বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:২৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে পুত্রের কান্ড ! সম্পত্তির জন্য পুত্রের অত্যাচারে চিকিৎসাধীন পিতা-মাতার পলায়ন শায়েস্তাগঞ্জে তানভীর হত্যাকান্ড ॥ একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে নিভে গেলো পরিবারের আলোর মশাল লাখাইয়ের ৬ ইউনিয়নে কম্পিউটার বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির চুনারুঘাট ও বাহুবলের বিভিন্ন স্থানে রাতের আধারে জমজমাট হয়ে উঠে জুয়া খেলার আসর হবিগঞ্জ পৌরসভায় বিএনপির দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন মেয়র প্রার্থী রিংগন পুলিশ সুপারের সাথে হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী নূরুল আমিন ওসমানের শুভেচ্ছা বিনিময় বাহুবলের মিরপুরে বন্ধবন্ধু ক্রিকেট টুর্নামেন্টের বর্ণাঢ্য উদ্বোধন কিবরিয়া হত্যাকান্ডের ১৬ বছর পূর্তির দিনে সাক্ষ্য দিলেন ৪ জন শায়েস্তাগঞ্জে মাপে কম দেয়ায় ফিলিং স্টেশনসহ ৪টি প্রতিষ্ঠানকে ভ্রাম্যমান আদালতের অর্থদন্ড সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়ার সমাধিতে জেলা যুবলীগের পুষ্পস্তবক অর্পণ
মানবতাবিরোধী অপরাধ \ নবীগঞ্জের আ.লীগ নেতা গোলাপ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন

মানবতাবিরোধী অপরাধ \ নবীগঞ্জের আ.লীগ নেতা গোলাপ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন

স্টাফ রিপোর্টার \ নবীগঞ্জ উপজেলার ১১নং গজনাইনপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়ের গোলাপের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ এনে প্রাথমিক তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। গত ৩১ জানুয়ারী হবিগঞ্জ পুলিশ সুপারের মাধ্যমে জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি মোঃ মোক্তাদির হোসেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে এ তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন।
অভিযোগে বলা হয়, নবীগঞ্জ উপজেলার গজনাইনপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়ের গোলাপ মানবতাবিরোধী অপরাধের সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত ছিলেন। আবুল খায়েরের পিতা মতিউর রহমান ওরফে উমরা মিয়া একজন রাজাকার ছিলেন। ১৯৭১ সাথে মুক্তিযুদ্ধকালীন তিনি পাক-হানাদার বাহিনীকে সহযোগিতা করেন। তার সহযোগিতায় পাক হানাদার বাহিনী নবীগঞ্জ উপজেলার দিনারপুর হাইস্কুলে ক্যাম্প স্থাপন করে। এ সময় তার পিতার সহযোগীতায় পাকা-হানাদার বাহিনী নীরিহ বাঙ্গালীর উপর নির্যাতন চালায় ও হত্যা করে। এ সময় আবুল খায়ের বয়স ছিল প্রায় ১৯ বছর। তার পিতার নির্দেশে পাক হানাদার বাহিনীর সাথে সম্মিলিত হয়ে আবুল খায়ের গোলাপ নীরিহ লোকজনদের বাড়িতে হামলা, অগ্নিসংযোগ, ধর্ষণ ও লুটপাট করে। অভিযোগে আরো উলে­খ করা হয়-স্বাধীনতার পূর্বে গোলাপ একজন স্বল্প আয়ের যুবক ছিলেন। কোন রকমে চলত তাদের অভাবের সংসার। কিন্তু স্বাধীনতা সংগ্রামে তাদের ভাগ্য বদলে দেয় পাক হানাদার বাহিনী। মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে আবুল খায়ের গোলাপ স্থানীয় ব্যক্তিদের হত্যা করে তাদের সম্পত্তি দখল করে প্রচুর সম্পদের মালিক হন। ১৯৭২ সালে গোলাপের বিরুদ্ধে হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, অগ্নিসংযোগের অভিযোগ উত্থপিত হয়। পরে নবীগঞ্জ থানা ও হবিগঞ্জ মহকুমা আদালতে মামলা দায়ের হয়। কিন্তু তৎকালীন সময়ে তার ক্ষমতার দাপটে কিছু কিছু অভিযোগ চাপা পড়ে যায়।
উলে­খ্য, ২০১৫ সালের ১৭ জুলাই তার বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ এনে একই উপজেলার নিশাকুড়ি গ্রামের আছকির উল­ার ছেলে মো. মানিক মিয়া বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে বিষয়টি তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য হবিগঞ্জ পুলিশ সুপারকে নিদের্শ দেন। সে অনুসারে হবিগঞ্জ জেলার গোয়েন্দা শাখার ওসি মো. মোক্তাদির হোসেন দীর্ঘ তদন্ত শেষে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com