রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:৩৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
জাতিকে মেধাশূন্য করতে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়-এমপি আবু জাহির চুনারুঘাটে স্কুল ছাত্রীকে হয়রানীর অভিযোগে যুবকের ১ বছর কারাদন্ড নবীগঞ্জে দীর্ঘদিন পরে সাংবাদিকদের বিরোধের অবসান ॥ প্রেসক্লাবের তফশীল ঘোষণা ॥ ২২ ডিসেম্বর নির্বাচন নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের বর্ধিত সভা ও খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মোতাচ্ছিরুল ইসলামের প্রচেষ্ঠায় নিজস্ব অর্থায়নে রাস্তা নির্মাণ করছে যাদবপুর ও গোপালপুর গ্রামবাসী শচীন্দ্র কলেজে ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালন চুনারুঘাটে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা আউশকান্দি ছাত্রদলের বিক্ষোভ গ্রাম পুলিশের বেতন-ভাতা পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধি করা হবে-এমপি মিলাদ গাজী নবীগঞ্জে আনরেজিস্টার্ড ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রয় বন্ধে মতবিনিময় সভা
ভোটের উৎসব নয়, আতংকে পরিণত হয়েছিল বানিয়াচং সদর

ভোটের উৎসব নয়, আতংকে পরিণত হয়েছিল বানিয়াচং সদর

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ ভোটের উৎসব নয়, আতংকে পরিণত হয়েছিল বানিয়াচং সদর। নারী ভোটারতো নয়ই অধিকাংশ পুরুষ ভোটারই কেন্দ্রমুখী হননি। সেনা বাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যদের ঘনঘন টহল থাকলেও এ গিঞ্জি এলাকায় দুর্বৃত্তদের  চোরাগুপ্তা হামলার ভয়ে ভোটাররা সন্ত্রস্থ হয়ে পড়েন। ভোটের আগের দিন রাত থেকেই কেন্দ্রগুলোতে ভোট গ্রহনের দিন বেলা ২ টা পর্যন্ত দুর্বৃত্তদের একের পর এক হামলার ঘটনা এলাকায় চাউর হলে  ভোটারদের মধ্যে চরম আতংক দেখা দেয়। ম্যাজিষ্ট্রেট এর নেতৃত্বে স্ট্রাইকিং ফোর্স এর তৎপরতা বৃদ্ধি হলেও অবস্থা বেগতিক দেখে উপজেলা সহকারী রিটার্নিং অফিসার তোপখানা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৯ নং কেন্দ্র ও জামেয়া রেদওয়ানা দাখিল মাদ্রাসার ১১ নং কেন্দ্রের ভোট গ্রহন স্থগিত করে দেন। শনিবার সন্ধ্যা থেকে ৮ টি কেন্দ্রে হামলা চালিয়ে ব্যালট পেপার, ব্যালট বক্স ছিনতাই ও পুড়িঁয়ে দেয় দুর্র্বৃত্তরা। এসব ঘটনায় ১জন গুলিবিদ্ধ, পুলিশ ও আনসার ২জন অগ্নিদগ্ধসহ আহত হয়েছেন প্রায় ১২ জন।  এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে দ্রুত বিচার আইনে ১৩ জনের নাম উল্লেখ সহ অজ্ঞাত ৩০ থেকে ৪০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে।  এ পর্যন্ত আটক হয়েছে ৩ জন। এসব ঘটনায় শনিবার সন্ধা সাড়ে ৭টার দিকে তোপখানা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৯ নং ভোট কেন্দ্রে ১০ থেকে ১২ জনের একদল দুর্র্বৃত্ত ককটেল ও পেট্রোলবোমা নিক্ষেপ ও পুলিশ আনসারদেরকে লাঠিপেঠা করে ৩০৩৯টি ব্যালট ও সবক’টি ব্যালট বাক্স পুড়িঁয়ে দেয়। পরপরই তকবাজখানী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১০ নং কেন্দ্রে ককটেল ফাটিঁয়ে হামলা চালিয়ে পেট্রোল দিয়ে আগুন ধরালে পুলিশ ১৩ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়লে দুর্র্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। রাত ১০ টার দিকে চৌধুরীপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৮ নং কেন্দ্রে ও রাত ১১টার দিকে কামালখানী ৮ নং কেন্দ্রে ককটেল ও পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে দর্র্বৃত্তরা ত্রাস সৃষ্টি করে। গভীর রাতে জামেয়া রেদওয়ানা দাখিল মাদ্রাসার ১১ নং কেন্দ্রে পুলিশ আনসার ও প্রিজাইডিং অফিসারকে মারধোর করে ব্যালট পেপার ও বাক্স ছিনিয়ে নিয়ে যায়।
রোববার সকালের দিকে শরীফখানী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২৮ নং কেন্দ্রে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করলে পুলিশ আবু হানিফ ও আনসার আব্দুল্লাহ অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারাত্মক আহত হয়ে হবিগঞ্জ আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।
ভোটারদের উপস্থিতি কম থাকায় বেলা ১১টার দিকে একদল দুর্র্বৃত্ত এলআর সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৭ নং কেন্দ্রে প্রবেশ করে পরপর কয়েকটি পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে ত্রাস সৃষ্টি করে। এসময় কেন্দ্রের দায়িত্বরতরা প্রাণের ভয়ে এদিক-ওদিক পালিয়ে আত্মরক্ষা করেন। এ কেন্দ্রে দুর্র্বৃত্তরা কয়েকটি ব্যালট বাক্স ভেঙ্গে ফেলে। এতে প্রায় ঘন্টাখানেক ভোট গ্রহন বন্ধ থাকে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিএসডি বালিকা মাদ্রাসার ১৪ নং কেন্দ্রে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে ভীতির সৃষ্টি করে।
দুপুরের দিকে চৌধুরীপাড়া ১৮ নং কেন্দ্রে দ্বিতীয় দফা একদল দুর্বৃত্ত পেট্রোল বোমা হামলা চালায়। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ২০ রাউন্ড গুলি ছুড়ে। সর্বশেষ বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে কমল মিয়া (২০) নামে এক ব্যক্তি ওই কেন্দ্র এলাকায় ঘুরফেরা করার সময় পুলিশ তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। গুলি তার পেটে আঘাত লাগলে তার ভূড়ি বের হয়ে যায়। জাতুকর্ন পাড়া গ্রামের মৃত রেজাক আলীর পুত্র। আশংকাজনক অবস্থায় তাকে হবিগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া হামলায় নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের মধ্যে আহতরা হলেন-পুলিশ কনস্টেবল মোঃ আব্দুল আলী, রফিকুল ইসলাম, আনসার এপিসি আলী হায়দার, আনসার সদস্য ফজল মিয়া, ফজলু মিয়া, সন্তোষ মোদক, মিজানুর রহমান, বশু মিয়া, মহিলা আনসার সদস্য তুলনা বেগম, রানু বেগম, ছামিনা বেগম ও মাসেদা বেগম।
দুপুর ১২ টার দিকে বনিয়াচঙ্গ উপজেলার কবিরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টির প্রার্থীর সমর্থকরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে উভয় পরে ১০ জন আহত হয়েছে। তবে জেলার আর কোথাও কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।
বানিয়াচং উপজেলায় ১০৫টি কেন্দ্রের মধ্যে সদরে রয়েছে ২৮টি কেন্দ্র। ওই ২৮টি কেন্দ্রে ভোটার রয়েছেন ৫৯ হাজার ৭শ ৩১ জন। আতংকজনিত কারনে ও একতরফা নির্বাচন অনুষ্ঠানের ফলে কেন্দ্রগুলো নারী ভোটার উপস্থিতি ছিল নামে মাত্র।
এদিকে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ ও আগুনে পোড়ানোর ঘটনায় এসআই মধু সুধন রায় বাদী হয়ে ১৩জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৩০/৪০ জনকে আসামী করে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দয়ের করেছেন। মামলার আসামীরা হচ্ছে-যুবদল নেতা মিলন খান, আনহার মিয়া, মোয়াজম হোসেন, সোহাগ মিয়া, ছয়ফুল মিয়া, হান্নান মিয়া, শেখ রুবেল মিয়া, মাসুক মিয়া, জিহাদী, আব্দুস সালাম, মুরাদ মিয়া, জহিরুল ইসলাম ও সোহেল মিয়া।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com