রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:১৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
লাখাইয়ে পারিবারিক বিষয় নিয়ে বাকবিতন্ডা ॥ পুত্রের হাতে পিতা খুন হবিগঞ্জে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম ॥ রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনই উত্তম পন্থা শহরের বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের সামন থেকে ১২ রোমিও আটক পরিবারের মুছলেখায় মুক্তি ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে চুনারুঘাটের ১ জনের মৃত্যু নবীগঞ্জে বউ-শাশুড়ীর ঝগড়া প্রাণ গেল সবুর হোসেনের বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশকে পিছিয়ে দিয়েছিল-এমপি মিলাদ গাজী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলা গড়াই হোক জাতীয় শোক দিবসের অঙ্গীকার-এমপি মজিদ খান পইলে শহীদ এনাম স্মৃতি সংঘের ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত তিতখাই-চান্দপুর সড়কটি সংস্কার কাজ বন্ধ ॥ জনদুর্ভোগ চরমে বানিয়াচঙ্গে চেক ডিজঅনার মামলার সাজা প্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেপ্তার
শায়েস্তানগর হকার্স মার্কেটে দোকান দখল নিয়ে সংঘর্ষ

শায়েস্তানগর হকার্স মার্কেটে দোকান দখল নিয়ে সংঘর্ষ

স্টাফ রিপোর্টার \ হবিগঞ্জ শহরের ঐতিহ্যবাহি পুরাতন বাসস্ট্যান্ড শায়েস্তানগর এলাকায় পুকুর দখল করে গড়ে উঠা হকার্স মাকেটের আড়ালে গড়ে উঠেছে শতাধিক দোকান। এসব দোকান নির্মাণের ফলে একদিকে পথচারীদের চলাচলে অসুবিধা হচ্ছে অন্যদিকে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। পৌরসভার মেয়র মানবিক দিক বিবেচনা করে এখানে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ব্যবসা করতে দিলেও বর্তমানে হকার ব্যবসায়ীরা পুরাতন বাসস্ট্যান্ড ও এর আশপাশের বাসিন্দাদের জন্য গলার কাটা হয়ে উঠেছে। এখানে জায়গা দখল ও দোকান বেচাকেনা নিয়ে প্রতিনিয়তই বাকবিতন্ডাসহ ছোটখাটো সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে। গতকাল শনিবার বিকালে দোকান দখল নিয়ে দুই দল ব্যবসায়ীর মাঝে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ৫ জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত অবস্থায় মোহনপুর এলাকার আব্দুর রহমানের পুত্র ব্যবসায়ী তাজুল ইসলাম (৪০) কে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
আহত সুত্রে জানা যায়, মোহনপুর এলাকার ব্যবসায়ী তাজুল ইসলাম ও সাহেদ আলীর মাঝে দোকান বেচাঁকেনা নিয়ে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে উভয়পক্ষে সংঘর্ষ হলে উলে­খিতরা আহত হয়।  স্থানীয়দের অভিযোগ শহরকে যানজটমুক্ত করতে ওই এলাকা থেকে বাস টার্মিনাল সরিয়ে নিয়ে কোর্ট স্টেশন এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। গত কয়েক বছর ধরে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ ৩৬ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের দাবির প্রেক্ষিতে মানবিক দিক বিবেচনা করে ওই এলাকার একটি পুকুর (যা সরকারি পুকুর নামে পরিচিত ছিল) এর একপাশ ভরাট করে ব্যবসা করতে অনুমতি দিয়েছিলেন। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গত কয়েক বছরে ওই পুকুরের চারপাশই ভরাট করে দখল করে অবৈধ স্থাপনা গড়ে তুলেছে একটি চক্র। শুধু দখল করেই ক্ষান্ত হয়নি চক্রটি। এখানে স্থাপনা নির্মাণ করে এর ভূমিও বেচাকেনা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, কোন কোন দোকানের পজিশন তিন থেকে ৪ বার বিক্রি করা হয়েছে। কেউ প্রতিবাদ করলেই শুরু হয় বাকবিতন্ডা ও সংঘর্ষের ঘটনা। হবিগঞ্জ পৌরসভার আওতাধীন পুকুরটির চারপাশের বিশাল অংশ দখল হয়ে যাওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই এর পাশের সড়কগুলি দিয়ে যানবাহন চলাচল করতে পারে না। এ কারণে যানজট কবলিত ওই এলাকার কয়েকটি সড়কে আরো বেশি যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। রাস্তা পার হতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে পাশে থাকা একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ৩৬ দোকানের বিপরীতে অবৈধভাবে গড়ে উঠা শতাধিক দোকানের কোনোটির ওপরই হবিগঞ্জ পৌরসভার নিয়ন্ত্রণ নেই। ফলে এ সব দোকান থেকে কোনো ধরনের আয় করতে পারছে না হবিগঞ্জ পৌরসভা। বরং প্রতি মাসে হাজার-হাজার টাকা রাজস্ব আদায় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, মেয়র জি কে গউছ দায়িত্বে থাকাকালীন সময়ে এখানে একটি অত্যাধুনিক মার্কেট নির্মাণের পরিকল্পনা করেন। এ জন্য বাজেটও বরাদ্ধ হয় এবং হর্কাস ব্যবসায়ীদেরকে শ্মশানঘাটস্থ এলাকায় স্তানান্তরের উদ্যোগ নেয়া হয়। বিভিন্ন কারণে মার্কেট নির্মাণের পরিকল্পনা ও হকার্স ব্যবসায়ীদের স্থানান্তরের বিষয়টি মাঝপথে থেমে যায়। এ ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত মেয়র পিয়ারা বেগম বলেন, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মানবিক দিকটি বিবেচনা করে মেয়র মুল সড়কের সামনের অংশে সীমিত জায়গায় ব্যবসার অনুমতি দিয়েছিলেন। অবৈধ দখলের বিষয়ে তিনি বলেন, মেয়রের অনুমতি ব্যতিত অবৈধভাবে যদি কোন দোকান নির্মাণ করা হয়ে থাকে তবে সরেজমিন যাচাই বাছাই করে সেগুলো উচ্ছেদের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com