রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৭:১০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
উৎসব মূখর পরিবেশে আজ হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন ॥ লড়াই হবে ত্রি-মুখি বানিয়াচঙ্গে পুলিশের অভিযান কালাশাহ সহ ৩ ডাকাত গ্রেপ্তার হবিগঞ্জে আরো ৬২৭ জন করোনা টিকা গ্রহণ করেছেন নবীগঞ্জ ৯নং বাউসা ইউনিয়ন বিএনপির বর্ধিত সভা অনুষ্টিত হবিগঞ্জে উৎসব মুখর পরিবেশে সমকাল জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসব নবীগঞ্জে বিষ প্রয়োগে ২৫০টি হাঁস নিধন ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ নবীগঞ্জ উপজেলার কাউন্সিল কার্যক্রম সম্পন্ন চুনারুঘাটে মরহুম সফিক মিয়া স্মরণে ফ্রিজ কাপ ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের উদ্বোধন হবিগঞ্জে নৌকার জয় হলে শেখ হাসিনার জয় হবে-ব্যরিস্টার শেখ ফজলে নাঈম একনায়কতন্ত্রের বিরুদ্ধে বিএনপির প্রার্থী সেলিমকে ধানের শীষে ভোট দিন-জিকে গউছ
নবীগঞ্জে ইউনিয়ন নির্বাচন ॥ প্রার্থী মনোনয়নের ভুলে বিএনপির ভরাডুবি বিদ্রোহীদের কাছে ধরাশায়ী আওয়ামীলীগ

নবীগঞ্জে ইউনিয়ন নির্বাচন ॥ প্রার্থী মনোনয়নের ভুলে বিএনপির ভরাডুবি বিদ্রোহীদের কাছে ধরাশায়ী আওয়ামীলীগ

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ সদ্য সম্পন্ন হওয়া নবীগঞ্জে ইউপি নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা চলছে। বিশেষ করে নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিএনপির চরম ভরাডুবির বিষয়টি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। তবে আওয়ামীলীগও খুব ভাল করেছে এমনটি বলা যাচ্ছেনা। সার্বিক দিক বিবেচনায় ভাল ফলাফল করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। ফলাফল অনুযায়ী ১৩টি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ ৬, বিএনপি ১ ও ৬জন স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।
বিশ্লেষকরা বলছেন, বিএনপি ভরাডুবির পেছনে অযোগ্য নেতৃত্বই প্রধান কারণ। তারা বলছেন বিএনপির প্রচুর সমর্থক ও নেতাকর্মী রয়েছে। কিন্তু নেতৃত্ব দেয়ার মত যোগ্য নেতা নেই। একজন আরেকজনকে নেতা মানতে রাজী নন এমন মনমানসিকতা রয়েছে অনেকের মধ্যে। দলীয় অনেক নেতারাও দাবী করেছেন নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়নে যোগ্যতা যাছাই না করে স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে অনেক অযোগ্য ব্যক্তিকে প্রার্থী দেয়া হয়েছে। যারফলে জামানত পর্যন্ত বাজেয়াপ্ত হয়েছে অনেকের। করগাঁও ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থী বিজয়ী হলেও এখানে দলগতভাবে মানুষ ভোট প্রদান করেন নি। বর্তমান চেয়ারম্যান (নব-নির্বাচিত) মোঃ ছাইম উদ্দিনের ব্যক্তিগত ইমেজ এবং তার এলাকার বিশাল ভোট ব্যাংক ঐক্যবদ্ধভাবে প্রয়োগ করার কারনে তিনি বিজয়ী হতে সক্ষম হয়েছেন বলে দাবী ইউনিয়নবাসীর।
নবীগঞ্জ উপজেলার সূচনীয় পরাজয়ের ব্যাপারে উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শিহাব চৌধুরী বলেন, সরকারী দলের প্রভাব এবং স্থানীয় বিএনপি যাদেরকে মনোয়ন দিয়েছিল, তাদেরকে বদল করে কেন্দ্র থেকে প্রার্থী পরিবর্তনের কারনেই এমনটা হয়েছে। পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন চৌধুরী বলেন, উপজেলার ২, ১০, ৯ ও ১১ নং ইউনিয়নে উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি শেখ সুজাত মিয়াসহ তার অনুসারীরা দলের প্রার্থীর বিপক্ষে সরাসরি অবস্থান নেয়ার কারনে এর প্রভাব সকল ইউনিয়নে পড়ে। যার প্রেক্ষিতে উপজেলার সর্বত্র বিএনপির লজ্জাজনক ভরাডুবি হয়েছে। মুখোশদারী ওই সব বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে দলীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কেন্দ্রীয় দপ্তরে সুপারিশ প্রেরন করা হয়েছে।
অপরদিকে বিশ্লেষকরা মনে করছেন- বিএনপি যেখানে ১৩টি ইউনিয়নের মধ্যে মাত্র ১টি ইউনিয়নের বিজয়ী হয়েছে সেই হিসাবে আওয়ামীলীগকে আরো বেশী ইউনিয়নে বিজয়ী হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু দেখা গেছে কয়েকটি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। আওয়ামীলীগও প্রার্থী মনোনয়নে আরো চিন্তাভাবনা করলে অধিক সংখ্যক প্রার্থী বিজয়ী হতে পারত। সব মিলিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীরাই সবচেয়ে ভাল ফলাফল করছে।
আওয়ামীলীগের অনেকের সাথে আলাপকালে প্রতিক্রিয়ায় জানান, উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকা অনেক নেতাদের নীরবতা, দায়মুক্ত হতে বা বহিস্কার এড়াতে লোক দেখানোর দায়িত্ব পালন ছাড়া কোন ভূমিকা না থাকায় মাঠ পর্যায়ের দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যেও এর প্রভাব পড়েছে। এখানে প্রার্থী নির্বাচনেও অনেক ইউপিতে যথাযথ মূল্যায়ন করা হয়নি বলে মনে করেন নেতাকর্মীরা।
এদিকে আওয়ামীলীগ মনোনিত পরাজিত প্রার্থীদের দাবী, তারা বিএনপি বা বিদ্রোহী প্রার্থীদের কাছে পরাজিত হন নি। দলের কাছে পরাজিত হয়েছেন। দলীয় লোকজন নৌকার বিপক্ষে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে কাজ করায় এমনটি হয়েছে।
নির্বাচনী ফলাফল বিশ্লেষন করে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন ভোটাররা কখনও ভুল করেনা। দলের চেয়ে যোগ্য ব্যক্তিকেই সাধারণ মানুষ ভোট দিয়ে বিজয়ী করেছে। দলীয় লোকজন ছাড়া সাধারণ ভোটররা দল বিবেচনা করে ভোট দেয়নি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com