মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ত্রিপল মার্ডার নাটকীয় মোড়

নবীগঞ্জে ত্রিপল মার্ডার নাটকীয় মোড়

এম এ বাছিত, নবীগঞ্জ থেকে \ নবীগঞ্জে বড় ভাকৈড় গ্রামে গৃহবধু রুমেনা বেগম ও তার দুই সন্তানকে পরিকল্পিত হত্যার ঘটনায় দায়েরকৃত পৃথক দুটি মামলা নাটকীয় মোড় নিয়েছে। আদালতের আদেশে অধিকতর তদন্ত শুরু করেছে আইন শৃংখলা বাহিনী। আদালতে গোয়েন্দা কর্মকর্তার চার্জশীট, নারাজী আবেদন এবং বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগের ভিত্তিতে নতুন করে তদন্ত শুরু করেছে পিবিআই। গোপন ও প্রকাশ্য তদন্তে চাঞ্চল্যকর তথ্যের দাবি করা হয়েছে। গত ২২ মার্চ নিহত ওই গৃহবধুকে পারিবারিক কলহের জের হিসেবে দুই সন্তানসহ পরিকল্পিত হত্যার অভিযোগে নবীগঞ্জ থানা ও আদালতে পৃথক মামলা দায়ের করেন আশুক মিয়া ও মোঃ বাছিত মিয়া। গাছের ডাল থেকে গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ এবং পুকুরের পানিতে ভেসে উঠা দুই সন্তানের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনায় থানা ও আদালতে মামলা ছাড়াও সুষ্ঠ বিচার এবং রহস্য উদঘাটনে আইনমন্ত্রীসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। তৃতীয় দফায় মামলার তদন্ত করছে পিবিআই পুলিশ।
মামলা সূত্রে প্রকাশ, উপজেলার বড় ভাকৈড় ইউনিয়নের বড় ভাকৈড় গ্রামের গৃহবধু রুমেনা বেগম (৩৫) এবং তার দুই সন্তান মুসা মিয়া (৭) ও কন্যা সন্তান মুসলিমাকে পরিকল্পিত ভাবে গত বছরের ২২ মার্চ গভীর রাতে ঘাতক স্বামী ফরিদ মিয়া সহযোগিদের নিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় ফরিদ মিয়াকে প্রধান অভিযুক্ত করে গৃহবধুর চাচা আশুক মিয়া ৬ জনের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-২৪। তদন্ত করেন এসআই আশেকুল ইসলাম। প্রধান অভিযুক্ত ফরিদ মিয়া ও হুছন মিয়াকে গ্রেপ্তার করে আদালতে ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। ৩০ মার্চ শুনানী শেষে বিজ্ঞ বিচারক দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলার তদন্ত এবং আসামী গ্রেপ্তার নিয়ে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ ও সুষ্ঠ বিচার চেয়ে একই ঘটনায় মোঃ বাছিত মিয়া আদালতে মামলা দায়ের করেন। দরখাস্ত মামলা নং ৮১/১৫। বিজ্ঞ আদালত ১ এপ্রিল দেয়া আদেশসহ মূল অভিযোগ ২ এপ্রিল ১২১ নং স্বারকে মামলার কেস ডায়রীর সহিত সংযুক্ত করেন। পুলিশ সুপারের নির্দেশে হবিগঞ্জ স্বারক নং-ভি/১৮৫২ এর ভিত্তিতে ১২ এপ্রিল তদন্তের দায়িত্ব জেলা গোয়েন্দা শাখায় মামলার কেস ডকেটসহ প্রেরণ করেন। গোয়েন্দা শাখার এসআই মোঃ ইকবাল বাহার মামলা তদন্তের দায়িত্ব নেন। আদালতের নির্দেশে অভিযুক্ত আবুল হাসানকে দুই দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ এবং কুতুব উদ্দিন, এহিয়া মিয়াকে জেল গেটে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। নিহত গৃহবধুর মৃত্যু রহস্য উদঘাটনে মৃতদেহ কবর থেকে উত্তোলনের জন্য আদালতে আবেদন করেন। ২৫ মে শুনানী শেষে বিজ্ঞ বিচারক নির্বাহী ম্যাজেষ্ট্রেটের উপস্থিতিতে লাশ কবর থেকে উত্তোলনের আদেশসহ এক্সিকিউটিভ ম্যাজেষ্ট্রিট শাহরিয়ার জামিলকে নিয়োগ দেন। ২৭মে ম্যাজেষ্ট্রেটের উপস্থিতে উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের মাহমুদপুর গ্রামের পারিবারিক কবরস্থান থেকে গৃহবধু রুমেনার লাশ উত্তোলন করেন। গত ৩ ডিসেম্বর মামলার প্রধান অভিযুক্ত বড় ভাকৈড় ইউনিয়নের মৃত আতাউর রহমানের পুত্র ঘাতক ফরিদ মিয়ার বিরুদ্ধে গৃহবধু রুমেনাকে মানষিক নির্যাতন ও আত্মহত্যায় প্ররোচনায় দেয়ার অভিযোগ সংবলিত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা ইকবাল বাহার। অপর আসামী দুই সহোদর বুরহান উদ্দিন, সাহাব উদ্দিন, বুরহান উদ্দিনের স্ত্রী ফাতেমা বেগম, মৃত নাছির উদ্দিনের পুত্র তারা মিয়া ওরফে তেরাব উদ্দিন, রুস্তম উল্যার পুত্র আফজল মিয়া, নাছির উদ্দিনের পুত্র কুতুব উদ্দিন, মৃত আতাউর রহমানের পুত্র মতিউর রহমান, এহিয়া, তাজিম উল্যার পুত্র লিটন মিয়া, সফত উল্যার পুত্র আলীম উল্যা, টগাই উল্যার পুত্র আমীর হোসেন, লালা উল্যার পুত্র মাসুক মিয়াকে পর্যাপ্ত স্বাক্ষ্য প্রমাণ না পাওয়ায় মামলা থেকে অব্যাহতি দেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com