বৃহস্পতিবার, ১৮ Jul ২০১৯, ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন

স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানী টক অব দ্য বানিয়াচং ॥ ফুঁসে উঠছে বানিয়াচংবাসী

স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানী টক অব দ্য বানিয়াচং ॥ ফুঁসে উঠছে বানিয়াচংবাসী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচং সুফিয়া মতিন টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত সুপার বশির আহমেদের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগের বিষয়টি গতকাল ছিল ‘টক অব দ্য বানিয়াচং’। বানিয়াচংয়ের অনেক স্থানেই দৈনিক হবিগঞ্জের জনতা এক্সপ্রেস পত্রিকা ফটোকপি করে বিক্রি হয়েছে।
এদিকে ছাত্রীকে সুপারের যৌন হয়রানীর বিষয়টি কর্তৃপক্ষ গোপন রাখায় ফুঁসে উঠছে অভিভাবক মহলসহ সাধারণ মানুষ। বানিয়াচং সুফিয়া মতিন টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষসহ পরিচালনা কমিটির ভূমিকা নিয়ে জনমনে ক্ষোভ সৃষ্টি হচ্ছে। সুপারের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানীর অভিযোগ দেয়ার পরও কর্তৃপক্ষ কেন কোন পদক্ষেপ নিলেননা, এনিয়েও জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এ ব্যাপারে কয়েকজন অভিভাবকের সাথে আলাপ হলে তারা প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, শিক্ষকরা মানুষ গড়ার কারিগর। আমাদের সন্তানদের মানুষ করার জন্য বিদ্যালয়ে পাঠাই। কিন্তু যার কাছ থেকে শিক্ষা পাবে তিনিই যদি অমানুষ হন তবে কার উপর ভরসা করা যায়। এ ধরণের শিক্ষকরা সমাজের কলঙ্ক, শিক্ষক নামের কলঙ্ক। অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়া হলে এ ধরণের অপরাধ আরো বাড়তে থাকবে। তাই শুধু অপসারণই নয়, শাস্তি হওয়া উচিত।
এ ব্যাপারে সুফিয়া মতিন মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ সালামত আলী খানের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সুফিয়া মতিন মহিলা কলেজ আর সুফিয়া মতিন টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ পৃথক প্রতিষ্ঠান। ফলে এ ব্যাপারে আমার কিছু করার নেই।
উল্লেখ্য, ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জনৈক ছাত্রীকে সুপার বশির আহমেদ প্রায়ই তার রুমে নিয়ে যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করতেন। ছাত্রীটিকে অসামাজিক কাজের প্রস্তাব দিতেন। কিন্তু সম্মত না হলে তাকে পরীক্ষায় ফেল করে দেয়ার ভয় দেখাতেন সুপার বশির আহমেদ। এ ব্যাপারে স্কুলের সহকারী শিক্ষিকাকে জানালে তিনি কমিটির কাছে অভিযোগ দিতে বলেন। পরে ছাত্রীর অভিভাবক কলেজের অধ্যক্ষ সালামত আলী খানের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন। এতে সুপার বশির আহমেদ ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্নভাবে হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন। কমিটির কাছে অভিযোগ দেয়ার পর ২মাস অতিবাহিত হলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বরং অভিযোগ ফেরত দেয়া হয়। এমতাবস্থায় সুপারের ভয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থী ছাত্রীটি স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয়। পরে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে ছাত্রীর মা অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগটি তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দেয়ার জন্য বানিয়াচং উপজেলা মহিলা বিষয়ক মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তদন্ত করে ঘটনা সত্য বলে প্রতিবেদন দেন। এরই প্রেক্ষিতে সুপারের বিরুদ্ধে আইনাননুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলা প্রশাসক বরাবরে সুপারিশসহ প্রতিবেদন প্রদান করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।
জানা গেছে, সুপার বশির আহমেদ প্রায় ৩বছর ধরে সুফিয়া মতিন টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজে দায়িত্বরত আছেন। একই এলাকায় বাসিন্দা হওয়ায় তিনি ছাত্রীর সাথে যৌন হয়রানী করেও দাপটের সাথে বহাল রয়েছেন। এলাকার একটি প্রভাবশালী মহলের আশির্বাদপুষ্ট বলে তিনি যাচ্ছেতাই করে যাচ্ছেন বলে অনেকে জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com