বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ০৩:৪৫ অপরাহ্ন

মাধবপুরে সড়ক ডাকাতি থানায় এজাহার দায়ের

মাধবপুরে সড়ক ডাকাতি থানায় এজাহার দায়ের

মাধবপুর প্রতিনিধি \ মাধবপুরে ডাকাতের কবলে পরে সর্বস্ব খুইয়েছেন ৩ মোটর সাইকেল আরোহী ও ৫ সিএনজি যাত্রী। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে মাধবপুর উপজেলার বানেশ্বর-আন্দিউড়া সড়কের মধ্যবর্তী বড়িগাছ তলা নামক স্থানে ডাকাতির ঘটনাটি ঘটে। এ ব্যাপারে ডাকাতের কবলে পড়া বানেশ্বর গ্রামের মিজানুর রহমান বাদী হয়ে উপজেলার বরগ গ্রামের আব্দুল আউয়ালের ছেলে এনামূল হক (৩০), লালু মিয়ার ছেলে নজরুল মিয়া (২৫) ও নাদির মিয়ার ছেলে মানিক মিয়া (২৭) এর নাম উলে­খ করে আরো ৫ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে শনিবার মাধবপুর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছেন। বাদী মিজানুর রহমান হচ্ছেন-স্থানীয় সংসদ সদস্য এডঃ মাহবুব আলী ও সাবেক পিপি হবিগঞ্জ বারের সাবেক সভাপতি এডঃ ফজলে আলীর চাচাত ভাই।
এজাহার সূত্রে জানা গেছে, মিজানুর রহমান গত শুক্রবার এডঃ ফজলে আলীর মাধবপুরে নির্মিতব্য ভবনের তদারকি শেষে সংসদ সদস্য এডঃ মাহবুব আলীর সাথে সাক্ষাতের অপেক্ষায় থেকে রাত পৌনে ১২টার দিকে ২টি মোটরসাইকেল যোগে তিনিসহ চাচাত ভাই আলমগীর ও রনি মিয়া গ্রামের বাড়ি বানেশ্বর রওয়ানা দেন। রাত সাড়ে ১২টার দিকে ওই স্থানে পৌছুলে উলে­খিত আসামীরাসহ সহ ৮জন রাস্তায় গাছ ফেলে তাদের গতিরোধ করে। পরে মারপিট করে মিজানের কাছ থেকে ২০ হাজার ও আলমগীরের কাছে থেকে ২২ হাজার টাকা সহ তাদের মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। একই সময় সিএনজি চালক আউস মিয়া সিএনজি যাত্রী বানেশ্বর গ্রামের শহিদ আলী, হেলাল মিয়া, জসু মিয়া এবং মহমুদপুর গ্রামের বাবু মিয়াকে আটকিয়ে মারপিট করে টাকা পয়সাসহ মোবাইল ফোন সেট ছিনিয়ে নেয় ডাকাত দল।
উলে­খ্য, কিছু দিন পূর্বে বরগ গ্রামের আব্দুল আউয়ালের ছেলে এনামূল হককে উলে­খিত স্থানে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে থানার উপ-পরিদর্শক মমিনুল ইসলাম আটক করে। তার স্বীকারোক্তি মতে মাটি চাপা অবস্থায় পাইপগান উদ্ধার করা হয়। এ ব্যাপারে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com