রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ০৫:১২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতীয় নাগরিকের পিটুনীতে বাংলাদেশী খুন ॥ লাশের অপেক্ষায় স্বজনরা বানিয়াচংয়ের বিভিন্ন বাজারে সেনাবাহিনীর জনসচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শ্রীমঙ্গলে ৬৭ টি মামলায় ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা নবীগঞ্জে সরকারের অর্থ সহায়তার তালিকায় নারী কাউন্সিলরের পরিবারের ৬ সদস্যের নাম শচীন্দ্র লাল সরকারের সমাধীতে জেলা সিপিবি, উদীচী, কিবরিয়া ফাউন্ডেশন, সচেতন নাগরিক কমিটি ও মাতৃছায়া কেজি এন্ড হাইস্কুলের পুষ্পস্তবক অর্পন দৈনিক খোয়াই পত্রিকার সার্কুলেশন ম্যানেজার সাইফুলের পিতার ইন্তেকাল নবীগঞ্জে ভাতিজার হাতে চাচা খুন শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর আব্দুল আহাদের মৃত্যু বানিয়াচঙ্গের হাওর থেকে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার হবিগঞ্জে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১
বাহুবলে ৪ শিশু হত্যা ঃ ৯ জনকে আসামি করে চার্জশীট দাখিল

বাহুবলে ৪ শিশু হত্যা ঃ ৯ জনকে আসামি করে চার্জশীট দাখিল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাহুবল উপজেলার সুন্দ্রাটিকি গ্রামের বহুল আলোচিত ৪ শিশু হত্যার ঘটনায় ৯ জনকে আসামি করে অভিযোগপত্র (চার্জশীট) দাখিল করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর বারোটায় মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মোকতাদির হোসেন জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মোঃ কাউছার আলমের আদালতে এ চার্জশীট দাখিল করেন। গতকাল দুপুর পৌনে ১টায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ শহীদুল ইসলাম হবিগঞ্জ পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সংক্ষিপ্ত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান। তিনি জানান-৪৯ দিনে ৩২ কার্যদিবসে মোট ৫৭ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্যর ভিত্তিতে এ প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। অভিযুক্তদের মধ্যে ৫ জন কারাগারে এবং ৩ জন পলাতক রয়েছেন। এ ছাড়া অন্যতম আসামি সিএনজি চালক বাচ্চুু র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। কারাগারে আটক রয়েছেন হত্যাকান্ডের মূল পরিকল্পনাকারী আব্দুল আলী বাগাল, তার দুই ছেলে জুয়েল ও রুবেল, একই গ্রামের আরজু ও শাহেদ। পলাতক রয়েছে অরো ৩ আসামি। তারা হলো আব্দুল আলী বাগালের ভাতিজা চালক বিলাল, উস্তার ও বাবুল।
এ ছাড়া কারাগারে বন্দি সালেহ ও বশিরের বিরুদ্ধে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কোন অভিযোগ না পাওয়ায় তাদের মামলা থেকে অব্যাহতি (নট সেন্ট আপ) দেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদুল ইসলাম আরও জানান-পঞ্চায়েত বিরোধ বড়ই গাছ কাটা নিয়ে পঞ্চায়েত আব্দুল আলী বাগালের পরিকল্পনায় ৪ শিশুকে হত্যা করা হয়।
১২ ফেব্র“য়ারি সন্ধ্যায় ওই শিশুদের সিএনজি চালক বাচ্চুুর গাড়ীতে করে আব্দুল আলী বাগালের লেবু বাগানে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখানে অচেতন করে গলাটিপে হত্যার পর ৩ থেকে ৪ দিন রেখে অটোরিকশায় করে সুন্দ্রাটিকির ইছাবিল এলাকায় মাটি চাপা দেওয়া হয়। পুলিশ হত্যাকাণ্ডের আলামত হিসেবে শাবুল, কোদাল, প্লাস্টিকের বস্তা, শিশুদের রক্তমাখা পাঞ্জাবি, গেঞ্জি ও অটোরিকশা উদ্ধার করে। হত্যাকান্ডের পর গ্রেফতার করা আসামিদের মধ্যে আব্দুল আলী বাগালের ছেলে জুয়েল ও রুবেল এবং আসামি আরজু ও শাহেদ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। প্রেস ব্রিফিংয়ের সময় সহকারী পুলিশ সুপার (উত্তর) সাজেদুর রহমান, সহকারী পুলিশ সুপার সদর সার্কেল মাসুদুর রহমান মনির ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মোকতাদির হোসেন রিপন উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, গত ১২ ফেব্র“য়ারি সন্ধ্যায় তাদের অপহরণ করা হয়। পাঁচদিন পর ১৭ ফেব্র“য়ারি সকালে গ্রাম থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে ইছারবিল খালের পাশে বালুমিশ্রিত মাটির নিচে ওই চার শিশুর মৃতদেহ পাওয়া যায়।
নিহত শিশুরা হলো-সুন্দ্রাটিকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র জাকারিয়া আহমেদ শুভ (৮), প্রথম শ্রেণির ছাত্র মনির মিয়া (৭), চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র তাজেল মিয়া (১০) ও সুন্দ্রাটিকি মাদ্রাসার ছাত্র ইসমাইল মিয়া (১০)। এদের মধ্যে প্রথম তিনজন সম্পর্কে আপন চাচাতো ভাই। আর ইসমাইল তাদের প্রতিবেশী। সূত্র জানায়, শিশু মনির, শুভ ও তাজেলের বাবার সঙ্গে একটি বড়ই গাছ কাটা ও গ্রাম্য পঞ্চায়েত নিয়ে একই গ্রামের পঞ্চায়েত আব্দুল আলী বাগালের বিরোধ ছিল। এর জের ধরে ওই চার শিশুকে অপহরণের পর হত্যা করা হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com