শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ০৬:২৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতীয় নাগরিকের পিটুনীতে বাংলাদেশী খুন ॥ লাশের অপেক্ষায় স্বজনরা বানিয়াচংয়ের বিভিন্ন বাজারে সেনাবাহিনীর জনসচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শ্রীমঙ্গলে ৬৭ টি মামলায় ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা নবীগঞ্জে সরকারের অর্থ সহায়তার তালিকায় নারী কাউন্সিলরের পরিবারের ৬ সদস্যের নাম শচীন্দ্র লাল সরকারের সমাধীতে জেলা সিপিবি, উদীচী, কিবরিয়া ফাউন্ডেশন, সচেতন নাগরিক কমিটি ও মাতৃছায়া কেজি এন্ড হাইস্কুলের পুষ্পস্তবক অর্পন দৈনিক খোয়াই পত্রিকার সার্কুলেশন ম্যানেজার সাইফুলের পিতার ইন্তেকাল নবীগঞ্জে ভাতিজার হাতে চাচা খুন শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর আব্দুল আহাদের মৃত্যু বানিয়াচঙ্গের হাওর থেকে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার হবিগঞ্জে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১
নবীগঞ্জে প্রেমের ফাঁদে পেলে প্রেমিকের সর্বনাশ

নবীগঞ্জে প্রেমের ফাঁদে পেলে প্রেমিকের সর্বনাশ

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জে প্রেম প্রেম খেলা করে বিয়ের ফাঁেদ পেলে ৪ লাখ টাকা আত্মসাত করে বিয়ের দেড় বছরের মাথায় সংসার না করেই নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে তালাক প্রদান করেছে প্রতারক প্রেমিকা সালমা আক্তার রিফা। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে প্রতারনার শিকার প্রেমিক স্বামী ইপু মিয়া এ-কোল, ও-কোল, সব কোল হারিয়ে পাগল প্রায়। প্রেমিকা রিফা উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের লামরু গ্রামের মৃত আব্দুল আওয়ালের মেয়ে এবং পরিবার পরিকল্পনা সহকারী ইউপির ২ নং ওয়ার্ড ইউনিটে কমরত।
সুত্রে জানা যায়, সালমা আক্তার রিফা কলেজে অধ্যায়নরত থাকাকালীন তার এক আত্মীয়ের মাধ্যমে পৌর শহরের বরাকনগর এলাকার ইসলাম উদ্দিনের ছেলে ব্যবসায়ী ইপু মিয়ার সাথে পরিচয় হয়। পরিচয় থেকে পরিনয়, এক পর্যায়ে গভীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে প্রেমিক যুগলের মধ্যে। সেই সুবাধে প্রায় ৬/৭ বছর পুর্বে প্রেমিকা রিফা বড় বোন রাজিয়া আক্তারের বিবাহের সময় প্রেমিক ইপু মিয়ার কাছ থেকে ১ লাখ কর্জ নেয়। এছাড়া বিভিন্ন অজুহাত ও তার নিজের এবং পরিবারের নানা অসুবিধা দেখিয়ে পর্যায়ক্রমে আরো আড়াই লাখ টাকা ভাগিয়ে নেয়। ২০১৩ সালের প্রথম দিকে সালমা আক্তার রিফার ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে পরিবার পরিকল্পনা সহকারী হিসেবে নিয়োগ লাভ করে। ওই টাকা গুলো প্রেমিকাকে যোগান দিতে ইপু মিয়া পরিবারের লোকজনের অজান্তে তার ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান হাত ছাড়া হয়। ২০১৪ সালের শুরুতেই পরিবার পরিকল্পনা সহকারী রিফা প্রেমিক ইপু মিয়াকে শর্ত সাপেক্ষে বিয়ে করতে চায়। এতে সায় দেয় প্রেমিক ইপু মিয়া। ফলে বিগত ১৮/০২/২০১৪ইং তারিখে হবিগঞ্জে বিজ্ঞ নোটারী পাবলিক কার্যালয়ের মাধ্যমে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এবং ২১/০২/২০১৫ ইং তারিখে কাজী মুহিবুর রহমানের মাধ্যমে কাবিন রেজিষ্ট্রারী করে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে গোপনে দু’এক দিন বসবাস করেন। পরে শর্তমোতাবেক রিফা তার পিত্রালয়ে অবস্থান করেন। মাঝে মধ্যে স্বামীর সাথে পরিবারের লোকজনের অজান্তে দেখা সাক্ষাত করতেন। কথা থাকে রিফা তার ভাই আব্দুল মুহিতসহ পরিবারের লোকজনকে ম্যানেজ করে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হবে। সেই প্রতিক্ষায় থাকে প্রেমিক ইপু। এরই মাঝে গেল ১ লা বৈশাখ স্ত্রী রিফা তাকে জানায়, তার একটি কিডনী নষ্ট চিকিৎসা করাতে প্রচুর টাকার দরকার। ওই টাকা দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। স্ত্রীর অসুস্থতার কথা শুনে চিকিৎসার জন্য এবং নানা প্রয়োজনে প্রায় দেড় লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় রিফা। একদিন ইপু জানতে পারেন ডাক্তারী রির্পোট অনুযায়ী তার কিডনী নষ্ট হয়নি। এতে ইপুর মনে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে ইপু মিয়া স্ত্রী রিফাকে খবর দিয়ে এনে তার দেয়া টাকা ও বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করার জন্য চাপ দেয়। এ সময় রিফা টাকার বিপরীতে সোনালী ব্যাংকের ৪টি চেক প্রদান করে। এবং অনুষ্ঠানের জন্য আরো কিছু সময় নেয়। প্রতারক প্রেমিকা ও স্ত্রী রিফা ইপু মিয়াকে চেক প্রদানের কিছু দিন সোনালী ব্যাংকে লেনদেন করে একাউন্ট শুন্য করে রাখে। এরপরই সে সমস্ত যোগাযোগ স্বামী ইপু মিয়ার সাথে বন্ধ করে দেয়। স্ত্রী রিফার আচরনে স্বামী ইপু শশুড়বাড়ির লোকজনের সাথে যোগাযোগ করে টাকা নয় শুধুমাত্র স্ত্রী রিফাকে দাবী করে। সেখানে কোন সুযোগ না পেয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার, ইউপি চেয়ারম্যান ও ওয়ার্ড মেম্বারের কাছে বিচার প্রার্থী হয়। তাতেও কোন ফল হয়নি। সহজ সরল ইপু মিয়া প্রেমিকা অতঃপর স্ত্রী সালমা আক্তার রিফা চাহিদা মিটাতে প্রায় ৪ লাখ টাকা জোগান দিতে গিয়ে এক দিকে দোকান খুইয়েছেন, অন্য দিকে বিয়ে করে সংসার হওয়ার আগেই দেড় বছরের মাথায় স্ত্রী রিফাকে হারিয়ে পথে বসেছে। গতকাল মঙ্গলবার ডাক পিয়ন স্ত্রী রিফার তালাকনামার এফিডেভিট কপি হাতে পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। ইতিমধ্যে এ ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে স্বামী ইপু মিয়া জানায়, রিফা তার সাথে এমন করবে বিশ্বাস করতে পারছে না। তার দাবী রিফা এখনও তাকে খুব ভালবাসে। কিন্তু তার ভাই ও আত্মীয় স্বজনদের কুপরামর্শে এ কাজটি করেছে। ইপু মিয়া জানায়, তার স্ত্রী রিফাকে ফিরে পাওয়ার জন্য আইনের আশ্রয় নেবে। এদিকে রিফা ও তার ভাইদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায় নি। এছাড়া ইউপির সংরক্ষিত ওয়ার্ড ও সাধারণ ওয়ার্ড মেম্বার নাম অপ্রকাশের শর্তে ইপু মিয়ার পক্ষে বিচার প্রার্থীর বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তবে মেয়ে ও তার পরিবারের কারনে তারা এগুতে পারেন নি বলে জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com