উভয় পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। সংঘর্ষ শুরু হলে কান্দিগাও গ্রামের পক্ষে শরিফাবাদ, শৈলজুড়া, ভাটি শৈলজুড়া, গুড়াবই, কাটাখালি অপরদিকে সুরাবই ও পুরাসুন্দা গ্রামের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষ চলে প্রায় ৪ঘণ্টা।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সংঘর্ষের কিছুক্ষণ পরই শায়েস্তাগঞ্জ থানার ওসি ইয়াসিনুল হকের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। কিন্তু পুলিশ নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে। বেকার দাড়িয়ে থেকে সময় কাটানোর জন্য কোন কোন পুলিশ সদস্যকে মোবাইলে গেইম খেলতে দেখা যায়। এ সময় রাজিউড়া ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শেখ কামাল সংঘর্ষের মাঝামাঝি অবস্থান নিয়ে সংঘর্ষ থামানোর চেষ্টা করেন। এর পরক্ষণেই হবিগঞ্জ সদর থানার ওসি নাজিম উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ১৬৩ রাউন্ড বুলেট ও ৩১ রাউন্ড কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।
সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ সহ গুরুতর আহত নজির মিয়া, আলফু মিয়া, সুরুজ আলী, হাবিবুর রহমান, মর্তুজ আলী, শাহজাহান মিয়া, আব্দুল লতিফ, কবির মিয়া, হেলাল মিয়া, সিচিল মিয়া, ছানু মিয়া, মধু মেম্বার, বশির মিয়া, আব্দুল মতিন, দিন ইসলাম, আব্দুল গনি, সাবুদ মিয়া, তছকির মিয়া, আজদু মিয়া, সাহাব উদ্দিন, সাহেদ আলী, শহীদ মিয়া, জাহির মিয়া, টেনু মিয়া, বাচ্চুু মিয়া, খেলু মিয়া, আবুল মিয়া বিলাল মিয়াসহ শতাধিক রোগীকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা দেয়া হয়। গুরুতর আহত মঞ্জব আলীকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। অপরদিকে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রনে আনতে গিয়ে নুরপুর গ্রামের কৃতি ফুটবলার মুক্তার হোসেন চোখে আঘাতপ্রাপ্ত হন। তাকে ঢাকা প্রেরণ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com