সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০, ১১:২৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে শিক্ষা কর্মকর্তা সিদ্দিকুর রহমান হোম কোয়ারেন্টাইন শেষ ॥ সুস্থ্য আউশকান্দি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন সিনিয়র শিক্ষক ফখরু মিয়া স্যার আর নেই নবীগঞ্জের শ্রীমতপুর গ্রামে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাড়ীঘরে হামলা ও ভাংচুর ॥ ৩ মহিলা আহত করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে চুনারুঘাটে সেনাবাহিনীর প্রচারাভিযান বিশ্বাসের জায়গাটা ছোট হয়ে আসছে নবীগঞ্জে প্রস্তুতিকালে তিন ডাকাত আটক, অস্ত্র উদ্ধার খাবার পৌছে দিয়ে মানুষকে ঘরে থাকার আহবান জানাচ্ছেন এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে প্রবাসীদের কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতে কাজ করছে সেনাবাহিনী ও প্রশাসন মাধবপুরে চিনে ফেলায় টমটম চালককে খুন ॥ আদালতে ৩ কিশোর কিলারের স্বীকারোক্তি স্তব্ধ রাতে ত্রাণ নিয়ে অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি চুনারুঘাটের ইউএনও
নবীগঞ্জে ভেজাল সার প্রতারিত হচ্ছে কৃষক

নবীগঞ্জে ভেজাল সার প্রতারিত হচ্ছে কৃষক

স্টাফ রিপোর্টার, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ভেজাল টিএসপি সার বিক্রি হচ্ছে। এক শ্রেণীর অসাধু সার ডিলার ও খুচরা বিক্রেতা কম মূল্যে ওই ভেজাল সার খরিদ করে সরকার নির্ধারিত মূল্যের কম দরে বেশী মুনাফার লোভে উক্ত সারগুলো বাজারজাত করছে। ফলে প্রতারনার শিকার হচ্ছেন গ্রামগঞ্জের সাধারণ কৃষক। সশ্লিষ্ট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের এ ব্যাপারে কোন ভূমিকা নেই।
সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন কর্তৃক প্রস্তুতকৃত ট্রিপল সুপার ফসফেট (টি.এস.পি) সার স্থানীয় প্রকৃত ডিলারগণ সরকার নির্ধারিত ৫০ কেজির বস্তা ১১শ’ টাকায় বিক্রী করে থাকেন। নির্ধারিত ডিলার ছাড়াও কিছু খুচরা ব্যবসায়ী টিএসপির অনুমোনহীন সার বিক্রী করে আসছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী অনুমোদিত সারের প্যাকেটের মতই প্যাকেট তৈরী করে তাতে ভেজাল সার ভর্তি করে সরকার নির্ধারিত শূল্যের চেয়ে কম মূল্যে তা বিক্রি করছেন। একটি প্যাকেট তৈরী করতে ৩৫ টাকা খরচ হয় বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন সার ডিলার জানান। ভেজাল র্নিভেজাল সারের লেবেল এক রকম থাকার কারণে গ্রাম বাংলার কৃষকরা আসল নকল যাচাই করা সম্ভব হচ্ছে না। কিন্তু এ ক্ষেত্রে কৃষি বিভাগের ভুমিকা রহস্যজনক। কৃষি অধিদপ্তর এ ব্যাপারে মাঝে মধ্যে লোক দেখানো অভিযান চালালেও তাতে কোন ফলোদয় হচ্ছেনা। গত শনিবার রাতে নবীগঞ্জ শহরের জেকে হাইস্কুল সড়কে কয়েক বস্তা ভেজাল টিএসপি সার জব্দ করেন উপজেলা সহকারী কৃষি সম্প্রাসরণ অফিসার মোকলেসুর রহমান। পরে কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করে রহস্যজনক কারনে তা ছেড়ে দিয়ে তিনি চলে যান। খবর পেয়ে রাতেই তার মোবাইল নম্বারে ফোন দিলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।
এদিকে ইউরিয়া সারও কোন কোন এলাকায় বেশী মূল্যে বিক্রি হচ্ছে বলে জানা গেছে। ইউরিয়া প্রতি বস্তা ৮০০ টাকা সরকারী দাম নির্ধারিত থাকলেও ক্ষেত্র বিশেষে সাড়ে ৮ থেকে ৯শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com