রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে বানিয়াচং সার্কেলের দায়িত্ব পেলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ মোঃ সেলিম
মাধবপুরের বাঘাসুরা ইউপি মেম্বার শহীদ ৫ সহযোগীসহ কারাগারে

মাধবপুরের বাঘাসুরা ইউপি মেম্বার শহীদ ৫ সহযোগীসহ কারাগারে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মাধবপুরের বাঘাসুরা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার আব্দুস শহীদকে তার ৫ সহযোগি সহ কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। গতকাল দুপুরে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি মারামারি ও চাদাবাজি মামলায় আদালতে হাজির হলে বিজ্ঞ বিচারক তার জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ ছাড়া মেম্বারের বিরুদ্ধে রয়েছে এলাকার জমির দালালী, অন্যের জমি জবর দখল, অসামাজিক কর্মকান্ড পরিচালনাসহ এন্তার অভিযোগ।
মামলার বিবরণে জানা যায়, মাধবপুর উপজেলার ১১ নং বাঘাসুরা ইউনিয়নের বাঘাসুরা গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল হাসিম মিয়ার পুত্র আওয়ামীলীগ নেতা খসরু মিয়া সম্প্রতি ওই গ্রামের বাজারে একটি দোকানের টেলিভিশনে যুদ্ধাপরাধীর রায় সংক্রান্ত সংবাদ শুনছিলেন। সংবাদের এক পর্যায়ে যুদ্ধাপরাধীর ফাসির রায় হওয়ায় খসরু মিয়াসহ স্থানীয় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ আনন্দ উল্লাস করে মিছিল বের করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ৮ নং ওয়ার্ড মেম্বার ও ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আব্দুস শহীদ মিয়া, ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি সবুর মিয়াসহ তাদের লোকজন বাধা দেয়া। এ নিয়ে উভয় পক্ষের লোকজনের মাঝে কথা কাটাকাটি হয়। পরে স্থানীয় লোকজন বিষয়টি তাৎক্ষণিক মিমাংসা করে দেন। পর দিন সকাল বেলা খসরু মিয়া তার বাড়ি থেকে বাঘাসুরা বাজারে যাওয়ার পথে পুর্ব উৎপেতে থাকা শহীদ মিয়াসহ তার লোকজন তার গতিরোধ করে চাদা দাবী করে। এ সময় খসরু মিয়া চাদা দিতে অপরগতা প্রকাশ করায় শহীদ মিয়া ও তার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে খসরু মিয়াকে মারধোর করে। এর জের ধরে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে উভয় পক্ষের অর্ধশত লোক আহত হয়। এ ঘটনায় খসরু মিয়া বাদী হয়ে মাধবপুর থানায় বিএনপি নেতা শহীদ মিয়া, সবুর মিয়া, নোয়ালি মিয়া, ছোটন মিয়া, হারুণ মিয়া ও আলী মিয়াসহ ৩০ থেকে ৪০ জনের নামে চাদা দাবীসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে তাদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় গতকাল শহীদ মিয়া, সবুর মিয়া, ছোটন মিয়া, নোয়ালি মিয়া, হারুন মিয়া, আলী মিয়াসহ ৯ আসামী হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট কৌশিক আহমেদ এর আদালতে হাজির হয়ে জামিন প্রার্থণা করেন। বিজ্ঞ বিচারক উভয় পক্ষের শুনানি শেষে উল্লেখিত ৬ আসামীর জামিন না-মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।
এ দিকে তাদের আটককের খবর বাঘাসুরাসহ আশপাশের গ্রামে পৌছুলে এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে স্বস্থি ফিরে আসে এবং বাজারে মিষ্টি বিতরণ করে স্থানীয় জনতা।
উল্লেখ্য, শহীদ মিয়ার বিরুদ্ধে রয়েছে এলাকার জমির দালালী, অন্যের জমি জবর দখল, অসামাজিক কর্মকান্ড পরিচালনাসহ এন্তার অভিযোগ। এছাড়াও সে বর্তমান সরকার বিরোধী কর্মকান্ডেও জড়িত রয়েছে।
সাবেক চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন তালুকদার বেনু মিয়া জানান, তার সময়ে স্থানীয় গ্রামবাসী চোরাই গরুসহ শহীদ মিয়াকে আটক করে আমার পরিষদে নিয়ে আসলে আমি মালামালসহ তাকে মাধবপুর থানায় হস্তান্তর করি। পরে সে মুচলেখার মাধ্যমে থানা থেকে মুক্তি পেয়ে যায়। এ দিকে অপর আসামী ছোটন মিয়াকেও গ্রামের কয়েক কৃষকের ভেড়া চুরি করে পালিয়ে যাওয়ার সময় তাকেও হাতে নাতে আটক করে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে সোপর্দ করে। পরে সে ভবিষ্যতে আর কোন ধরনের চুরি-ছিনতাই করবেনা মর্মে মুচলেখা দিয়ে অভিভাবকের জিম্মায় মুক্তি পায়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com