সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৭:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচংয়ে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ব্যবসায়ীদের স্বপ্ন পুড়ে ছাই ॥ ক্ষতি প্রায় ৩ কোটি টাকা ॥ এমপি মজিদ খানের পরিদর্শন নবীগঞ্জে আ.লীগ নেতাসহ ৫ জনকে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত হবিগঞ্জে ডিসির আশ্বাসে বাস চলাচল স্বাভাবিক এমপি আবু জাহিরকে তাক লাগানো সংবর্ধনা দিল গোপায়া ইউনিয়নবাসী ব্যবসায়ীদের সর্বোচ্চ নিরাপত্ত্বা দেয়ার আহবান জানালেন মোতাচ্ছিরুল ইসলাম ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের নয়া কমিটি মর্তুজ আলী সভাপতি, আব্দুল্লাহ সম্পাদক মৎস্যজীবী লীগের স্বীকৃতিপ্রাপ্তির বর্ষপূর্তি উদযাপন ॥ তাজুল ইসলামকে ¯œানঘাট ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী দেয়ার দাবি আজমিরীগঞ্জে সরকারী ভূমিতে দোকান ঘর নির্মানের চেষ্টা ॥ প্রশাসনের নির্দেশে কাজ বন্ধ মাধবপুরে বাহাদুর হত্যা মামলা অবশেষে পিআইবিতে হস্তান্তর মেয়র প্রার্থী নিলাদ্রী টিটু’র সমর্থনে ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভা
মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী শাহারাজ হেরে গেলেন জীবন যুদ্ধে

মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী শাহারাজ হেরে গেলেন জীবন যুদ্ধে

আবুল হোসেন সবুজ, মাধবপুর থেকে \ শাহারাজ মিয়া খেয়াঘাটের একজন মাঝি। এপার থেকে ওপারে লোক পারাপার করেন। সময়টা ছিল বিভীষিকাময় ৭১ সাল। পাক হায়েনারা তখন দেশজুরে তাণ্ডব চালিয়ে যাচ্ছিল। তখনই শাহারাজ মিয়া মাঝি সাজেন। কিন্তু এটি ছিল তার ছদ্মবেশ। প্রকৃত অর্থে তিনি ছিলেন একজন গেরিলা বাহিনীর সদস্য। খেয়া পারাপার করতে গিয়ে তিনি একদিনে ৬জন পাকসেনাকে পানিতে ডুবিয়ে হত্যা করেন। সেই মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী শাহারাজ মিয়া জীবন যুদ্ধে হেরে গেলেন। বয়সের ভারে ন্যুয়ে পড়া শাহারাজ মিয়া কোনভাবে বেঁচে আছেন। ঠিকমত অর্থভাবে চিকিৎসা পাচ্ছেন না তিনি। নিজের মাথা গোজার ঠাইটুকুও নেই তার। আজ আর তাকে খোঁজ করার কেউ নেই।
মাধবপুর উপজেলার রসুলপুর গ্রামের বাসিন্দা তিনি। বসয় এখন ৭০ এর কাছাকাছি। পিতা জহর আলীর ২য় সন্তান শাহরাজ মিয়া। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক প্রাক্তণ এমপিএ স্যার মৌলানা আসাদ আলীর উৎসাহ অনুপ্রেরণায় ভারতের আগরতলায় কংগ্রেস ভবনে মুক্তিযোদ্ধা প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে যোগ দেন। গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া ৩ মাস প্রশিক্ষণ নিয়ে সহযোদ্ধাদের নিয়ে ৩নং সেক্টরের অধীনে নাছিরনগর, লাখাই মাধবপুর এলাকায় গেরিলা যুদ্ধে অংশে নেন। গেরিলা যুদ্ধের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, হবিগঞ্জের লাখাই রামপুর মধ্যবর্তী স্থানে মাঝি ছদ্মবেশে খেয়াঘাটে লোক পারাপারের কাজ করেন। একদিন তার নৌকায় ৬জন পাক সৈন্য উঠলে কৌশলে মাঝ নদীতে নৌকা ডুবিয়ে ৬ সৈন্যকে হত্যা করে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাধবপুর উপজেলার ইটাখোলা রেল ষ্টেশনে ছন বাঁশের একটি কুঁড়ে ঘরে শাহরাজ মিয়া তার স্ত্রী ও এক ছেলেকে নিয়ে দারিদ্র ক্লিষ্ট ও বিভিন্ন রোগের সঙ্গে লড়াই করে বেঁেচ আছেন। এরপরেও ৭১’এর বীর সেনানী মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া ইটাখোলা রেল ষ্টেশনের কাছে একটি গণকবর সংরক্ষণের কাজ করছেন। তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে যুদ্ধের সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তার দোসররা সন্তোষপুর, মীর্জাপুর, ইটাখোলা এলাকার ১৫/১৬ জন নিরীহ মানুষকে সারিবদ্ধভাবে লাইনে দাড় করিয়ে গুলি করে হত্যা করে রেল লাইনের পাশে একটি গর্তে গণকবর দেয়। এ গণকবরটি সংরক্ষণের কেউ উদ্যোগ নেয়নি। তবে মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া এ স্থানটিকে চিহ্নিত করে বেড়া দিয়ে রেখেছেন। তিনি বলেন, এ গণকবরটি খনন করলে অনেক মানুষের হাড় ও মাথার খুলি পাওয়া যাবে। মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া বলেন, ১৯৮৭ সালে একটি স্বাধীনতা বিরোধী চক্র একটি মিথ্যা ডাকাতি মামলায় জড়িয়ে ১৪ মাস জেল খাটিয়েছে তাকে। এ মামলায় পড়ে জমি জমা ভিটে বাড়ী সব বিক্রি করে এখন রেলের জায়গায় সামান্য কুঁড়ে ঘরে বসবাস করেন। অর্থের অভাবে শ্বাস কষ্ট হার্নিয়া রোগী শাহরাজ মিয়া চিকিৎসা পাচ্ছে না। দারিদ্র ও রোগের সঙ্গে লড়াই করে কোন রকমে বেঁচে আছেন সংগ্রামী মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া। সরকার তার নামে ২৫ শতক জমি দিলেও এখনও এর দখল পাননি। প্রতিদিন শাহরাজ মিয়া সরকারী জায়গাটি পাওয়ার আশায় ভূমি অফিসে আসা যাওয়া করেন। কিন্তু কে শুনে কার কথা। উপজেলা ডেপুটি কমান্ডার আব্দুল মালেক মধু বলেন, রেলের সামান্য জায়গায় মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া অতি কষ্টে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে বেঁচে আছেন। সরকারী জমিটি তার দখলে সমজিয়ে দেওয়া হলে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে এই জায়গায় বসবাস করতে পারতেন। নিজের জমি জমা বাড়ি ঘর না থাকলেও ৭১’এর বীর সেনানী মুক্তিযোদ্ধা শাহরাজ মিয়া ইটাখোলা গণকবরের সংরক্ষণে কাজ করছেন। এ ব্যাপারে মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাশেদুল ইসলাম এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বন্দোবস্তের কাগজপত্র নিয়ে আসলে মুক্তিযোদ্ধার জায়গা উদ্ধার করে তাকে সমজিয়ে দেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com