সোমবার, ০৬ Jul ২০২০, ১২:৩২ অপরাহ্ন

যাচাই-পরিদর্শন আর ওয়াদা’র মধ্যেই আটকে আছে ॥ চুনারুঘাট বাল্লা স্থলবন্দরের আধুনিকায়নের কাজ

যাচাই-পরিদর্শন আর ওয়াদা’র মধ্যেই আটকে আছে ॥ চুনারুঘাট বাল্লা স্থলবন্দরের আধুনিকায়নের কাজ

নুরুল আমিন, চুনারুঘাট থেকে ॥ সম্ভাব্যতা যাচাই,পরিদর্শন আর ওয়াদা’র মধ্যেই আটকে আছে বাল্লাস্থল বন্দরের আধুনিকায়নের কাজ। পাকিস্তান আমল থেকে যে অবস্থায় ছিলো এখনো সেই অবস্থাই বিরাজ করছে ওই স্থলবন্দরে। কোন উন্নয়ন নেই। ঢাকার দু একটি সিমেন্ট কোম্পানী মাঝে মাঝে কিছু সিমেন্ট রপ্তানী করে ওই স্থলবন্দরের স্বাভাবিক অবস্থা ধরে রেখেছে। বাল্লা চেক পোষ্টের অবস্থাও একই পর্যায়ে রয়েছে। প্রতি মাসে ৩/৪ জন মানুষ বৈধ পথে ভারতের ত্রিপুরার সাথে যাতায়াত করেন। এ অবস্থায় ফকরুদ্দিন-মইনুদ্দিনের তত্বাবধায়ক সরকারের আমল থেকে এ পর্যন্ত বাল্লা স্থল বন্দর ও বাল্লা চেক পোষ্টটিকে আধুনিকায়ন করার কয়েক দফা পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে কিন্তু সম্ভাব্যতা যাচাই-পরিদর্শন আর ওয়াদাতেই সীমাবদ্ধ রয়েছে সকল কার্যক্রম।
পাকিস্তান আমলে সরকার চুনারুঘাট উপজেলার ত্রিপুরা সীমান্ত ঘেঁষা বাল্লা সীমান্ত এলাকায় বাল্লা কাস্টম ও বাল্লা চেকপোষ্ট নামে দুটি প্রতিষ্ঠান স্থাপন করার পর ত্রিপুরার সাথে যোগসুত্র তৈরী হয় তাৎকালীন পূর্ব পাকিস্থানের। প্রায় ৬ একর জমির উপর ওই দুইটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে এখানে লোকবল নিয়োগ দেয় পাকিস্থান সরকার। স্বাধীনতার পর থেকে বাল্লা চেক পোষ্ট ও বাল্লা কাষ্টমের কার্যক্রম পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায় এবং অবৈধ পন্থায় লোকজন পারাপার ও মালামাল আনা-নেয়া শুরু হয়। এ কারনে ওই দুইটি গুরুত্বপূর্ন প্রতিষ্টান মুখ থুবড়ে পড়ে এবং বাল্লা এলাকাটি চোরাচালানের স্বর্গরাজ্যে পরিনত হয়। ফকরুদ্দিন-মইনুদ্দিনের তত্বাবধায়ক সরকারের কৃষি উপদেষ্টা সিএস করিম এলাকা পরিদর্শ করে বাল্লা চেক পোষ্ট ও বাল্লা স্থল বন্দরকে আধুনিকায়নের উপর গুরুত্ব দেন। দীর্ঘদিন পর আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে হবিগঞ্জ-৪ সংসদীয় আসনের এমপি সাবেক সমাজ কল্যান মন্ত্রী এনামুল হক মোস্তফা শহীদ ওই দুইটি স্থাপনাকে আধুনিকায়নের ঘোষনা দেন। এরই ধারাবাহিকতায় স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের বেশ কয়েকজন উর্ধতন কর্মকর্তা, সিলেট বিভাগীয় প্রধান, সিলেট বিভাগের শুল্ক বিভাগসহ বিভিন্ন দপ্তরের প্রধানগন বাল্লা এলাকা পরিদর্শন ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে মতমিনিময় করেন। আওয়ামীলীগ সরকারের গত টার্মে ত্রিপুরা সরকারের বানিজ্য মন্ত্রক ও বাংলাদেশ সরকারের বানিজ্য মন্ত্রনালয়ের যৌথ একটি পরিদর্শক দল বাল্লা সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন করে স্থলবন্দরটি বাল্লা’র টেকেরেঘাটে হবে নাকি নতুন করে কেদারাকোর্ট নামক স্থানে স্থাপিত হবে- তা যাচাই করে যান। সম্প্রতি চুনারুঘাটের চান্দপুর চা বাগান এলাকায় ইকোনমিক জোন স্থাপনের সিদ্ধান্তের পর বাল্লা স্থল বন্দরকে আধুনিক ভাবে গড়ে তোলার উপর গুরুত্ব দেয়া হয়। গত ২১ অক্টোবর স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক, যুগ্ম সচিব আবুল কালাম বাল্লা কাষ্টম ও বাল্লা চেক পোষ্টটিকে পুর্ন রূপ দিতে এলাকা পরিদর্শন করে গেছেন। তার এই পরিদর্শনের মধ্য দিয়ে স্থানীয় মানুষজন আবারো আশায় বুক বেঁধে আছেন বাল্লায় গড়ে উঠবে আধুনিক স্থল বন্দর ও চেকপোষ্ট।
এদিকে বর্তমানে যেখানে চেকপোষ্ট ও কাস্টম পরিচালিত হচ্ছে সেখানেই আধুনিকায়নের কাজ হবে নাকি কেদারাকোর্ট নাক স্থানে হবে সে বিতর্কের কোন অবসান টানা হয়নি। স্থানীয়দের একটি পক্ষ বলছে, এখন যেখানে চেকপোষ্ট ও কাস্টম পরিচালিত হচ্ছে সেখানে আধুনিকায়নের কাজ করা হলে সরকারকে নতুন করে জমি অধিগ্রহন করতে হবে না। অপরদিকে অন্য পক্ষ বলছে কেদারাকোর্ট এলাকায় স্থলবন্দর স্থাপিত হলে সরকারকে কয়েক কোটি টাকার জমি অধি গ্রহন করতে হবে কিন্তু সেখানে খোয়াই নদী বাঁধা হয়ে দাঁড়াবে না। এলাকার সজেতন মানুষ-জন বলছেন, শায়েস্তাগঞ্জ-বাল্লা ট্রেনটির চলাচল স্থগিত হবার পর প্রভাবশালীরা রেলের সমুদয় জমি দখল করেছে। বাল্লা এলাকায়ও রেলের জমি দখল হয়ে গেছে। এসব জমি উদ্ধার করা না হলে বাল্লা স্থলবন্দরের আধুনিকায়নের কাজ বাঁধাগ্রস্থ হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com