মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ১০:০৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীমঙ্গলে যুবলীগ নেতা সেলিমের উদ্যোগে সাড়ে ৫শ অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে ড. রেজা কিবরিয়ার পক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জে শেষ হয়েছে ৫দিন ব্যাপি ইয়ূথ এসোসিয়েশন অব ইউকে এর খাদ্য সহায়তা বিতরণ নবীগঞ্জে গৃহহীন দুই বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধাকে সেনাবাহিনীর বাসস্থান উপহার আলমগীর চৌধুরীর সৌজন্যে নবীগঞ্জে ১৬৫ পরিবারকে ঈদ উপহার প্রদান নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা “বঙ্গবন্ধু ছাত্র একতা পরিষদ” নেতা রায়হান এর উদ্যোগে ইফতার বিতরণ এখন প্রমান করার সময় মানুষ মানুষের জন্য-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম অনাহারী মুখ খাবার তুলে দিচ্ছেন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম বাগুনিপাড়া ডিফেন্স হোল্ডার এ্যাসোসিয়েশন ঈদ উপহার বিতরন
মুক্তিযোদ্ধার ভূয়া কোটায় চুনারুঘাটে চাকুরী করছে দুই শিক্ষিকা

মুক্তিযোদ্ধার ভূয়া কোটায় চুনারুঘাটে চাকুরী করছে দুই শিক্ষিকা

চুনারুঘাট প্রতিনিধি \ চুনারুঘাটে মুক্তিযোদ্ধার সনদ চুরি করে ভূয়া নাতনী সেজে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে চাকুরী করছেন দুই খালাতো বোন। এ দুই শিক্ষিকা হলেন-চুনারুঘাট উপজেলার উবাহাটা ইউনিয়নের বালিয়ারী গ্রামের আব্দুন নুরের মেয়ে ঝুনু আক্তার ও একই গ্রামের ছেরাগ আলীর মেয়ে সালমা আক্তার শেলী। এদের মধ্যে সালমা আক্তার চুনারুঘাট উপজেলার সতং প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এবং ঝুনু আক্তার উবাহাটা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা পদে চাকুরী করছেন। যে মুক্তিযোদ্ধার সনদ ব্যবহার করা হয়েছে তিনি হলেন-একই গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওয়াহাব। ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওয়াহাব জেলা প্রশাসক বরাবরে অভিযোগ দিয়েছেন।
প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, ২০১২ সালে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রাক-প্রাথমিক শাখায় শিক্ষক ও শিক্ষিকা নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। যেখানে অন্যান্য বিজ্ঞপ্তির মতোই বিভিন্ন কোটার খাতে মুক্তিযোদ্ধা কোটারও উলে­খ ছিল। বিজ্ঞপ্তির প্রেক্ষিতে ঝুনু আক্তার ও সালমা আক্তার শেলী মুক্তিযোদ্ধায় কোটায় আবেদন করে। সেখানে তারা নিজেদেরকে একই গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওয়াহাবের মেয়ের দিকের নাতনী বলে ভূয়া সনদ আবেদনপত্রের সাথে যুক্ত করেন। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানও তাদেরকে প্রত্যয়নপত্র প্রদান করেন।
তারা দুজনই নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেন। পরবর্তীতে হবিগঞ্জ প্রাথমিক শিক্ষা অফিস থেকে ১৯ নভেস্বর ২০১৩ তারিখে ইস্যুকৃত নিয়োগ পত্রে মোছা: সালমা আক্তার, পিতা: মো: চেরাগ আলী, মাতা: ছুকেরা খাতুন, গ্রাম: বালিয়ারী, ডাকঘর: মাধবপুর, উপজেলা: চুনারুঘাট, জেলা হবিগঞ্জকে নবীগঞ্জ উপজেলার কালা ভরপুর ২ নং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ও মোছা: ঝুনু আক্তার, পিতা: মো: আব্দুর নূর, মাতা: মোছা: সুফিয়া খাতুন, গ্রাম: বালিয়ারী, ডাকঘর: মাধবপুর, উপজেলা চুনারুঘাট, জেলা: হবিগঞ্জকে নবীগঞ্জ উপজেলার রাইয়াপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষিকা হিসাবে নিয়োগ প্রদান করা হয়। নিয়োগপত্র পাওয়ার পর ৪/১২/২০১৩ তারিখে তারা স্ব স্ব বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। পরের বছর ২০১৪ সালের ৮ জুন তারিখে নবীগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিস কর্তৃক ইস্যুকৃত স্মারক নং উনিশ/নবী/হবি/বদলী/২০১৪/২৯৩ আন্ত: উপজেলা বদলী করে সালমাকে চুনারুঘাট উপজেলার সতং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ঝুনুকে উবাহাটা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলী করা হয়। বর্তমানে উভয়ই বহাল তবিয়তে চাকুরী করে যাচ্ছেন।
এদিকে অভিযোগের প্রেক্ষিতে ৯ ডিসেম্বর  জেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তার মাধ্যমে তদন্ত করা হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: আ: ওহাব ওই দুই শিক্ষিকার চাচাতো নানা হয়। তাদের আপন নানা হচ্ছেন ইউনুছ উল­াহ ওরপে তোতার বাপ।
মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওহাব জানান, তারা আমার সনদ কিভাবে নিয়েছে আমি জানি না। তারা আমার ঘর থেকে চুরি করে নিয়ে গেছিল বলেও তিনি জানান।
উবাহাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এজাজ ঠাকুর চৌধুরী জানান, মুক্তিযোদ্ধা আ: ওয়াহাবের চাচাত ভাই মরহুম ইউনুছ উল­াহর মেয়ের ঘরের নাতনি হল সালমা আর ঝুনু। এই সুবাধে ওই মুক্তিযোদ্ধার নাতনী হয় তাই দিয়েছি। তা দিয়ে কি করছে আমার জানা নেই।
চুনারুঘাট উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হাসান মুহাম্মদ জুনাঈদ বলেন, একটি অভিযোগ পেয়েছি তবে তা তদন্ত করেছেন জেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা।
তদন্তকারী সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শাহবুদ্দিন জানান, অভিযোগ পেয়ে গত সোমবার তদন্তে গিয়ে ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে। হবিগঞ্জ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাজ্জাদ হোসেন বলেন, তদন্ত চলছে, তদন্তে প্রাথমিকভাবে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে, ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com