বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ০৮:৪৩ অপরাহ্ন

বাহুবলে ৭২ ঘন্টায়ও নিখোঁজ ৪ শিশুর সন্ধান মেলেনি \ বাড়ছে জনমনে আতঙ্ক

বাহুবলে ৭২ ঘন্টায়ও নিখোঁজ ৪ শিশুর সন্ধান মেলেনি \ বাড়ছে জনমনে আতঙ্ক

বাহুবল প্রতিনিধি \ বাহুবলে স্কুলে যাবার অল্পের জন্য আরো ৩ শিশু অপহরণকারীদের কবল থেকে রক্ষা পেয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে জনতা হারুন মিয়া (৩৫) নামে এক অটোরিকশা চালককে আটক করে পুলিশে দিয়েছে। সে উপজেলার ভাটপাড়া গাজীপুর গ্রামের ঝারু মিয়ার পুত্র। আটক অভিযুক্ত অটোরিকশা চালককে দেখতে দিনভর থানায় স্ব স্ব নারী-পুরুষ ভীড় জমায়। উৎসুক জনতার ভীড় সামলাতে পুলিশকে গলদ্ঘর্ম হতে দেখা গেছে।
এদিকে, উপজেলা সুন্দ্রাটিকি গ্রাম থেকে ৪ শিশু নিখোঁজ হওয়ার ২ দিন অতিবাহিত হলেও কোন ক্লু খোজে পাচ্ছে না পুলিশ। নিখোঁজ শিশুদের পরিবারের সদস্যদের আর্তনাদে এলাকার আকাশ-বাতাস ভারি হয়ে উঠেছে। গতকাল রোববার দিনভর উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন আর মিটিংয়ে ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন। শিশু অপহরণ ও নিখোঁজ সংক্রান্ত ঘটনাগুলো প্রকাশ হওয়ায় উপজেলা সর্বত্র ছেলেধরা আতঙ্ক বিরাজ করছে। স্কুল, কলেজে শিক্ষার্থীদের উপস্থিত কমে গেছে। অভিভাবকরা ঘর থেকে শিশুদের বের করতে সাহস পাচ্ছেন না।
স্থানীয় লোকজন জানান, গতকাল রোববার বেলা ৯টার দিকে পুটিজুরী ইউনিয়নের ভাটপাড়া গাজীপুর গ্রামের আব্দুল কাইয়ূমের কন্যা মহিমা খাতুন (১১), মনির মিয়ার কন্যা সামিয়া জান্নাত (১১) ও দানিছ মিয়ার কন্যা সেলিনা আক্তার (৯) স্থানীয় প্রাইমারী স্কুলে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে কয়েক যুবক তাদের ঝাপটে ধরে একটি সিএনজি অটোরিকশায় তুলে নেয়ার চেষ্টা চালায়। তাদের শোর চিৎকার আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে অপহরণকারী যুবকরা পালিয়ে যায়। এ সময় জনতা হারুন মিয়া নামে ওই সিএনজি অটোরিকশা চালককে আটক করে। আটক অবস্থায় তাকে স্থানীয় পুটিজুরী ইউপি কার্যালয়ে হাজির করে জনতা। খবর পেয়ে উপজেলার সুন্দ্রাটিকি গ্রামের হামদু মিয়া উপস্থিত হয়ে হাউমাউ করে কেঁদে উঠেন। দু’দিন পূর্বে তার ৪ নাতি নিখোঁজ হয়েছিল, এখনও তাদের সন্ধান মেলেনি। এ সময় তিনি আটককৃত হারুনের কাছে তার নিখোঁজ নাতিদের সন্ধান জানতে চান। কিন্তু সে এ ব্যাপারে কোন তথ্য দেয়নি। আটককৃত হারুন সুন্দ্রাটিকি গ্রামের শহীদ মিয়ার জামাতা হওয়ায় ওই ৪ শিশু নিখোঁজের সাথে তার সম্পৃক্ততা আছে বলেই জনতা অনুমান করেন। পরে তাকে বাহুবল মডেল থানায় সোপর্দ করা হয়। এ খবর পেয়ে স্থানীয় জনতা বাহুবল মডেল থানায় ভীড় জমান।
এদিকে, শুক্রবার বিকেলে উপজেলার সুন্দ্রাটিকি গ্রাম থেকে নিখোঁজ হওয়া সুন্দ্রাটিকি গ্রামের মোঃ ওয়াহিদ মিয়ার পুত্র স্থানীয় সুন্দ্রাটিকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণীর ছাত্র জাকারিয়া আহমেদ শুভ (৮), তার চাচাত ভাই আব্দুল আজিজ এর পুত্র একই বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্র তাজেল মিয়া (১০) ও আবদাল মিয়ার পুত্র একই বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেণীর ছাত্র মনির মিয়া (৭) এবং তাদের প্রতিবেশী আব্দুল কাদির এর পুত্র সুন্দ্রাটিকি মাদরাসার ছাত্র ইসমাঈল হোসেন (১০) এর কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।
এ ব্যাপারে বাহুবল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোশাররফ হোসেন পিপিএম জানান, এখন পর্যন্ত কোন ক্লু পাওয়া যায়নি। নিখোঁজ শিশুদের সন্ধান বের করতে পুলিশ সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। রোববার সিলেটের ভারপ্রাপ্ত ডিআইজি ড. মোঃ আক্কাছ উদ্দিন ভূঁইয়া, হবিগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মাসুদুর রহমান মনির ও হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশের ওসি মোঃ মোকতাদির হোসেন রিপন ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও তদন্তকারী কর্মকর্তাদের সাথে সভা করে দিক নির্দেশনা প্রদান করেন। পুলিশের একাধিক টিম অনুসন্ধানে কাজ করছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com