মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল ২০২০, ০৩:৪০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে অসহায় দুইশত পরিবার ঘরে বসে পেল খাদ্য সামগ্রী হবিগঞ্জের প্রাইভেট ডাক্তারদের মধ্যে পিপিই বিতরণ করেছেন ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরী করোনা সঙ্কটের মধ্যে চুনারুঘাটে মশার উৎপাত মাধবপুরের জগদীশপুরে ত্রান বিতরণ ডাঃ ফাতেমা খানম হবিগঞ্জে আলেম সমাজের সাথে এমপি আবু জাহির এর মতবিনিময় ॥ করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিধি-বিধান মেনে চলার সিদ্ধান্ত নবীগঞ্জ অগ্নিকান্ডে ২ ভিক্ষুকের ঘর পুড়ে ছাই প্রশাসনের তৎপরতায় জনশূণ্য নবীগঞ্জ ত্রাণ বিতরণ হলেও বিপাকে দিনমজুর খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষ মাধবপুরে স্কুল ছাত্রীর গোসলের দৃশ্য ধারনের প্রতিবাদ করায় বাড়ি ঘরে হামলা আহত ৮ মাধবপুরে বন্য শুয়োরের আক্রমনে আহত ১০
কালের বিবর্তনে প্রিয় মৃৎশিল্প বিলুপ্তির পথে

কালের বিবর্তনে প্রিয় মৃৎশিল্প বিলুপ্তির পথে

এম এ আই সজিব ॥ মৃৎশিল্পীরা ভালোবাসা ও মমতা দিয়ে নিপুন হাতে কারু কাজের মাধ্যমে মাটি দিয়ে তৈরি করে থাকেন নানা তৈজসপত্র। তাদের জীবন জীবিকার হাতিয়ার হলো মাটি। কিন্তু কালের বিবর্তনে তাদের ভালোবাসার জীবিকা ফিকে হতে বসেছে। দিন যতই যাচ্ছে, ততই বাড়ছে আধুনিকতা। আর এই আধুনিকতা বাড়ার সাথে সাথে হারিয়ে যাচ্ছে মাটির তৈরি শিল্পপণ্যগুলো। এক সময় মাটির তৈরি তৈজসপত্রের প্রচুর ব্যবহার ছিল। সেই তৈজসত্রের স্থান দখল করে নিয়েছে এ্যালুমিনিয়াম ও পাস্টিকের তৈরি তৈজসপত্র। এসবের দাম বেশি হলেও অধিক টেকসই। তাই টাকা বেশি হলেও এ্যালুমিনিয়াম ও পাস্টিকের তৈরি তৈজসপত্রই কিনে থাকে সাধারণ মানুষ। কাঁচ, পাস্টিক আর মেলামাইনের ভিড়ে এখন মাটির তৈরি ঐ জিনিসপত্র গুলো প্রতিযোগীতায় টিকে থাকতে পাড়ছে না।
জানা যায়, হবিগঞ্জে বিভিন্ন উপজেলার কুমার পাড়ায় ২০০ টি কুমার পরিবার বসবাস করছে। এর মধ্যে ৮০টি পরিবার সরাসরি মৃৎ শিল্পের উপর নির্ভশীল। দিন রাত একাকার করে মাটি দিয়ে তৈরি করছে বিভিন্ন মৃৎ পণ্য। কিন্তু সঠিক দাম নাম পাওয়ায় আর বর্তমান অবস্থায় কাজ করতে হিমশিম খাচ্ছে এ সকল কারিগররা। বর্তমানে গ্রাম অঞ্চলের বিভিন্ন উৎসব, মেলায় তৈরি খেলনা পুতুল ছাড়া অন্য কোন মৃৎ শিল্পের গ্রাহক নেই বললেই চলে।
বর্তমানে অ্যালুমিনিয়াম, পাস্টিক ও স্টিলের জিনিসপত্রের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে না পেরে মৃৎশিল্প আজ বিলুপ্তির মুখে পড়েছে। ফলে এ পেশায় জড়িত বিশেষ করে এটাই যাদের জীবিকার একমাত্র অবলম্বন তাদের জীবনযাপন একেবারেই কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মৃৎ শিল্পীরা মাটি দিয়ে তৈরি করছেন পুতুল, ফুলের টব, কুয়ার পাত, হাঁড়ি পাতিল সহ বিভিন্ন নৃত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। পরে সেগুলোকে তারা শহরের দোকান এবং বাসা বাড়িতে বিক্রয় করে থাকেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com