মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:৩৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
গ্রীসে নিহত নবীগঞ্জের দু’ব্যক্তিকে শেষ বিদায় জানালো এলাকাবাসী চুনারুঘাটে রাস্তার কাঁদায় ধান রোপন করে প্রতিবাদ নবীগঞ্জে হত্যা মামলার ৭০ আসামীর জামিন নামঞ্জুর কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ শহরের গাণিংপার্ক থেকে নতুন বিবাহিত যুবকের লাশ উদ্ধার বাঙ্গালীর আশার বাতিঘর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-এমপি আবু জাহির হবিগঞ্জে নতুন করে ৫ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত শহরে নকল সোনা বিক্রেতা আটক আমার হবিগঞ্জের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জেলা কৃষক লীগের নব নির্বাচিত সভাপতি শরীফ উল্লাহকে শচীন্দ্র কলেজের রোভার স্কাউট গ্রুপের ফুলেল শুভেচ্ছা নবীগঞ্জে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ
ঢাকায় সিক্স মার্ডার ঘটনায় সম্পৃক্ততা না পেয়ে হবিগঞ্জের আটক ৩ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ রুকু-সিজদা ছাড়া দুই ওয়াক্ত নামাজ পড়তেন লুৎফুর

ঢাকায় সিক্স মার্ডার ঘটনায় সম্পৃক্ততা না পেয়ে হবিগঞ্জের আটক ৩ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ রুকু-সিজদা ছাড়া দুই ওয়াক্ত নামাজ পড়তেন লুৎফুর

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ রাজধানীর গোপীবাগে কথিত পীর লুৎফুর রহমান ফারুক সহ ৬ হত্যাকান্ডের ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যায়নরত হবিগঞ্জের ৩ ছাত্রকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যার পর জবাই করে হত্যাকন্ডের ঘটনার পর মেসে অবস্থানরত অন্য ৩জনের সাথে হবিগঞ্জের ওই ৩জনকেও পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে। এরা হচ্ছে- হবিগঞ্জ শহরের চিড়াকান্দি এলাকার বাসিন্দা গোপেশ্বর পালের পুত্র ধানমন্ডির ইউডা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ূয়া ছাত্র অমিনেষ পাল জয়, চৌধুরী বাজারের ব্যবসায়ী বিধান বণিকের পুত্র টোটন বণিক ও শহরের কোর্ট ষ্টেশন এলাকায় বসবাসরত লাখাই উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের ফার্মাসিউটিকেলের ছাত্র টিটু দাশ। এরা গোপীবাগের ওই ভবনের নীচতলায় ভাড়া করা মেসে বসবাস করে লেখা পড়া করতো। ওই ভবনের দ্বিতীয় তলায় হত্যাকান্ডের ঘটনার সময় এরা তাদের মেসে অবস্থান করছিল। ঘটনার পর হত্যান্ডের ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মেসে অবস্থানরত হবিগঞ্জের ওই ৩ ছাত্রসহ ৬ জনকে আটক করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গভীর রাতে তাদের ছেড়ে দেয় পুলিশ। এ ব্যাপারে অমিনেষ পাল জয়ের সাথে যোগাযোগ করা হলে সে জানায়, পুলিশ তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে হত্যার ঘটনায় কোন ধরনের সম্পৃক্ততা না পেয়ে পুলিশ রাতেই তাদের ছেড়ে দেয়।
নিহত লুৎফুর রহমান ফারুকের গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের চরাঞ্চল অজূর্না ইউনিয়নের চরভরুয়ায়। বাবার নাম মৃত হোসেন জোয়াদ্দার। তিনি জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ীর পিকনা হাইস্কুল থেকে এসএসসি ও একই এলাকার একটি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন।
১৯৯৪-৯৫ সালের দিকে তিনি নিজেকে ‘পীর’ দাবি করেন। ধীরে ধীরে তার অনুসারী ও ভক্তের সংখ্যা বাড়তে থাকে। লুৎফর রহমানের বিরুদ্ধে নিজেকে হযরত ইমাম মাহদী (আ.), আবার ইমাম মাহদীকে (আ.) নবী দাবি করে তার প্রধান সেনাপতি হিসেবে পরিচয় দেয়া, ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের বিভ্রান্ত করা, দিনে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের পরিবর্তে দুই ওয়াক্ত নামাজ ও নতুন কালেমা ‘আব্বা আল্লাহ ইমাম মাহদী হুজ্জাতুল্লা’ প্রচার ইত্যাদি অভিযোগ রয়েছে।
লুৎফর রহমান নতুন ধরনের ইবাদত কৌশল রপ্ত করাতেন তার ‘মুরিদ’দের। তিনি বলতেন, দিনে দুই বার নামাজ পড়লেই চলবে। রোজা রাখা অবস্থায় হালকা খাবার গ্রহণকেও তিনি উৎসাহিত করতেন। এসব কর্মকাণ্ডের জন্য লুৎফর রহমান টাঙ্গাইলের ভূয়াপুর থেকে লোকজনের তাড়া খেয়ে ঢাকায় চলে আসেন। ২০০৭ সালে টাঙ্গাইল থেকে ঢাকায় এসে প্রথমে সূত্রাপুরের ধূপখোলা মাঠের পাশে আখড়া গড়েন।
সূত্রাপুর এলাকায় একই কর্মকাণ্ডের জন্য লুৎফর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা হয়। তখন বেশ কিছুদিন জেল খাটেন তিনি। জেল থেকে বেরিয়ে যাত্রাবাড়ী এলাকায় আস্তানা গড়ে একই কর্মকাণ্ড চালাতে থাকেন। পরে এলাকার লোকজন তাকে গণধোলাই দিয়ে বের করে দেয়। এরপর তিনি গোপীবাগে একই কর্মকাণ্ড শুরু করেন। অভিযোগ পেয়ে ২০১১ সালের ১৪ অক্টোবর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।
২০০৯ সালে শাহবাগ থানায় ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানায় লুৎফর রহমানের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়। ২০১১ সালের ১৪ অক্টোবর মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) লুৎফর রহমানকে গ্রেপ্তার করে। পাঁচ সহযোগীসহ ১৮ গোপীবাগের এক নম্বর লেনের বাসা থেকে গ্রেপ্তার হন তিনি। ২০০৫ সালের ২১ মে রাজধানীর ডেমরার বিবির বাগিচা এলাকায় স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে সংঘর্ষে আহত হয়ে লুৎফর রহমান ও তার তিন ‘মুরিদ’ ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি হন। এতে ওই এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। ইসলামের নামে বিভ্রান্তি ছড়ানোর অভিযোগে লুৎফর রহমানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) রয়েছে।
লুৎফর রহমানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মৌলবাদী সংগঠন সোচ্চার হয়েছে। বিভিন্ন সময় তার বাসায় হামলার ঘটনা ঘটেছে। বিশেষ করে ইসলামি শাসনতন্ত্র আন্দোলন, খেলাফত আন্দোলন, খেলাফত মজলিস ও ইসলামি ঐক্যজোট লুৎফর রহমানের বিরুদ্ধে বরাবরই সোচ্চার ছিল।
ঢাকা মহানগর পুলিশের ওয়ারি অঞ্চলের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) মেহেদী হাসান বলেন, ‘লুৎফর রহমান ২০০৭, ২০০৯ ও ২০১১ সালে পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যদের কাছে কমপক্ষে তিন বার আটক হন।’
ডিবি পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘লুৎফর রহমানকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার অভিযোগে ২০১১ সালের ১৩ অক্টোবর গ্রেপ্তার করা হয়। ‘হিযবুল মাহাদী’ নামে নিজের ধর্মীয় মতাদর্শ প্রচারের জন্য তার একটি সংগঠনও ছিল।’
লুৎফর রহমানের ছোট ছেলে আবদুল্লাহ আল ফারুক বলেন, ‘১৯৯৭ সাল থেকে আমার বাবা নিজেকে ইমাম মাহাদীর সেনাপতি দাবি করে আসছিলেন। তিনি প্রচলিত পীরদের মতাদর্শ ও উগ্র মৌলবাদ জঙ্গিগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে কথা বলতেন এবং লেখালেখিও করতেন।’
উল্লেখ্য, গত শনিবার সন্ধ্যায় গোপীবাগের রামকৃঞ্চ রোডের ৬৪/৬ নম্বর ‘আয়না ভবন’ নামে বাড়ির দ্বিতীয় তলার ভাড়াটিয়া ‘পীর’ লুৎফর রহমান ও তার ছেলে সরোয়ারুল ইসলাম ফারুকসহ মোট ছয় জনকে গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।
এ ঘটনায় লুৎফরের ছোট ছেলে আবদুল্লাহ আল ফারুক ওয়ারী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com